দেবহাটায় ইজিবাইক চালককে হত্যা : এসপির ঘটনাস্থল পরিদর্শন


207 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দেবহাটায় ইজিবাইক চালককে হত্যা : এসপির ঘটনাস্থল পরিদর্শন
জুন ২৭, ২০২০ দেবহাটা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আর.কে.বাপ্পা, দেবহাটা ॥
দেবহাটায় এক ইজিবাইক চালককে শ^াসরোধ করে হত্যা করার ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই বাদী হয়ে দেবহাটা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার বাদী হয়েছেন নিহত মনিরুলের ভাই উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের মৃত ইসমাঈল গাজীর ছেলে আমিনুর রহমান (২২)। নিহত মনিরুল ছিলেন আমিনুরের বড় ভাই। দেবহাটা থানায় ২৬-০৬-২০২০ ইং তারিখে ৩০২/৩৯৪/৩৪ পেনাল কোড ১৮৬০ ধারায় রুজু হওয়া উক্ত মামলা নং ০৯।

এদিকে ঘাতকরা মনিরুলকে হত্যা করে যেখানে ফেলে রেখে গিয়েছিল উক্ত ঘটনাস্থল শুক্রবার রাত ১০ টার দিকে সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান পিপিএম (বার) সরেজমিনে পরিদর্শন করেন। এসময় দেবহাটা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার শেখ ইয়াছিন আলী ও দেবহাটা থানার ওসি বিপ্লব কুমার সাহা উপস্থিত ছিলেন। পুলিশ সুপার এসময় দ্রুত ঘাতকদের খুজে বের করে হত্যার প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করতে পুলিশকে নির্দেশনা দেন। দেবহাটা থানায় দায়েরকৃত মামলার এজাহার মতে জানা গেছে, নিহত মনিরুল ২৫-০৬-২০২০ ইং তারিখে দুপুর ৩ টার দিকে তার ইজিবাইক নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়। ঐদিন রাত ১০ টা ২৬ মিনিটে মনিরুলের সাথে তার স্ত্রীর ফোনে কথা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে মনিরুলের ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেলে তারাসহ আত্মীয়স্বজনরা মনিরুলকে খোজাখুজি করতে থাকে। পরে সকাল সাড়ে ৫ টার দিকে তারা সংবাদ পায় তার ভাই মনিরুলের মৃত দেহ সখিপুরস্থ জনৈক আশিষ মন্ডলের বেগুন ক্ষেতে পড়ে আছে।

সেখানে গিয়ে তারা দেখতে পান তার ভাই মনিরুলের মাথার পিছনের অংশে, ডান পাশের ঘাড়ে, পিঠের ডান পাশে, বুকে, বাম হাতের বাহুতে, বাম পায়ের পাতায়, ডান পায়ের বৃদ্ধ আঙুল ও তার পাশের আঙুলের মাঝখানে এবং অন্ডকোষের ডান পাশে কাটা অবস্থায় আছে ও গলায় সাদা রঙয়ের নাইলনের দড়ি পোড়ানো অবস্থায় আছে। এ ঘটনা উল্লেখ করে আমিনুর মামলাটি দায়ের করেন।

এদিকে এমন একটি লোমহর্ষক হত্যাকান্ডের ঘটনায় সাধারন মানুষের মধ্যে একটি ভীতিকর অবস্থা বিরাজ করছে। হত্যাকারীরা শুধুই কি একটি ইজিবাইকের জন্য একটি তরতাজা প্রান কেড়ে নিল নাকি এর মধ্যে অন্য কোন কারন আছে তা নিয়েও সবার মধ্যে উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দেবহাটা থানার ওসি (তদন্ত) উজ্জ্বল কুমার মৈত্র জানান, ঘটনাটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে মামলাটি তদন্ত করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে কিছু বিষয় জানা গিয়েছে তবে মামলার তদন্তের স্বার্থে বলা যাবেনা উল্লেখ করে উজ্জ্বল কুমার মৈত্র জানান, খুব দ্রুত হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশা করেন।