তালায় জিহাদুল ইসলাম পার্টির নামে প্রবাসীকে হত্যার হুমকি দিয়ে চিঠি


380 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় জিহাদুল ইসলাম পার্টির নামে প্রবাসীকে হত্যার হুমকি দিয়ে চিঠি
আগস্ট ৩, ২০১৬ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

রাহাত রাজা :
সাতক্ষীরার তালায় এক অস্ট্রেলিয়া প্রবাসীকে জিহাদুল ইসলাম পার্টি বাংলাদেশ পরিচয় দিয়ে চিঠির মাধ্যমে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। জাকির হোসেন নামের ওই প্রবাসী সাতক্ষীরার তালা উপজেলার জাতপুর গ্রামের মৃত্যু ইউসুফ বিশ্বাসের ছেলে। চলতি মাসে ওই জাতপুর গ্রামে জাকিরের মায়ের হাতে ওই চিঠি আসে।

জাকির হোসেন বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ায় বাস করছেন। জাকিরের মা বৃদ্ধা মমতাজ বেগম তালা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

কুরিয়ার যোগে এই চিঠি পৌঁছানোর পর থেকে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন জাকিরের মা  মমতাজ বেগম ও তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা। চিঠিটা হাতে পেয়ে তারা হতভম্ব হয়ে পড়েন। চিঠিতে তারিখ লেখা গত ১৭ জুলাই। মমতাজ বেগমের হাতে তা পৌঁছে অনেক পরে। তিনি প্রথমে সেটি ভয়ে চেপে রাখেন। পরে পুলিশকে বলেন। অবশেষে তালা থানায় জিডি করেছেন মমতাজ বেগম। পুলিশ তদন্তে নেমেছে।

চিঠিতে লেখা আছে,তুই অনেক ক্ষতি করেছিস আমাদের। এখন কেন পালিয়ে থাকিস। তোকে আমরা কেটে টুকরো টুকরো করে হাত পা মাথা বিচ্ছিন্ন করে ফেলবো। তুই এক মাসের মধ্যে দেখা করবি।

জাকির হোসেনের মা মমতাজ বেগম জানান, ১৩  বছর আগে জাকির হোসেন মালয়েশিয়া যান। সেখান থেকে পাঁচ বছর আগে জাকির অষ্ট্রেলিয়া যান এবং বর্তমানে সেখানেই অবস্থান করছেন। প্রবাসী  হবার আগে বা পরে  কোনও ব্যক্তির সাথে জাকির হোসেনের বিরোধ বা শত্রুতা  ছিল না।

গত ১৭ জুলাই জিহাদুল ইসলাম পার্টি বাংলাদেশ, ১৪৫/৩ মির্জাপুর রোড, খুলনা পরিচয়ে জনৈকা ফেরদৌস আরা বেগম, প্রযতেœ:জুলফিকার আলী, সাং- তালতলা, সাতক্ষীরা সদর, মোবাইল: ০১৭২৩ ৭৭১৯৮৭ একটি চিঠি প্রেরন করেন। চিঠিটি সেন্ট্রাল কুরিয়ার সার্ভিস পাটকেলঘাটা শাখার সিএন নং-২৭৫৯২০ এর মাধ্যমে প্রবাসি জাকির হোসেন এর প্রতিবন্ধি ভাই নাজিম বিশ্বাসকে দেয়া হয়।

চিঠিটি সেন্ট্রাল কুরিয়ার সার্ভিস পাটকেলঘাটা শাখার মাধ্যমে জাকির হোসেনের ভাই নাজিম বিশ্বাসের হাতে আসে। এতে আগামী এক মাসের মধ্যে প্রবাসী  জাকির হোসেনকে জিহাদুল ইসলাম পার্টির সাথে দেখা করতে বলা হয়। না হলে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।  এছাড়া চিঠিতে  গালিগালাজ করে  হুমকি দেওয়া হয়। জিডিতে এসব কথা উল্লেখ করেন মমতাজ বেগম।

তালা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সগির মিয়া জানান,তিনি চিঠিটি হাতে পেয়েছেন। এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।