ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশে হরিঢালী ক্যাম্পের এস আই মনিরুজ্জামান বেসামাল


377 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশে হরিঢালী ক্যাম্পের এস আই মনিরুজ্জামান বেসামাল
এপ্রিল ২১, ২০২১ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কপিলমুনি (খুলনা) প্রতিনিধি ::

পাইকগাছার হরিঢালী ক্যাম্পের ইনচার্জ এস আই মনিরুজ্জামান হাজরার নানা অনৈতিক কর্মকান্ডের ধারাবাহিক সংবাদ প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ায় তিনি বেসামাল হয়ে পড়েছেন। নিজের অসংখ্য অপকর্ম ঢাকতে ও শাস্তির হাত থেকে রেহাই পেতে রাজনৈতিক নেতা ও পুলিশের পদস্থ কর্মকর্তাদের আনুকূল্য লাভের আশায় যোগাযোগ শুরু করেছেন। এমনকি স্থানীয় একাধিক সংবাদিককে পত্রিকায় তার বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ না করতে বার বার অনুরোধ করেছেন। যদিও তিনি ক’দিন আগে মেডিকেল ছুটি নিয়ে খুলনায় অবস্থান করছেন। প্রায় এক বছরের বেশি সময় ধরে তিনি হরিঢালী পুলিশ ক্যাম্পে ইনচার্জ হিসাবে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকেই তিনি বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। একের পর এক ঘুষ দুর্নীতি সহ নানা অপকর্ম করেই চলেছেন। টাকার ধান্দায় তিনি এলাকা চষে বেড়ান এমনটি জানালেন এলাকাবাসী।
হরিঢালী ইউনিয়নের নগর শ্রীরামপুর মৌজার বিল এলাকায় দিন মজুর মান্দার গাজী বসত ঘর নির্মানের জন্য এক খন্ড জমি ক্রয় করে। সেখানে বসত ঘর নির্মানের শেষ পর্যায়ে এস,আই মনিরুজ্জামান এসে খাস জমিতে ঘর বানানোর মনগড়া অভিযোগ তুলে ঘর নির্মানে বাঁধা দেয়। ক্যাম্পে আমার সঙ্গে দেখা না করে পুনরায় ঘর নির্মানের কাজ শুরু করলে নির্মিত বসত ঘর ভেঙ্গে দেওয়াসহ তাকে জেলে দেয়ার হুমকি দেয়। নির্মিত বসত ঘর ভেঙ্গে দেয়ার হুমকি ও জেলে যাওয়ার ভয়ে পরদিন সকালে তার দুইজন প্রতিবেশিকে নিয়ে ক্যাম্পে দেখা করেন। এ সময় একজন দিন মজুরের কষ্টার্জিত টাকা দিয়ে নিষ্কন্টক জায়গা ক্রয় করে বসত ঘর নির্মানের বৈধতার কথা জানালেও তাতে কর্নপাত করেননি তিনি। এক পর্যায়ে এস,আই মনিরুজ্জামান তাদেরকে ভয় দেখিয়ে ২০ হাজার টাকা দাবি করলেও প্রতিবেশি নাছিরপুর গ্রামের কামরুল ও মজিদের মধ্যস্থতায় নগদ ১০ হাজার টাকা ওই ক্যাম্পে তাকে দেয়া হয়। এছাড়া গত লকডাউনে রাতে বাড়ির বাইরে প্রস্রাব করতে আসার অপরাধে শ্রীরামপুর গ্রামের হাবিবুর সরদার, স’মিল শ্রমিক মোস্তাক সরদার, দিন মজুর হালিম সানার কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া হয় দেড় হাজার টাকা। এর আগে টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাদেরকে ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়ার জন্য ভ্যানে তোলে। এরপর টাকা দিলে তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়। এ দিকে এস,আই মনিরুজ্জামানের আরও অপকর্মের তথ্য বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে।