তালায় মৎস্য ঘের দখলের অভিযোগে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন


470 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় মৎস্য ঘের দখলের অভিযোগে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন
মে ৩০, ২০১৬ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার  :
জামায়াত ও বিএনপি নেতার ঘের দখল ও লভ্যাংশের টাকা আতœসাতের অভিযোগে সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সাতক্ষীরার তালা খড়েরডাংগা গ্রামের আছির উদ্দীন মোড়লের ছেলে মো ঃ ইদ্রিস মোড়ল।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, মাঝিয়াড়া-খড়েরডাংগা বিলে আনুমানিক দেড়শ বিঘা জমিতে একটি মৎস্য ঘের রয়েছে। ২০১২ সালের ৩০ ডিসেম্বর পরবর্তী ৬ বছরের জন্য জমির হারি পরিশোধে চার জন মালিকানায় ঘেরের জমির মালিকদের নিকট থেকে ডিড করি। চার জন শেয়ার মালিকের মধ্যে মাঝিয়াড়া গ্রামের গাজী আব্দুস সাত্তার, গাজী শহিদুল ইসলাম, খান বোরহানউদ্দীন ও খড়েরডাংগা গ্রামের আব্দুস সাত্তার মোড়ল। পরবর্তীতে প্রথম তিন ব্যক্তির নিকট থেকে দুই বছর পর মাঝিয়াড়া গ্রামের গাজী কামরুল ইসলাম ঘেরের শেয়ার ক্রয় করে নেয়। চতুর্থ ব্যক্তি আমার বড় ভাই আব্দুস সাত্তার মোড়লের নিকট থেকে তিন বছর পর আমি শেয়ার ক্রয় করে নেই। গাজী কামরুল ইসলাম ঘেরের শেয়ার ক্রয়ের পর থেকেই তালবাহানা শুরু করে। বছর শেষে ঘেরের হিসাব চাইতে গেলে মারপিট করতে উদ্যত্ত হয়ে বাড়ী থেকে বের করে দেয়। হিসাবের বিষয়ে মৌখিক এক কথায় উত্তর দেয় ঘেরে ১২ লাখ ২২ হাজার ৫৩৪ টাকা লোকসান হয়েছে। যার লিখিত কোন হিসাব নেই। পরবর্তীতে গাজী কামরুল স্বাক্ষরিত একটি সাদা কাগজে দুই লাইনের হিসাব দেয় যাতে এই লোকসানের কথা উল্লেখ করেছে। যা আদৌই সত্য নয়। ঘেরে আনুমানিক ১৪ লাখ টাকা লাভ হয়েছে। কিন্তু এখন লাভের টাকা আতœসাৎ করার জন্য নানান পায়তারা ও হুমকি-ধামকি প্রদান করছে। তাছাড়া নানাভাবে আমার নিকট থেকে ঘেরের শেয়ার কিনে নিতে ব্যার্থ হয়ে এই হয়রানির পথ বেছে নিয়েছে। গাজী কামরুলের সেঝো ভাই গাজী শফিকুল ইসলাম কয়েকদিন পূর্বে আমার বাড়ীর সামনে প্রকাশ্য দিবালোকে আমাকে হত্যার হুমকি প্রদান করেছে। গত ২৪ মে গাজী কামরুল ইসলাম বাদী হয়ে তালা সদর ইউনিয়ন পরিষদে মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ এনে আমার বড় ভাই আব্দুস সাত্তার মোড়লের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। লভ্যাংশের টাকা বাদেও কামরুল গাজীর কাছে আমার ঘেরের শেয়ারের ৯৫ হাজার টাকা জমা আছে। বিভিন্ন সময় নানাভাবে হয়রানি ও হত্যার হুমকি-ধামকির সংক্রান্তে ইতিপূর্বে তালা থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করা রয়েছে। খড়েরডাংগা গ্রামের খান বোরহান উদ্দীন ও মাঝিয়াড়া গ্রামের গাজী কামরুল ইসলাম জামায়াত-বিএনপির এই সংঘবদ্ধ চক্রটি আমাকে নানাভাবে হয়রানি, লভ্যাংশের টাকা না দেওয়া, ঘেরের মালিকানা লিখে নেওয়ার চেষ্টায় ব্যার্থ হয়ে এখন হত্যার হুমকি প্রদান করছে। বর্তমানে আমি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। যে কোন মুহূর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে। বিষয়টি নিয়ে জরুরী ভিত্তিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।