দুদকের এনামুল বাছিরও গ্রেফতার


109 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দুদকের এনামুল বাছিরও গ্রেফতার
জুলাই ২৩, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

ঘুষ লেনদেনের মামলায় ডিআইজি মিজানুর রহমানের পর এবার দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) বরখাস্ত পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার রাতে রাজধানীর মিরপুর এলাকার একটি বাসা থেকে দুদকের একটি অভিযানিক দল তাকে গ্রেফতার করে।

গত ১৬ জুলাই দুদক ডিআইজি মিজান ও এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল। এরই মধ্যে অন্য মামলায় গ্রেফতার হওয়া মিজানকে ঘুষ লেনদেনের মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। একই মামলায় গ্রেফতার হলেন দুদকের বহিস্কৃত ও বহুল আলোচিত কর্মকর্তা এনামুল বাছির।

দুদকের জনসংযোগ শাখার উপপরিচালক প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য সমকালকে বলেন, ঘুষ লেনদেনের মামলায় এনামুল বাছিরকে গ্রেফতার করে রাতে রমনা থানায় রাখা হয়। আজ মঙ্গলবার তাকে আদালতে হাজির করা হবে।

দুদক সূত্র জানায়, ডিআইজি মিজানের সঙ্গে ঘুষ লেনদেনের ঘটনায় ফাঁস হওয়ার পর অনেকটা আত্মগোপনে ছিলেন এনামুল বাছির। তার বিরুদ্ধে মামলা হলে তিনি পুরোপুরি আত্মগোপনে চলে যান। এরপর তাকে গ্রেফতারের দুদকের এনফোর্সমেন্ট টিম রাজধানীর শাজাহানপুর ও আজিমপুরে তিন দফা অভিযান চালায়। ধারাবাহিক অভিযানে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বাছিরের বিরুদ্ধে দায়ের মামলায় বলা হয়, ডিআইজি মিজান তার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ থেকে রেহাই পেতে অভিযোগটির অনুসন্ধান কর্মকর্তা এনামুল বাছিরকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছেন। একপর্যায়ে তিনি তার অপরাধলব্ধ আয় থেকে বাছিরকে ঘুষ হিসেবে ৪০ লাখ টাকা দেন। সম্প্রতি এ ঘুষ লেনদেনের ক্ষেত্রে মিজান-বাছিরের ফোনালাপের অডিও রেকর্ড একাধিক টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত হয়। পরে এটি ভাইরাল হয়। এর পরই কমিশন ওই ফোনালাপ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয়। অনুসন্ধান টিম ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারে (এনটিএমসি) তাদের ফোনালাপের রেকর্ডটি প্রযুক্তিগতভাবে পরীক্ষা করে। এতে সেই আলাপচারিতা তাদেরই কণ্ঠ বলে প্রমাণিত হয়। ফোনালাপে অভিযুক্ত মিজান দুর্নীতির অভিযোগ থেকে রেহাই পেতে বাছিরকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ দিয়েছেন। আর দুদকের সঙ্গে বিশ্বাস ভঙ্গ করে মিজানকে রেহাই দিয়ে অভিযোগটি নথিভুক্ত করতে চেয়েছিলেন বাছির। এর বিনিময়ে মিজানের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নিয়েছিলেন বাছির। পরে বাছির এ টাকার অবস্থান গোপন করেন।