দেবহাটায় ভেড়ীবাধে অবৈধ কালভার্ট নির্মান স্থায়ী বন্ধ করলেন ইউএনও


138 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দেবহাটায় ভেড়ীবাধে অবৈধ কালভার্ট নির্মান স্থায়ী বন্ধ করলেন ইউএনও
মে ১৯, ২০২১ দেবহাটা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আর.কে.বাপ্পা ::

দেবহাটার সীমান্ত নদী ইছামতির ভেড়ীবাধে অবৈধভাবে ড্রেন নির্মান স্থায়ীভাবে বন্ধ করেছেন দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট তাছলিমা আক্তার। বুধবার (১৯ মে, ২০২১) দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাছলিমা আক্তার ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এই অবৈধ কাজটি স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেন। উপজেলা প্রাকৃতিক লীলাভূমি “রুপসী ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট” এর সংলগ্ন ভেড়ীবাধের তলদেশ দিয়ে একটি অশুভ চক্র দীর্ঘদিন কালভার্টের মাধ্যমে ইছামতি নদীর সাথে মৎস্য ঘেরের পানি নিষ্কাশনের কার্য্যক্রম চালিয়ে আসছিল। যার কারনে উক্ত ভেড়ীবাধটি ভেঙ্গে একদিকে যেমন সরকারের লক্ষ লক্ষ টাকার ক্ষতি হচ্ছিলো অন্যদিকে সীমান্দ পারের মানুষগুলো ভয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছিলো। এ বিষয়ে উক্ত চক্রটিকে বারবার নিষেধ করা হলেও তারা কোন কর্নপাত করেনি। বিষয়টি দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাছলিমা আক্তারের নজরে আসলে তিনি সংশ্লিষ্ট পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে বুধবার সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ও বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট এস এম মোস্তফা কামালের নির্দেশে ও পানি উন্নয়ন বোর্ড সাতক্ষীরার যৌথ অভিযানে রূপসী দেবহাটা ম্যানগ্রোভ সংলগ্ন ভেড়িবাঁধের তলদেশ দিয়ে কালভার্টের মাধ্যমে মৎস্য ঘেরের পানি নিষ্কাশন কার্যক্রম স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেন। ইউএনও তাছরিমা আক্তার জানান, বেড়িবাঁধের তলদেশ দিয়ে নির্মিত কালভার্ট দিয়ে এভাবে পানি নিষ্কাশনের ফলে ইছামতী নদী সংলগ্ন বেড়িবাঁধটির ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে মর্মে পরিলক্ষিত হয়। কালভার্টের উভয় পার্শ্বের মুখ বন্ধ করে দেওয়া হয়। জনস্বার্থে এই ধরনের অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে বলে ইউএনও জানান। এসময় দেবহাটা থানার ওসি (তদন্ত) ফরিদ আহম্মেদ, উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ বদরুজ্জামান, দেবহাটা সদর ইউপি চেয়ারম্যান আবু বকর গাজীসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

#