দীর্ঘদিন পর বাংলাদেশের সঙ্গে মিল রেখে মালয়েশিয়ায় পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপন


413 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দীর্ঘদিন পর বাংলাদেশের সঙ্গে মিল রেখে মালয়েশিয়ায় পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপন
আগস্ট ২২, ২০১৮ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

 

শেখ সেকেন্দার আলী, মালয়েশিয়া :

দীর্ঘ বছর পরে এবার মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশের সঙ্গে একই দিনে উদযাপন করলো মালয়েশিয়ায় অবস্থিত বাংলাদেশিরা । ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশীদের মিলন মেলায় রূপান্তরিত মালয়েশিয়ার মসজিদ এরিয়া গুলো । যদিও মনে শান্তি নাই তারপরেও ঈদের দিন সবার মুখে হাসি খুশি রেখেই প্রবাসী বাংলাদেশিরা ঈদ উদযাপন করলো মালয়েশিয়া । বুধবার মালয়েশিয়ার স্থানীয় সময় সকাল সোয়া আটটায় রাজধানী কুয়ালালামপুরে জাতীয় মসজিদ নেগারায় সবচেয়ে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ঈদের নামাজ আদায় করেন প্রধানমন্ত্রী ডা: তুন মাহাথির মোহাম্মদ। নামাজ শুরুর আগে বয়ান পেশ করেন খতিব তানশ্রী শাইখ ইসমাইল মোহাম্মদ।মালয়েশিয়ার বিভিন্ন শহরে ঈদুল আজহা উদযাপন করেছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। এ ছাড়া হাংতোয়া মসজিদ আল বোখারি, মসজিদ জামেক, তিতিওয়াংসা বায়তুল মোকাররাম, কোতারায়া বাংলা মসজিদ, ছুবাংজায়া বাংলা মসজিদ, ক্লাং, পেনাং, ছুঙ্গাই ভুলু, সেলায়েং পাছার পুচং, মালাক্কা, জহোরভারুতেও ঈদের নামাজ আদায় করেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

নামাজ শেষে মুসলিম উম্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাতের পর মুসল্লিরা পরস্পরের সঙ্গে কোলাকুলি করেন। এ সময় মুসল্লিরা তাদের শিশুদের নিয়ে আসেন ঈদ জামাতে। শিশুরাও পরস্পরের সঙ্গে কোলাকুলি ও ঈদ সেলফিতে মেতে উঠেন।

এদিকে নামাজ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কুয়ালালামপুর শহরের প্রাণ কেন্দ্রে কোতারায়া বাংলা মার্কেটে প্রতিবছরের ন্যায় ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে জড়ো হতে থাকেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। সকাল ১০টার মধ্যে কোতারায়া বাংলা মার্কেট হয়ে ওঠে বাঙ্গালীদের মিলন মেলায়। এছাড়াও পেনাং বাংলাদেশি মার্কেট ও জহরবারুতে বাংলাদেশীদের দলবেঁধে ঘুরতে দেখা গেছে । এসময় চুয়াডাঙ্গার প্রবাসী কালাম এই প্রতিবেদককে জানান, ঈদের আনন্দ যতোটুকু তার থেকে বেশি বেদনাদায়ক সবাইকে দেশে রেখে আমরা এখানে ঈদ পালন করছি ব্যথা তো থাকবেই এবং আনন্দ বেশি না হওয়ার কারণ মালয়েশিয়ায় ইমিটেশনের অব্যাহত অভিযানের কারণে অনেকেই ঘরেই ঈদ আনন্দ করছে ।