দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে কাঁঠালের বাম্পার ফলনে কৃষকেরা খুশী


169 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে কাঁঠালের বাম্পার ফলনে কৃষকেরা খুশী
মে ৮, ২০১৯ কৃষি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বাগেরহাটসহ ১০ জেলায় কাঁঠালের বাম্পার ফলন হয়েছে। হাসি ফুটেছে কাঁঠাল চাষিদের মুখে। আঠালো এই ফলটি সাইজে খুব একটা বড়ো না হলেও স্বাদে অনন্য।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে যশোর, খুলনা, মাগুরা, নড়াইল, ঝিনাইদহ, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, কুষ্টিয়া ও বাগেরহাটসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১০ জেলায় ৯৮৭৮ হেক্টর জমিতে ১২হাজার ৯৭৩ মেট্রিক টন কাঁঠালের ফলনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে জেলা কৃষি বিভাগ। কৃষি বিভাগ বলছে, অনুকূল আবহাওয়ায় গাছে ব্যাপক কাঁঠাল ধরেছে। তবে মৌসুমের শুরুতে পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় কাঁঠালগুলোর বৃদ্ধি কম হয়েছে। এরপরও কাঁঠালের ভাল ফলন পেতে কাঁঠাল চাষীরা দিন রাত পরিচর্যা করে যাচ্ছে। কিছু কিছু গাছে কাঁঠাল আগাম পাকতে শুরু করেছে। এছাড়া সবজি হিসেবে বাজারে কাঁঠাল বিক্রি হচ্ছে। কাঁঠাল উৎপাদনে কোনো খরচ না থাকায় চাষিরা লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছেন। জেলার চাহিদা মিটিয়ে প্রচুর কাঁঠাল রাজধানীসহ বিভিনড়ব জেলায় সরবরাহ করা হবে বলে আশা করছেন চাষীরা।

কৃষকরা জানান, কাঁঠালের একটি বড় গুণ হলো এর কিছুই ফেলে দেওয়া লাগে না। কাঁঠালের বিঁচি বা আটি এবং কাঁচা কাঁঠালের মোচা দিয়ে তরকারি রান্না করে খাওয়া যায়। কাঁঠালের খোলস ও পাতা গরু-ছাগলের প্রিয় খাবার। এ ছাড়া কাঁঠালের কাঠ থেকে আসবাবপত্র তৈরি করা ভালো হয়।
কাঁঠাল সহ মৌসুমী ফল সংরক্ষণ এবং সুষ্ঠু বাজারজাতকরণের জন্য প্রয়োজনয়ি ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী এ খাতে সংশ্লিষ্টদের।জ্যৈষ্ঠ মাস থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বাগেরহাটসহ ১০ জেলায় কাঁঠাল পাকা শুরু হয়। আষাঢ় ও শ্রাবণ মাসে কাঁঠাল পাকার ভরা মৌসুম। ওইসময় পাকা কাঁঠালের মৌ মৌ ঘ্রাণে মেতে ওঠে চারপাশ।

যশোর, খুলনা, মাগুরা, নড়াইল, ঝিনাইদহ, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, কুষ্টিয়া ও বাগেরহাটসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১০ জেলায়সবচেয়ে বেশি কাঁঠালের ফলন হয়।এসব গাছে রয়েছে প্রচুর ফল। এ অঞ্চলের কাঁঠালের প্রয়োজনীয় চাহিদা এবার যে ফলন হয়েছে তাতে হয়ত অনেকটা মেটানো সম্ভব হবে।

এ অঞ্চলে প্রচলিত প্রথা হল “বৈশাখের শেষে জৈষ্ঠ মাসে বাড়ীর মেয়ে-জামাইকে নাইওর করে আম ও কাঁঠাল না খাওয়ালে মেয়ে-জামাই শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর উপর বেজায় অখুশী হন”। শ্বশুর-শ্বাশুড়ী দরিদ্র হলেও সুদে টাকা এনে হলেও মেয়ে জামাইকে আম ও কাঁঠাল খাওয়ানো চাই কারণ মেয়ে-জামাইয়ের মন রক্ষা করতে হবে।
বাগেরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আফতাব উদ্দিন বলেন, কাঁঠাল অত্যন্ত পুষ্টিকর হওয়ায় এর ফলন বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ফলের রাজা কাঁঠালের চাষ বাড়াতে প্রশিক্ষণ ও প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হয়েছে। কাঁঠাল গাছের পাতা থেকে শুরু করে ফলসহ প্রতিটি অংশ ব্যবহার করা যায় বলে অন্যান্য ফলের তুলনায় এটি লাভজনক। সিলেটে ফসল হিসেবে কাঁঠাল উৎপাদন হয়। কাঁঠাল উৎপাদনে আলাদা কোনো যতœ নিতে হয় না বলে উৎপাদন খরচও কম।এবার বাগেরহাট ৯ উপজেলায় সর্বত্রই অনেক কাঁঠাল গাছ রয়েছে, যার আনুপাতিক সংখ্যা প্রায় লক্ষাধিক এবং একটি কাঁঠাল গাছে গড়ে ২০ থেকে ৭০টি পর্যন্ত কাঁঠাল ধরেছে। প্রতিটি কাঁঠাল আকার ও চেহারাভেদে ৫০ থেকে ১৫০-২০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। আষাঢ়-শ্রাবণ মাসে কাঁঠাল পাকার উৎকৃষ্ট সময়। তবে এবার জ্যৈষ্ঠ মাসেও পর্যাপ্ত পরিমানে কাঁঠাল বাজারে বেচা কেনা হচ্ছে।
কৃষিবিদ আফতাব উদ্দিন জানান, জেলায় এবছর কাঁঠালের ফলন ভাল হয়েছে। জেলার বিভিনড়ব সড়ক ও মহাসড়কের পাশে ব্যক্তিগত উদ্যোগে শতশত গাছ লাগানো হয়েছে। এছাড়াও ব্যক্তিগতভাবে বাড়ির আঙিনায় কাঁঠাল চাষ করা হচ্ছে। কাঁঠাল চাষীদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এছাড়া সারা বছর যাতে কাঁঠালের চাষ করা যায় তার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।
কাঁঠাল রসালো ও সুস্বাদু একটি ফল। এ অঞ্চলে পরিকল্পিতভাবে কাঁঠালের তেমন কোনো বাগান করা হয় না। কোনো ধরনের সার-বিষ প্রয়োগ এবং যতড়ব ছাড়াই এ গাছ বেড়ে ওঠে। কাঁঠাল বাংলাদেশের জাতীয় ফল। যা প্রোটিন ও ভিটামিনসমৃদ্ধ। গ্রাম ও শহর উভয় অঞ্চলের মানুষদের খুবই পছন্দের ফল। স্বাস্থ্যবিজ্ঞানীদের মতে, প্রতি ১০০ গ্রাম পাকা কাঁঠালে রয়েছে ১.৮ গ্রাম প্রোটিন, ০.৩০ গ্রাম ফ্যাট, ২.৬১ গ্রাম ক্যালসিয়াম, ১.০৭ গ্রাম লৌহ, ০.১১ ভিটামিন বি-১, ০.১৫ গ্রাম ভিটামিন বি-২ এবং ২১.০৪ গ্রাম ভিটামিন ই। সুতরাং প্রতিটি মানুষের সুস্থ-সবল স্বাস্থ্যের জন্য ও ভিটামিনের অভাব পূরণে সুস্বাদু কাঁঠাল খাওয়ার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।