তালায় ঘুমন্ত ব্যক্তি এসিড দগ্ধ : সন্দেহ’র তীর স্ত্রীর দিকে !


436 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় ঘুমন্ত ব্যক্তি এসিড দগ্ধ : সন্দেহ’র তীর স্ত্রীর দিকে !
আগস্ট ১১, ২০১৯ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি.এম. জুলফিকার রায়হান ::
তালার কানাইদিযা গ্রামে ঘুমন্ত অবস্থায় আল আমীন গাজী (৩২) নামে এক ব্যক্তি রহস্যজনক এসিড হামলার শিকার হয়েছে। অ্যাসিডে তার মুখ ও শরীর ব্যপকভাবে ঝলসে গেছে। গুরুতর আহত আল আমীনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার রাত ১ টার দিকে (শনিবার গভীর রাত) অ্যাসিড হামলার ঘটনা ঘটে। আলামিন এসময় তার স্ত্রী হাফসা ওরফে আশা বেগমের সাথে বদ্ধ ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। এসিড হামলার ঘটনায় আল আমীন গাজীর স্ত্রী’র ভূমিকা রহস্যজনক।

সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কানাইদিয়া গ্রামের সাত্তার গাজীর ছেলে আলামিন গাজী রং মিস্ত্রী হিসেবে দীর্ঘ দিন ঢাকায় কাজ করতো। আর তার স্ত্রী হাফসা ওরফে আশা বেগম প্রায় ৩ বছর সৌদি আরবে প্রবাসী ছিলো। গত বছরের ডিসেম্বরের দিকে আয়েশা দেশে ফিরে স্বামীর সাথে একমাত্র ছেলে মুজাহিদ (১০)কে নিয়ে ঢাকায় বসবাস করতো। ঈদ উৎসব করার জন্য বুধবার তারা কানাইদিয়া গ্রামের বাড়িতে আসেন।
পারিবারিক সূত্রে জানাগেছে, শনিবার রাত ৯টার দিকে খাওয়া শেষ তরে আলামীন গাজী তার স্ত্রী হাফসা বেগমকে নিয়ে নিজ ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে। এসময় তাদের একমাত্র ছেলে মুজাইফা (১০) চাচার সাথে অন্য ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে।

আকস্মিকভাবে রাত ১ টার দিকে আল আমীনের চিৎকারে পাশের বাড়ীতে থাকা চাচা একলাজ গাজী এগিয়ে আসে। এসময় অ্যাসিডে ঝলসে যাওয়া আল আমীনকে উদ্ধার করে ওই রাতেই স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। এখান থেকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানকার কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে প্রেরন করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী আকলাজ গাজী ও জাহাঙ্গীর গাজী জানায়, আল আমীন এর ডাক চিৎকারে এগিয়ে আসার পর আল আমীন নিজেই ঘরের দরজা খুলে বের হয়। এসময় পাকা বসত ঘরের সকল জানালা বন্ধ ছিল। স্বামী ও স্ত্রী একত্রে একই বিছানায় ঘুমালেও স্ত্রী অ্যাসিড দগ্ধ না হওয়া এবং ঘরের ভিতরে বাহির থেকে অ্যাসিড নিক্ষেপের সুযোগ না থাকা সহ ঘরে বা বিছানার কোথাও অ্যাসিডের আলামত না থাকায় স্ত্রী হাফসা বেগমের ভূমিকা নিয়ে রহস্য সৃষ্টি হয়েছে। স্ত্রী হাফসা বেগম এই অ্যাসিড হামলা করতে পারে বলে পরিবারের সন্দেহ সৃষ্টি হচ্ছে।

এদিকে চিকিৎসারত আল আমীনের সাথে থাকা তার ছোট ভাই রুহুল আমীন গাজী জানান, অ্যাসিডে তার বড় ভায়ের মুখ মন্ডল সহ সমস্ত বুক ও পিঠ ঝলসে গেছে। আশাংকাজনক অবস্থায় আল আমীন খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছেন।

অ্যাসিড হামলার খবর পেয়ে তালা থানার ওসি (তদন্ত) মো. আবুল কালাম আজাদ ও এসআই প্রিতিশ রায় সহ পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এব্যপারে এসআই প্রিতিশ রায় বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যেয়ে অ্যাসিড দগ্ধ আল আমীন’র বক্তব্য নেয়া হয়েছে। এছাড়া তাদের বাড়ি থেকে বিভিন্ন আলামত উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। তবে, আল আমীনের দেহ ছাড়া অন্য কোনও কিছু থেকে অ্যাসিডের আলামত পাওয়া যায়নি। রহস্যজনক অ্যাসিড নিক্ষেপের ঘটনায় প্রাথমিক ভাবে স্ত্রী হাফসা বেগমকে সন্দেহ করা হচ্ছে। আল আমীনের স্ত্রী হাফসা বেগম তার সাথে রয়েছে। এঘটনায় এরিপোর্ট লেখাকালীন থানায় কোনও মামলা হয়নি।