নবজীবনে বিভিন্ন কর্মসুচির মধ্য দিয়ে আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উদযাপন


348 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
নবজীবনে বিভিন্ন কর্মসুচির মধ্য দিয়ে আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উদযাপন
ফেব্রুয়ারি ২১, ২০১৯ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

নবজীবনের উদ্দোগে কেন্দ্রীয় ও নিজস্ব শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পন করে শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন, চিত্রাঙ্কন ,আবৃতি ,নৃত্য,পুরস্কার বিতরন ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও মহান শহীদ দিবস উদযাপন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে নবজীবন,নবজীবন ইনন্সটিটিউট ও নবজীবন পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের উদ্দ্যোগে মধ্যরাতে ব্যানার ও পুষ্পমাল্য সহকারে একটি বর্নাঠ্য র‌্যালী শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়। পরে দিনের প্রথম প্রহর ১২.০১ মিনিটে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সরকারী প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি নবজীবনের পক্ষ থেকে শহীদদের প্রতি পুষ্পমাল্য অর্পন করে গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এসময় নবজীবনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষক ও নবজীবন ছাত্র-ছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন।পরে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মাহমুদ হাসান লাকী।নবজীবনের কার্য্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি শামসুল আলম খানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন নবজীবনের নির্বাহী পরিচালক তারেকুজ্জামান খান, নবজীবনের সহ-সভাপতি ও জেলা মহিলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক জ্যোৎ¯œা আরা, নৌবাহিনীর সাবেক অবঃ লে.ও ১০নং সেক্টর কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা রিয়াছাত আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক, সাপ্তাহিক সুর্য্যরে আলোর সম্পাদক আব্দুল ওয়ারেশ খান চৌধুরি,জেলা সৈনিক লীগ সভাপতি মাহমুদ আলী সুমন, ,নবজীবন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ শেখ রফিকুল ইসলাম, হাফিজুল ইসলাম খান চৌধুরি,অহিদুজ্জামান খান প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মাহমুদ হাসান লাকী বলেন একুশে ফেব্রুয়ারী বাঙ্গালী জাতির জীবনে মাতৃভাষার ইতিহাস একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। সালাম, জব্বার, বরকত, রফিক, শফিক সহ নাম অজানা বহু মানুষ ভাষা আন্দোলনে রাজ পথে শহীদ হয়। বিশ্বের ইতিহাসে এটিই ভাষা আন্দোলন নামে পরিচিত। বিশ্বের ইতিহাসে বহু আন্দোলন সংগ্রামের কথা জানা গেলেও মাতৃভাষার জন্য বুকের তাজা রক্ত ঝরানোর নজির নেই। অনেক শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত এই মাতৃভাষা। ভাষা আন্দোলনের পথ ধরে ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে আমরা পেয়েছি একটি স্বাধীন স্বার্বভৌমত্ব রাষ্ট্র, অর্জন করেছি স্বাধীন মত প্রকাশের স্বাধীনতা, বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে দাঁড়ানোর অধিকার।তিনি ভবিষ্যত প্রজ¤œকে একল ঐতিহাসিক জানা এবং জনাননোর জণ্য সকলের প্রতি উদাত্ত আহব্বান জানান এবং নবজীবনের মঙ্গল ও উত্তোরত্তর সমৃদ্ধি কামনা করেন।