তালায় ১৮০টি পূজা মন্ডপে শুরু হচ্ছে শারদীয় দূর্গা পূজা


6718 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় ১৮০টি পূজা মন্ডপে শুরু হচ্ছে শারদীয় দূর্গা পূজা
অক্টোবর ১৮, ২০১৫ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

মাহফুজুর রহমান মধু  :
হিন্দু ধর্মালম্বীদের  সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষ্যে তালায় সাজ সাজ বর পড়েছে।  সোমবার মা দুর্গাদেবীর বোঁধন, আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মাধ্যমে ঢাক-ঢোল, কাঁশি, বাঁশি বাজিয়ে মন্ডপগুলিতে পূজা শুরু করবে । শাস্ত্রীয় পন্ডিতরা বলছেন, জননীর আগমণে বসুন্ধরা হবে শস্যাপূর্ণা। স্থানীয় পুজারী জানান, এ বছর জননীর(দেবী) আগমণ হচ্ছেদেবীর ঘেড়াায় ।আর  দেবী পালকিতে চড়ে মর্তলোক ছেড়ে স্বর্গে গমন করবেন। এর মাধ্যমে শেষ হবে শারদীয় দুর্গোৎসব। মা দেবী রেখে যাবে শান্তি,সমৃদ্ধি ও কল্যাণের বাণী এবং আশীর্বাদ। দেবীর আগমনে ধরণী হবে শস্য ভান্ডারে পরিপূর্ণ। নিয়ে আসবেন সৃষ্টির সমস্ত সুখ, সমৃদ্ধি আর দূর করবেন যাবতীয় অন্যায় ও অত্যাচার।

পূজার প্রথম দিন থেকে মন্ডপে মন্ডপে ঢাক-ঢোল, কাঁশি, বাঁশি আর উলুধ্বনিতে মুখরিত হবে আকাশ-বাতাস। পূজা মন্ডপ গুলো সাজানো হয়ছে নতুন নতুন সাজে। আলোকজ সজ্জ্বায় সজ্জ্বিত করা হয়েছে প্রতিটি মন্ডপ। তালা উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সহসভাপতি নারায়ন মজুমদার জানান তালায় এবার ধানদিয়া ইউনিয়নের ঝড়গাছা, দৌলতপুর, নলকুড়া, পারকুমিরা, বলফিল্ড, কুমিরা বাসস্টান্ড,  খলিষখালী দলুয়া  বাজার, গাছা, ইসলামকাটি ইউনিয়নের সুজনসাহ, হরিতলা, তালা বাজার, মহন্দি বটতলা, আটারই, উত্তর ঋষিপাড়া, পুজা মন্ডপ ঝুকিপূর্ন হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এদিকে আসন্ন দুর্গোৎসবকে ঘিরে তালা উপজেলার জনপদে আনন্দের হিমেল হাওয়া বইতে শুরু করেছে। দুর্গা উৎসব পালনে অনেকে নতুন জামা-কাপড়সহ ঘরের প্রয়োজনীয় যাবতীয় জিনিসের কেনা-কাটা করেছে।

জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্ট্রান ্্্ঐক্য পরিষদের সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধু জানান প্রতিবছরের ন্যায় এবারও দর্শকদের মন আকর্ষণের জন্য পূজা মন্ডপগুলিকে  ভিন্ন আঙ্গীকে সাজানো হয়েছে। দর্শনার্থীদের দেখার জন্য পূজা মন্ডপে সার্বিক নিরাপত্তা বিধান করা হয়েছে।াবভিন্ন পূজা মন্ডপে বিজয় দশমীর দিন বিভিন্ন সাং®কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। তালা উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান প্রণব ঘোষ বাবলু বলেন, ইতোমধ্যেই আইন শঙ্খলা বাহিনী নিরাপত্তা বিধানে সার্বক্ষণিক সচেষ্ট আছে।

২০জনকে স্বেচ্ছাসেবক বানিয়ে তাদের পরিচিতির জন্য নির্দিষ্ট ব্যাজ প্রদান করা হয়েছে। তারা সার্বক্ষণিক পূজা মন্দির প্রাঙ্গণ তদারকি করবেন। যাতে কোনভাবে অপ্রীতিকর ঘটনা কেউ ঘটাতে না পারে। উপজেলা চেয়ারম্যান ও পূজা উৎযাপন কমিটির সভাপতি ঘোষ সনৎ কুমার জানান, সমগ্র উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে পূজা অনুষ্ঠান পালনের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে। উপজেলার ১শ ৮০টি পূজা  মন্ডপের অনুকুলে সরকারীভাবে ৯০ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে।