তালায় বিপুল পরিমান দেশীয় প্রজাতির পাখি উদ্ধার


554 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় বিপুল পরিমান দেশীয় প্রজাতির পাখি উদ্ধার
সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৮ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
সাতক্ষীরার তালা উপজেলার আগোলঝাড়া গ্রামে খুলনা বিভাগীয় বনকর্মকর্তার নির্দেশে বন্যপ্রাণী উদ্ধার অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এ সময় বিপুল পরিমান দেশীয় প্রজাতীর পাখি ও পাখির খাঁচা উদ্ধার করা হয়।মঙ্গলবার (০৪ সেপ্টেম্বর) সকালে সাড়ে ৯ টায় এ অভিযানটি পরিচালিত হয়।

সেভ ওয়ার্ল্ড লাইফ এর তথ্যের ভিত্তিতে খুলনা বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নির্দেশে বিভাগীয় ওয়ার্ল্ড লাইফের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাজু আহম্মেদ ও তার বিভাগীয় বন্যপ্রাণী রক্ষা ও অপরাধ দমন ইউনিটের সহযোগীতায় এ অভিযান পরিচালিত করেন।

সেভ ওয়ার্ল্ড লাইফ সাতক্ষীরা জেলা শাখার সভাপতি ইমরান হোসাইন জানান, ভারসাম্যহীন প্রকৃতি আর ব্রেকবিহিন গাড়ী দু’ই সমান। তাই প্রকৃতি ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় জনসচেতনতার বিকল্প নেই। সে লক্ষ্যে বনপ্রাণী সংরক্ষণ নিয়ে ‘সেভ ওয়ার্ল্ড লাইভ’ সাতক্ষীরাসহ পাশ্ববর্তী জেলাগুলোতে কাজ করে। আমাদের কাছে তথ্য ছিল, তালা উপজেলার সদর ইউনিয়নের আগোলঝাড়া গ্রামের আজিজ শেখের ছেলে জসিম শেখ (৩৮) দীর্ঘদিন যাবত দেশীয় প্রজাতীর বিভিন্ন পাখির ব্যবসা করে আসছিলেন। তাছাড়া সে খাঁচায় পাখি ধরে রাখে। পাখি শিকার করেন। বিষয়টি আমাদের নজরে আসলে প্রাথমিকভাবে তাকে বুঝানোর চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হই। পরবর্তীতে বিষয়টি খুলনা বিভাগীয় বনবিভাগের কাছে জানানো হয়। তারই ধারাবাহিকতায় আজ বনবিভাগের উর্দ্ধতন অফিসার ও বিভাগীয় বন্যপ্রাণী রক্ষা ও অপরাধ দমন ইউনিটের সমন্বয়ে এ অভিযান পরিচালনা করেছেন।

অভিযান শেষে খুলনা বিভাগীয় ওয়ার্ল্ড লাইফের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাজু আহম্মেদ জানান, সুনিদৃষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানটি পরিচালিত হয়। আমাদের কাছে তথ্য ছিল জসিম শেখ দেশীয় প্রজাতির পাখির ব্যবসা করেন। তাছাড়া তিনি পাখি শিকার করেন। যেটা সম্পূর্ন দন্ডনীয় অপরাধ। তার বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে অসংখ্যা দেশীয় প্রজাতির পাখির উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত পাখির মধ্যে রয়েছে, ডাহুক , ঘুঘু , কোড়া , কালিম , টিয়া ,ময়না, হলুদ বৌ, শালিক , সরালি হাঁস ইত্যাদি। তবে এ সময় অভিযুক্ত জসিম শেখকে আমাদের ইউনিটের উপস্থিতি বুঝতে পেরে আত্নগোপন করে তাই তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি।
তিনি আরও জানান, পৃথিবীতে সকল প্রাণীর বেঁচে থাকার অধিকার রয়েছে। আইন লঙ্ঘন করে বন্যপ্রাণী ক্রয় বিক্রয় দন্ডনীয় অপরাধ। আর উদ্ধারকৃত পাখিগুলোকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক কতৃপক্ষ্যে কাছে দেওয়া হবে।