তালায় ২দিনের ব্যাবধানে একই পরিবারে ৭জন পাগল : চিকিৎসা চলছে ঝাঁড়ফুক দিয়ে


775 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় ২দিনের ব্যাবধানে একই পরিবারে  ৭জন পাগল : চিকিৎসা চলছে ঝাঁড়ফুক দিয়ে
মার্চ ৭, ২০১৭ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা ::
তালার প্রসাদপুর গ্রামের অদ্ভুতুড়ে জ্বীন রোগে আক্রান্ত একই পরিবারের ৭ সদস্যদের মধ্যে ৩জন পুরুষ এখনও শিকলে বন্ধি রয়েছে। ভয়েস অব সাতক্ষীরা’র পক্ষ থেকে তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ফরিদ হোসেনকে সোমবার দুপুরে মানবিক ঘটনাটি অবহিত করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ফরিদ হোসেন- তালা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. কুদরত ই খোদা ও তালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাসান হাফিজুর রহমানকে সাথে নিয়ে রহমত বিশ্বাসের বাড়িতে গেলেও পাগলদের তিনি উদ্ধার করতে পারেননি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ফরিদ হেসেন বলেন, তারা দৈহিকভাবে সুস্থ, তবে মানসিকভাবে অসুস্থ। মানসিক ভারসাম্যহীনের মতো অকাজ করছে তারা। অসংলগ্ন কথাবার্তা বলছে। কখনও কখনও মারমুখী আচরন করছে। পুলিশের লোক তাদের সাথে কথা বলতে গেলে অস্ত্র কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন ‘আমরা চেষ্টা করেছি তাদেরকে তালা অথবা সাতক্ষীরা হাসপাতালে এনে চিকিৎসা দেওয়ার। কিন্তু বাড়ির লোকজন বলছে এসব জ্বীনের দোষ। বাড়ির বাইরে পাঠালে আরও সমস্যা হবে। দুই ঘন্টা ধরে তাদের বাড়িতে বসে চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে ফিরে এসেছি আমরা।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. কুদরত ই খোদা বলেন, ‘আমরা সেখানে তাদের চিকিৎসা দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছি। বিষয়টি সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনকে জানানো হয়েছে। তবে, অসুস্থ্য ব্যক্তিরা প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পেলে সুস্থ্য হয়ে যাবে এবং তারা মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছে বলেও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান।

এদিকে, রহমত বিশ্বাসের পরিবারের দাবি, তাদের মেয়ে ফরিদাকে কুফরী কালাম ও জ্বীনের তদবির করে পাগল বানিয়ে ফেলেছে শ্বশুর বাড়ির লোকজন। ফরিদার গায়েং জ্বীনের বাতাস লেগে পরিবারের অন্যরাও পাগল হচ্ছে বলে তাদের ধারনা।

###