দেশ ছেড়েছেন খাসোগির ছেলে


350 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
দেশ ছেড়েছেন খাসোগির ছেলে
অক্টোবর ২৬, ২০১৮ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::
তুরস্কের সৌদি কনস্যুলেটে খুন হওয়া সাংবাদিক জামাল খাসোগির ছেলে সৌদি আরব ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে গেছেন।

পারিবারিক সূত্রের বরাত দিয়ে সিএনএনের এক প্রতিবেদনে শুক্রবার এতথ্য জানানো হয়েছে।

কয়েক মাস আগে দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা পাওয়া সালাহ বিনা জামাল খাসোগির ওপর থেকে সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়।

সিএনএন জানিয়েছে, পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সৌদি ও যুক্তরাষ্ট্রের দ্বৈত নাগরিক সালাহ বুধবার দেশ ছাড়েন। বৃহস্পতিবার তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে পৌঁছেছেন। সালাহের মা ও তিন ভাইবোন আগে থেকে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন।

খাসোগির ছেলে যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছানোর কয়েক ঘণ্টা পর মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহকারী মুখপাত্র রবার্ট পালাদিনো বলেন, সালাহ খাসোগিকে যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে আসুক, আমরা তাই চেয়েছিলাম। আমরা এ ব্যাপারটিতে সন্তুষ্ট।

কিছু কাগজপত্র তোলার জন্য গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে ঢোকার পর নিখোঁজ হন জামাল খাসোগি। ৫৯ বছর বয়সী জামাল খাসোগি আল-ওয়াতান পত্রিকা ও সৌদি টিভির সাবেক সম্পাদক ছিলেন। তিনি এক সময় সৌদি রাজপরিবারের খুবই ঘনিষ্ঠ ছিলেন এবং ঊর্ধ্বতন সৌদি কর্মকর্তাদের উপদেষ্ট ছিলেন।

তার কয়েকজন বন্ধুকে গ্রেফতার করার পর জামাল খাসোগি সৌদি আরব ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান এবং সেখান থেকে ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকায় লেখালেখি চালিয়ে যাচ্ছিলেন ও বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দিচ্ছিলেন।

খাসোগি মৃত্য রহস্য নিয়ে জলঘোলা হয়েছে অনেক। প্রথম পর্যায়ে তুরস্কের পক্ষ থেকে বলা হয়, খাসোগিকে কনস্যুলেটে হত্যা করা হয়েছে এবং এর পক্ষে তথ্য প্রমাণ তাদের কাছে রয়েছে। তবে বারবার সৌদি কর্তৃপক্ষ এ দাবি অস্বীকার করে আসছিল।

এর মধ্যে তুরস্ক ও সৌদি আরব সফরে যান যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও এ বিয়ষে কথা বলেন সংবাদ সম্মেলনে। নানা নাটকীয়তা আর আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক অঙ্গনে এর প্রভাব পড়ার পর অবশেষে গত শনিবার সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যার কথা স্বীকার করে সৌদি আরব।

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রাথমিক তদন্তের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়, খাসোগি সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশ করার পর কয়েকজনের সঙ্গে তার ‘ধস্তাধস্তি’ হয়। এ ঘটনার কিছুক্ষণ পরই খাসোগির মৃত্যু হয়।

সাংবাদিক খাসোগিকে হত্যাকাণ্ডের দায়ে রিয়াদ ১৮ জনকে গ্রেফতার ও পাঁচ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করেছে বলে জানিয়েছে সৌদি গণমাধ্যম।