দেবহাটা বাজারে মরা মুরগীর মাংস বিক্রি !


386 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দেবহাটা বাজারে মরা মুরগীর মাংস বিক্রি !
জুলাই ৩০, ২০১৬ দেবহাটা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আর.কে.বাপ্পা, দেবহাটা :
দেবহাটা উপজেলা সদরের বাজারে এক পোল্ট্রি মুরগী বিক্রেতার বিরুদ্ধে মরা মুরগীর মাংস বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগীরা ঐ বিক্রেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন। সরেজমিনে অভিযোগ মতে জানা গেছে, উপজেলার কোড়া গ্রামের ছিয়াম গাজীর ছেলে রওশন আলী দীর্ঘদিন দেবহাটা বাজারে পোল্ট্রি মুরগীর ব্যবসা করছে। অল্প কয়েকদিনের মধ্যে রওশন শূন্য থেকে লক্ষ টাকার মালিক বনে গেছে। গত শুক্রবার ছুদিন দিনে রওশন প্রতিদিনের মতো দেবহাটা বাজারে মুরগী নিয়ে আসে। এসময় তার একটি পোল্ট্রি মুরগী মরে যায়। বিষয়টি স্থানীয় পাশর্^বর্তী ব্যবসায়ীরা দেখতে পেলে রওশন মুরগীটি পাশে রেখে দেয়। পরে কিছু সময় পরে ক্রেতারা মুরগীর মাংস কিনতে আসলে রওশন তার কর্মচারী আনারুলকে ঐ মরা মুরগীটি কেটে বিক্রি করতে বলে। বিষয়টি তার কর্মচারী আনারুল বা ঐ ক্রেতারা বুঝতে পারেনি। ঐ মুরগীটি তিনজন ক্রেতা যথাক্রমে দেবহাটা গ্রামের পিয়ার আলী, বসন্তপুর স্কুলের পাশে বিলায়েত আলী ও দেবহাটা সদরের বাসিন্দা সখিপুর হাসপাতালের কর্মচারী জোবেদার কাছে বিক্রয় করে। পরে রওশনের পাশের মাছ ব্যবসায়ী আবুল ও শহিদুল সহ অন্যান্যরা দেখে মরা মুরগীটি নেই। তখন তারা জিজ্ঞাসা করলে রওশন বলে এক ঋষির কাছে বিক্রি করেছে। কিন্তু তার নাম ঠিকানা না বললে তখন সকলের কাছে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়। রওশনের কর্মচারী আনারুল স্বীকার করে যে সে না জেনে ঐ মুরগীটি তিনজনের কাছে বিক্রয় করেছে। শনিবার রওশন বাজারে না এসে আত্মগোপন করে। এ ব্যাপারে দেবহাটা বাজার কমিটির সভাপতি ওয়াজেদ আলী জানান, মরা মুরগী বিক্রয়ের বিষয়টি সত্যতা পাওয়া গেছে। ঐ বিক্রেতা রওশনের বিরুদ্ধে বাজার কমিটি মিটিং করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করবে। এ ব্যাপারে দেবহাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারী ইন্সপেক্টর অমল কুমার জানান, তিনি সরেজমিনে যেয়ে বিষয়টির সত্যতা পেয়েছেন। স্বাক্ষী প্রমান পাওয়া গেছে এবং এ ব্যাপারে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। তবে রওশনের ব্যবহ্নত মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।