দণ্ডিত ব্যক্তির নির্বাচন : চেম্বার আদালতে আবেদন রাষ্ট্রপক্ষের


350 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দণ্ডিত ব্যক্তির নির্বাচন : চেম্বার আদালতে আবেদন রাষ্ট্রপক্ষের
নভেম্বর ৩০, ২০১৮ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

যশোর-২ আসনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সাবিরা সুলতানার তিন বছরের সাজা স্থগিত করে হাইকোর্টের দেওয়া আদেশ নিয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদনের ওপর শুনানি হবে শনিবার।

শুক্রবার সকালে চেম্বার বিচারপতির আদালতে ওই আবেদনটি করা হয় বলে সমকালকে জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

তিনি জানান, হাইকোর্টের আদেশের ব্যাপারে চেম্বর বিচারপতির আদালতে আবেদন করা হয়েছে। শনিবার শুনানির পর এ ব্যাপারে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে।

সাবির সুলতানার করা আবেদনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবারই বিচারপতি মো. রইস উদ্দিনের একক বেঞ্চ তার সাজা স্থগিতের আদেশটি দেন। এর ফলে তার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে কোনো আইনগত বাধা নেই বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী এম আমিনুল ইসলাম।

অথচ গত বুধবার এক আদেশে হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ বলেছেন, দুই বছরের বেশি দণ্ড ও সাজা হলে আপিল করেও কেউ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না।

দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত বিএনপির পাঁচ নেতার দণ্ড ও সাজা স্থগিতের আবেদন খারিজ করে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ ওই পর্যবেক্ষণ দেন। ওই আদেশ অনুযায়ী, খালেদা জিয়াসহ বিএনপির অনেক নেতার নির্বাচন আটকে যায়।

নতুন করে দেওয়া হাইকোর্টের আদেশের ফলে একই ধরনের মামলায় দণ্ডিত অন্যদের ক্ষেত্রে কী ঘটবে এখন সেই প্রশ্ন নতুন করে সামনে এলো।

অবৈধভাবে সম্পদ অর্জন ও সেই সম্পদের তথ্য গোপন করার অভিযোগে দুদকের করা মামলায় গত ১২ জুলাই ঝিকরগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান সাবিরা সুলতানাকে দুটি ধারায় ৩ বছর করে কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত। ৩০ জুলাই সাজার বিরুদ্ধে করা আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন আদালত।

এরপর ৬ আগস্ট সাবিরা হাইকোর্ট থেকে জামিন পান। পরে তিনি সাজা স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন। বিচারপতি মো. শওকত হোসেনের একক বেঞ্চ ওই আবেদনের শুনানি গ্রহণে অপারগতা প্রকাশ করেন। তখন নিয়ম অনুযায়ী আবেদনটি প্রধান বিচারপতির কাছে যায়।

এরপর প্রধান বিচারপতি আবেদনটি শুনানির জন্য বিচারপতি মো. রইস উদ্দিনের বেঞ্চে পাঠান। বৃহস্পতিবার আবেদনটির শুনানি নিয়ে বিচারপতি মো. রইস উদ্দিন সাজা স্থগিত করে আদেশ দেন।