তালায় এক মেরিন ইঞ্জিনিয়ার কর্তৃক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টা ! থানায় মামলা


640 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় এক মেরিন ইঞ্জিনিয়ার কর্তৃক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টা ! থানায় মামলা
ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৬ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা :
তালায় মেহেদী হাসান নামের এক মেরিন ইঞ্জিনিয়ার কর্তৃক চতুর্থ শ্রেণির শিশু ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। মেহেদী তালা উপশহরের ৩৩ নং তালা বাজার মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন বাসিন্দা এস. এম. মোশারফ হোসেনের ছেলে।

জানাগেছে, মেহেদী হাসান দেশীয় একটি জাহাঝ কোম্পানীতে মেরিন ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে চট্টগ্রামে কর্মরত। প্রায় ১ মাস পূর্বে ছুটি নিয়ে মেহেদী তালার বাড়িতে বেড়াতে আসে। ধর্ষন চেষ্টার শিকার স্কুল ছাত্রী (৯) পাশ্ববর্তি বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী। ঘটনার পরপরই লম্পট মেহেদী হাসান পালিয়ে গেছে। নির্যাতিত শিশু ছাত্রীকে  তালা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মর্মান্তিক পৈশাাশিক এই ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার বিকালে মেহেদী হাসানের বাড়ির নিচ তলায় দোকান ঘরের মধ্যে।

তালা থানার ওসি সগির মিয়া ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ব্যাপারে রাত ১০ টার দিকে তালা থানায় ধর্ষন প্রচেষ্টার মামলা দায়ের হয়েছে। যার মামলা নং-৩। নির্যাতনের শিকার ওই মেয়ের খালা রোজিনা আক্তার বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেছে। আসামী ধরার জন্য পুলিশ মাঠে নেমেছে।

যৌন নির্যাতনের শিকার শিশু মেয়েটির খালা জানান, স্কুল ছাত্রীর বাড়ি বাগেরহাট জেলায়। তাঁর পিতা-মাতা খুলনায় থাকে। দরিদ্র পরিবারের মেয়েটির লেখাপড়ার জন্য পুলিশ অফিসার খালুর তালার বাড়িতে থাকতো। মেয়েটির খালা আরও জানান, লম্পট মেহেদী হাসান প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন নিজেদের বাড়ির নিচতলায় পিতার মুদি দোকানে মাঝে মাঝে বসতো। ওই দোকান থেকে মেয়েটি বিভিন্ন সময় খাবার কিনতো। এই সুযোগে মেহেদী বিগত ৫/৬দিন ধরে মেয়েটিকে উত্ত্যাক্ত করে আসছে।

বুধবার বেলা ৩টার দিকে মেয়েটি স্কুল থেকে বাড়ি আসার সময় কৌশলে মেহেদী তাকে তার দোকানের মধ্যে নিয়ে মুখ চেপে ধরে জোর করে ধর্ষনের চেষ্টা করে। এসময় দোকান ও তার আশপাশে কেউ ছিলনা। এক পর্যায়ে শিশু মেয়েটি চিৎকার দিলে অপর একটি শিশু ঘটনাস্থলে আসলে মেহেদী পালিয়ে যায়। মেহেদীর পাশবিক নির্যাতনে মেয়েটি জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে সংবাদ পেয়ে মেয়ের খালাসহ অন্যান্য লোকজন মেয়েটিকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে তালা হাসপাতালে ভর্তি করে।

এঘটনার পরপরই মেহেদী চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে পালিয়ে গেছে। তবে, মেহেদীর এই পাশবিক নির্যাতনের কথা অস্বীকার করে তাঁর পিতা মোশারফ হোসেন বলেন, মেহেদীর বিরুদ্ধে চক্রান্ত করা হচ্ছে।

এবিষয়ে তালা থানার এস আই মো. আকরাম হোসেন ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে জানান, ঘটনার সংবাদ পেয়ে সরজমিনে তদন্ত করা হয়েছে। এব্যপারে তালা থানায় মামলা দায়ের হয়েছে ।

এদিকে, মেরিন ইঞ্জিনিয়ার মেহেদী হাসান কর্তৃক চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টার ঘটনায় এলাকার মানুষ ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। তালা বাজার মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, এসএমসি নেতৃবৃন্দ সহ সর্বস্তরের সচেতন মানুষ ঘটনার জন্য দায়ী মেহেদী হাসানের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছে।