তালায় ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত অপপ্রচার চালানো হচ্ছে


400 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত অপপ্রচার চালানো হচ্ছে
মে ১৮, ২০১৯ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

বি. এম. জুলফিকার রায়হান ::
দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের দায়ে তালা উপজেলার জালালপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কৃত হয়ে সাবেক সভাপতি উপজেলা ছাত্রলীগ সহ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। জালালপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি দেবাশীষ অধিকারী শনিবার সকালে তালা রিপোর্টার্স ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন।
সংবাদ সম্মেলনে দেবাশীষ অধিকারী বলেন, তালা উপজেলা ছাত্রলীগের সফল ও সুযোগ্য সভাপতি শেখ সাদী এবং সাধারন সম্পাদক মশিউর আলম সুমন এর নেতৃত্বে উপজেলা ছাত্রলীগ এখন অনেক বেশি সুসংগঠিত এবং শক্তিশালী। তাদের নেতৃত্বে দীর্ঘ বছর পর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ছাত্রলীগের কমিটি গঠিত হচ্ছে এবং তৃণমূল থেকে সংগঠন শক্তিশালী হচ্ছে।
দেবাশীষ বলেন, তালা উপজেলার সব ইউনিয়নে ছাত্রলীগের কমিটি ঢেলে সাজানোকালে উপজেলার ১১নং জালালপুর ইউনিয়নে নাহিদ হাসান অনিককে সভাপতি করে নতুন কমিটি গঠন করা হয়। অনিক সভাপতি হবার পর থেকে একটি মহলের ইন্দনে তালা উপজেলা ছাত্রলীগকে কলঙ্কিত করতে মরিয়া হয়ে ওঠে। সে মাদক সেবন সহ নানান অনৈতিক কাজে জড়িত হয়ে পড়ে, যার ছবি সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। যেকারনে গত ২৯ এপ্রিল তালা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ সাদী ও সাধারণ সম্পাদক মশিউর আলম সুমন প্রেস বিজ্ঞপ্তিতির মাধ্যমে নাহিদ হাসান অনিককে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিষ্কার করে এবং আমাকে সভাপতি করে নতুন কমিটি ঘোষনা করেন।
তিনি বলেন, আমি সহ আমার গোটা পরিবার বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। আমি এর আগে ২০১৪ সালে ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছিলাম। এছাড়া আমার পিতা বিদ্যাধর অধিকারী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক এবং আপন বড় ভাই দিলিপ অধিকারী বাংলাদেশ কৃষকলীগ’র ঢাকা মহানগর দক্ষিন শাখার সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য। আমার শরীরে আওয়ামীলীগের রক্ত বহমান। বিধায় আমি সম্পূর্ন যোগ্যতা ও দক্ষতা বলে জালালপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি হয়েছে। উপজেলা ছাত্রলীগকে কোনও বিশেষ সুবিধা দিয়ে বা তদ্বির করে আমি সভাপতি হয়নি।
দেবাশীষ অধিকারী বলেন, নতুন কমিটি গঠনের পরপরই উপজেলা আওয়ামীলীগ সহ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ’র শীর্ষ নেতৃবৃন্দ আমাদের স্বাগত জানায়। আর এই ক’দিনে ইউনিয়নের সকল ওয়ার্ডে গণসংযোগ করে তৃনমূল থেকে ছাত্রলীগকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ শুরু করেছি। অথচ, একটি মহল আমাকে হেয় করা সহ উপজেলা এবং ইউনিয়ন ছাত্রলীগকে কলঙ্কিত করতে নানান অপপ্রচার শুরু করেছে।
তিনি বলেন, আমি ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি হবার পর থেকেই বিভিন্ন মাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার দিচ্ছে সাবেক সভাপতি অনিক। অথচ এই অনিক ছাত্রদল থেকে ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশকারী এবং তার পিতা এম.এ. গফ্ফার বিএনপি থেকে আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারী।
এক প্রশ্নের জবাবে দেবাশীষ অধিকারী জানান, আমি ছাত্রদলের ওয়ার্ড কমিটির কোনও পদে ছিলাম না। এছাড়া বিএনপি ও ছাত্রদল নেতাদের সাথে আমার ছবি সহ যে পোষ্টারটি সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে তা পরিকল্পিত। আমাকে না জানিয়ে স্টুডিও থেকে আমার ছবি নিয়ে সেসময় ইউনিয়ন ছাত্রদল ওই পোষ্টারটি প্রকাশ করে। বিষয়টি আমি জানতে পারার পর তীব্র প্রতিবাদ করেছিলাম।
উক্ত সংবাদ সম্মেলনে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ’র সাধারন সম্পাদক রাজু ফকির, সাংগঠনিক সম্পাদক শবুজ সরদার সহ বিভিন্ন ওয়ার্ডের সভাপতি ও সম্পাদক সহ অর্ধশতাধিক ছাত্রলীগ নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

#