তালায় জমি দখলে মাদ্রাসার ছাত্র ব্যবহার : অভিভাবক মহলে ক্ষোভ


219 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় জমি দখলে মাদ্রাসার ছাত্র ব্যবহার : অভিভাবক মহলে ক্ষোভ
জুন ১৫, ২০১৯ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি. এম. জুলফিকার রায়হান ::

তালার মাগুরা পীর শাহ জয়নুদ্দীন দাখিল মাদ্রাসার ছাত্রদের ব্যবহার করে বিরোধপূর্ন জমি জোর দখল চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। মাদ্রাসার সুপার মো. আলাউদ্দীন ক্লাস বাদ দিয়ে কোমলমতি ছাত্রদের দিয়ে ওই জমি দখল করার চেষ্টা চালাচ্ছিল বলে অভিযোগ করেছেন জমি মালিক আবুল কাশেম মোড়ল।
উপজেলার মাগুরাডাঙ্গা গ্রামের মৃত. মনির উদ্দীন মোড়লের পুত্র আবুল কাশেম মোড়ল জানান, জেঠুয়া-পাটকেলঘাটা সড়কের মাগুরা বাজারে মাদ্রাসা সংলগ্নে ১ শতক জমি তিনি বৈধ ও দখলিকার মালিক বীর মুক্তিযোদ্ধা শামছুর রহমান এর কাছ থেকে ১৯৭৬ সালে ক্রয় করেন। সেই থেকে অদ্যবদি তিনি উক্ত জমির নিজ নামে রেকর্ড পাওয়া সহ খাজনা প্রদান পূর্বক দোকান ঘর নির্মান করে ভোগ দখল করছেন। কিন্তু এরইমধ্যে মাদ্রাসার সুপার মো. আলাউদ্দীন জমি মালিক আবুল কাশেম এর নিকট বিশেষ সুবিধা দাবী করে। এই সুবিধা না পেয়ে মাদ্রাসা সুপার ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে এবং উক্ত জমি মাদ্রাসার সম্পত্তি দাবী করে তা দখলের জন্য বারবার চেষ্টা চালাতে থাকে। এতে ব্যর্থ হয়ে তিনি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার, আবার সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেন। সর্বশেষ তাঁর দায়ের করা একটি অভিযোগের শুনানী তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে আগামী ২৬ জুন ধার্য্য রয়েছে। তাছাড়া এই জমি নিয়ে সাতক্ষীরায় বিজ্ঞ দেওয়ানী আদালতে একটি মামলা চলমান রয়েছে।
মো. আবুল কাশেম অভিযোগ করে বলেন, এই জমি নিয়ে বিজ্ঞ আদালতে মামলা চলমান এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে গণশুনানী চলাকালে মাদ্রাসা সুপার আলাউদ্দীন শনিবার বেলা ১২টার দিকে মাদ্রাসার ছাত্রদের ব্যবহার করে দোকান ভাংচুর সহ দখলের চেষ্টা করে। এসময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সহ বাজারের লোকজন এগিয়ে আসলে সুপার সহ ছাত্ররা চলে যায়। এদিকে জমি দখলে মাদ্রাসার কোমলমতি ছাত্রদের ব্যবহার করায় অভিভাবকরা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। এছাড়া অবৈধ ভাবে জমি দখল চেষ্টা এবং বিভিন্ন দপ্তরে বারবার অভিযোগ দায়েল করে হয়রানী করায় জমি মালিক আবুল কাশেম মোড়ল আতংকিত হয়ে পড়েছেন।
এবিষয়ে জানতে চাইলে মাদ্রাসার সুপার মো. আলাউদ্দীন বলেন, উক্ত জমি মাদ্রাসার নিজস্ব সম্পত্তি। বিধায় জমি উদ্ধারের জন্য চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এছাড়া জমি দখলে মাদ্রাসার ছাত্রদের ব্যবহার করার কথা অস্বীকার করে তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে শুনানী চলমান অবস্থায় দোকান ঘরে নতুন করে কাজ করায় ছাত্ররা নিজেরাই এদিন সেই কাজ বন্ধ করে দেয় এবং জমি উদ্ধারের চেষ্টা করে।

#