দেবহাটার ইছামতিতে এবারও ভাসেনি দুই বাংলার মিলন মেলার তরী


462 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দেবহাটার ইছামতিতে এবারও ভাসেনি দুই বাংলার মিলন মেলার তরী
অক্টোবর ২৩, ২০১৫ দেবহাটা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী ইছামতি নদীতে এবারও ভাসেনি দুই বাংলার মিলন মেলার তরী। শারদীয় দুর্গাপূজার বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনকে কেন্দ্র করে একাকার হয়ে যেত দুই বাংলার মানুষ। কিন্তু নিরাপত্তাজনিত কারণে এবারও শত বছরের ঐতিহ্যবাহী দুই বাংলার মিলন মেলার হয়নি।

শুক্রবার সকাল থেকে ইছামতি নদীর এ পারে হাজার হাজার মানুষ প্রতিমা বিসর্জনে হাজির হলেও নদীতে নৌকা ভাসাতে পারেনি কেউই। ফলে বাংলাদেশ পারে প্রতিমা বিসর্জন দিয়ে সন্ধ্যার পরে অনেকটা হতাশ হয়ে ফিরে গেছেন তারা।

ইছামতির পাড়ে প্রতিমা বিসর্জনে অংশ নেয়া একাধিক ব্যক্তি জানান, বিজয়া দশমীতে এপার বাংলা-ওপার বাংলার মানুষ কিছুটা সময়ের জন্য একাকার হয়ে যেত। কিন্তু এই তিন বছর ধরে নিরাপত্তাজনিত কারণ দেখিয়ে বিজয়া দশমীর আনন্দ উৎসব থেকে আমাদের বঞ্চিত করা হয়। গত বছর যার যার সীমানায় বিজয়া দশমীর আনন্দ উৎসব করতে দেয়া হলেও এবার বাংলাদেশের কোন মানুষকেই নদীতে নামতে দেয়া হয়নি। এর ফলে তারা নদীর তীরে দাড়িয়ে প্রতিমা বিসর্জন দিয়ে যে যার ঘরে ফিরে যায়।
স্থানীয়রা জানান, দেবহাটা সীমান্তের ওপারে ভারতের টাকি বিএসএফ ক্যাম্প ও এপারের বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা সীমান্তে কড়া নজরদারি করছে।

কিন্তু এবারও বাংলাদেশ সীমান্ত জুড়ে হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হলেও তারা মিলন মেলার উৎসবে মেতে উঠতে পারেনি। দু’দেশের সীমান্তরক্ষীদের কঠোর নজরদারি ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করায় ইছামতি নদীতে নৌকা, লঞ্চ নিয়ে আনন্দ উৎসবে মেতে উঠতে পারেনি। অন্যান্য বার দু’দেশের পক্ষ থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ এবং প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তারা এ মিলন মেলায় অংশ নিলেও এই দুই বছর ধরে কেউ আর আসছেন না। ফলে দেশের সীমানার মধ্য থেকেই প্রতিমা বিসর্জন দিতে হয়েছে।

এ ব্যাপারে দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাহমিনা খাতুন জানান, নিরাপত্তার স্বার্থে বিজয়া দশমীতে নৌকা ভাসাতে দেওয়া হয়নি। তাছাড়া ভারতের পক্ষ থেকে কোন ইতিবাচক সাড়া না পাওয়ায় সীমান্তে আইনশৃখংলা বহিনীর কঠোর নজরদারী রয়েছে।