তালায় ঘুমন্ত শিশুকে ধর্ষণ : সালিশের নামে ভিকটিমকে নির্যাতন


404 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় ঘুমন্ত শিশুকে ধর্ষণ : সালিশের নামে ভিকটিমকে নির্যাতন
মে ৩০, ২০২০ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি. এম. জুলফিকার রায়হান ::

তালায় হতদরিদ্র পরিবারের শিশু (১৬)কে জোরপূর্বক ধর্ষণ করা হয়েছে। ঘটনার পর বিষয়টি মিমাংসার নামে ওই শিশুকে ডেকে ব্যপক মারপিট করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ধাঁমাচাঁপা দিতে একটি রাজনৈতিক মহল ভিকটিমের পরিবারকে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগে বলা হয়েছে। শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে তালা সদর ইউনিয়নের জেয়ালা গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে। এঘটনায় এলাকার সাধারন মানুষ ধর্ষকের পরিবারের শাস্তির দাবীতে ফুঁসে উঠেছে।
হতদরিদ্র শিশুর মা জানান, শুক্রবার সকালে কৃষি শ্রমিকের কাজ করার জন্য তিনি ও তার স্বামী মাঠে যান। সেসময় তার অসুস্থ্য মেয়ে বাড়িতে একা ছিল। বেলা ১২টার দিকে পাশ্ববর্তী হায়দার সরদারের লম্পট ছেলে সোহাগ সরদার (২৫) ঘরে ঢুকে শিশু মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষন করে।

ভিকটিম শিশু জানান, শরীর অসুস্থ্য থাকায় সে ঘরের মধ্যে একা ঘুমিয়ে পড়ে। এসময় সোহাগ এসে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। একপর্যায়ে শিশুর চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে লম্পট সোহাগ পালিয়ে যায়। বিষয়টি জানার পর লম্পট সোহাগের পিতা হায়দার সরদার, মা মরিয়ম বেগম, ফুফু সাহিদা বেগম ও ফরিদা বেগম এসে বিষয়টি নিষ্পত্তি করবে বলে বাড়িতে ডেকে নিয়ে যেয়ে তারা ভিকটিম শিশুকে ব্যপক মারপিট করে বলে শিশুটির পিতা জানান। পরবর্তীতে এসব খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে গ্রামের লোকজন জড়ো হয়ে লম্পট সোহাগের বাড়ি ঘিরে রাখে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মোহাম্মাদ আলী নিকারী জানান, ধর্ষিত শিশুটির পরিবার হতদরিদ্র এবং তারা একটি জরাজীর্ন ঘরে বসবাস করে। ওই পরিবারের শিশু কন্যাকে ধর্ষন এবং সালিস করার নামে ডেকে নিয়ে লম্পট সোহাগের মা ও ফুফুরা মারপীট করায় এলাকার মানুষ ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে। পরে অবস্থা বেগতীক দেখে শুক্রবার রাতে লম্পট সোহাগ ও তার পিতা হায়দার আলী বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে। লম্পট সোহাগের পিতা হায়দার আলী-ও একজন কূখ্যাত লম্পট। ইতোপূর্বে সে তার নিজ পুত্রবধু ও ভাতিজি সহ এলাকার একাধিক মহিলাকে রাতের আঁধারে ধর্ষন করে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে শুক্রবার রাত থেকে তালার এক রাজনৈতিক নেতা ঘটনা নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার জন্য ওই শিশুর পরিবারকে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এবিষয়ে ইউপি সদস্য মোহাম্মাদ আলী বলেন, দরিদ্র শিশুকে ধর্ষন, মারপীট ও হুমকির ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে গ্রামের সকল মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের পাশে দাড়িয়েছে। শনিবার বেলা ১২টার দিকে গ্রামের লোকজন ভিকটিম শিশু ও তার পরিবারকে সাথে নিয়ে তালা থানায় মামলা দায়ের’র জন্য আসে।

এবিষয়ে তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল বলেন, শুক্রবার রাতে ঘটনার আংশিক খবর পাওয়া যায়। ভিকটিম শিশুর পরিবার মামলা করলে তৎক্ষনাত যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নেয়া সহ আসামীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

#