নরেন্দ্র মুন্ডা হত্যা মামলার আসামীরা ধরা ছোয়ার বাইরে


178 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
নরেন্দ্র মুন্ডা হত্যা মামলার আসামীরা ধরা ছোয়ার বাইরে
সেপ্টেম্বর ১২, ২০২২ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট ::

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ঈশ্বরীপুর ইউনিয়নের ধুমঘাট অন্তাখালি মু-াপাড়ায় আট বিঘা জমি জবরদখলকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ এবাদুল ও রাশেদুলের নেতৃত্বে তিন নারী জখম ও নরেন্দ্র মু-াকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় পুলিশ শনিবার রাতে ছাকাত গাজী নামের আরো একজনকে গ্রেপ্তার করেছে। রবিবার ছাকাত আলী সাতক্ষীরার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম প্রথম আদালতের বিচারক রাকিবুল ইসলামের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে এসে পুলিশকে ধোকা দিয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত ছাকাত গাজী ঈশ্বরীপুরের মৃত ফয়েজউদ্দিন গাজীর ছেলে। এদিকে নরেন্দ্র মু-া হত্যাকা-ে এজাহার নামীয় ২২জনসহ অজ্ঞাতনামা ১৭০ জনের মধ্যে ২২ দিনে মাত্র ছয়জন গ্রেপ্তার হওয়া ও ঘটনার মূল গডফাদাররা গ্রেপ্তার না হলেও সদর হাসপাতালের মেডিকেল বোর্ড নরেন্দ্র মু-ার পোষ্ট মর্টেম রিপোর্টে হৃদরোগে মৃত্যু বলে উলে¬খ করায় মু-া সম্প্রদায়ের মধ্যে নতুন করে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।

বংশীপুর, শ্রীফলকাটি,পাতড়াখেলা ও ঈশ্বরীপুর এলাকার একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, মুল¬ুকচাদ মু-ার ধুমঘাট মৌজার ৯,১০,১৩ ও ১৪ দাগের ২৭ বিঘা জমির মধ্যে আট বিঘা জমি জালজালিয়াতির মাধ্যমে কাগজপত্র তৈরি করে ২০১৬ সাল পর্যন্ত দখল করে আসছিল রাশেদুল ও এবাদুল। রাশেদুল ও এবাদুল আদালত থেকে কাল্পনিক কাগজপত্র ব্যবহার করে ডিক্রী পাওয়ার পর নরেন্দ্র নাথ মু-া ২০১৭ সালে ডিক্রী রদের মামলা করলে ঘুম হারাম হয়ে যায় রাশেদুল ও এবাদুলের। এ সময় এবাদুলের ভায়রা ভাই ঈশ্বরীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাড. শুকুর আলী ও তার ভাই গোলাম মোস্তফা বাংলা ভাই এর সহযোগিতায় নরেন্দ্রনাথ মু-া ও তার শরীকরা ওই জমি দখলে নেয়। একপর্যায়ে ওই জমি ফিরিয়ে নিতে শুকুর আলীকে গিজ্জা গাইনের চর থেকে রাশেদুল ও এবাদুলের তিন বিঘা জমি দেওয়া হয়। একই সময়ে শুকুর আলী ও বাংলা ভাই বসাবসি করে রাশেদুল ও এবাদুলকে আট বিঘা জমি ফিরিয়ে দিতে তাদের কাছ থেকে আরো দুই বিঘা জমি নেয়। এ নিয়ে মু-া ও এবাদুলদের মধ্যে একবার শুকুর আলী বিচার করেন তো অন্যবার বাংলা ভাই। এ ছাড়া শুকুর আলীর ভাইপো জাহিদ হোসেনও এ নিয়ে শালিস করেছেন। সর্বশেষ এবাদুল ও রাশেদুলের আট বিঘা জমি ফিরিয়ে দিতে শুকুর আলী পেচোর মোড়ের এসবি নবীন সংঘের সভাপতি নুর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মারুফুজ্জামান মিলন ওরফে বাবু, বংশীপুর ব্রাদার্স ক্লাবের সভাপতি জাহিদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রায়হান, বংশীপুর মুনস্টার ক্লাবের সভাপতি ফিরোজ ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলিমের সঙ্গে কয়েক দফায় বৈঠক করেন। শ্যামনগর থানার উপপরিদর্শক তারিকুল ইসলামের কাছ থেকে মু-াদের জমির শালিস করে দেওয়ার দায়িত্ব নিজে নেন শুকুর আলী। একপর্যায়ে ওই তিন ক্লাবের দেড় শতাধিক সদস্যসহ অন্যান্য শতাধিক সন্ত্রাসী নিয়ে পুলিশের সঙ্গে অঘোষিত চুক্তি করে ১৯ আগষ্ট সকালে শুকুর আলী ও বাংলা ভাই এর পরিকল্পনায়, ফিরোজ, জাহিদ, রায়হান, নূর হোসেন, আব্দুল আলীম, এবাদুল ও রাশেদুল পরিকল্পনা মাফিক মুল¬ুকচাদ মু-ার জমি জবরদখলের উদ্দেশ্যে মু-াপাড়ায় সশস্ত্র হামলা চালানো হয়। এ হামলায় যারা অংশ নেয় তাদের মধ্যে শ্রমিক থেকে নেতা পর্যায়ে মাথা পিছু এক হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা পেয়েছেন। তবে বাংলা ভাই একাই পেয়েছেন চার লাখ টাকা। আওয়ামী লীগ নেতা এড: আবু বক্কর ছিদ্দিকের ভাই আব্দুল কাদেরের ছেলে সোয়েবও বড় ভূমিকা রাখে। তবে মু-াপাড়ায় হামলার সঙ্গে জড়িত ও পরিকল্পনাকারিরা আজো বহাল তবিয়তে ঘুরে বেড়ানোয় স্থানীয় মু-াসহ সংখ্যালঘুদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল নরেন্দ্র মু-ার মৃত্যু হার্ট এটাকে হয়েছে বলায় মামলায় গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা দ্রুত জামিনে মুক্তি পাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এলাকায় শুরু হয়েছে নতুন আতঙ্ক।

স্থানীয়রা আরো জানান, গত ৩০ আগস্ট সকাল ১১টার দিকে বংশীপুর থেকে মু-াপাড়ায় হামলাকারি বংশীপুরের মুজিবরের ছেলে শহীদুলকে আটক করে। পরে তাকে শুকুর আলীর তদ্বীরে আথিক সুবিধার বিনিময়ে রাত ১১টার দিকে ছেড়ে দেওয়া হয়। যদিও মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা উপপরিদর্শক রিপন মলি¬ক সাংবাদিকদের জানান যে, শহীদুল ভেটখালিতে সাতক্ষীরা রুটের সময় নিয়ন্ত্রক। রেজিষ্টার খাতা যাচাই বাছাই করে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ তাকে ছেড়ে দেয়। তবে সময় নিয়ন্ত্রকের হাজিরা খাতা যদি একজন ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিল কিনা তা নির্ধারণের মাপকাটি হয় তাহলে মুন্ডাপাড়ায় হামলার সঙ্গে জড়িত অনেকেই রেহাই পেয়ে যাবেন।

স্থানীয়রা আরো জানান, শুকুর আলী, তার ভাই গোলাম মোস্তফা ওরফে বাংলা ভাই এর বিরোধিতা করার সাহস ঈশ্বরীপুরের কারো নেই। বংশীপুরের অজিত ম-লের জমি তার ভাই অধীর ম-লের কাছ থেকে বেআইনিভাবে সাড়ে ১০ বিঘা জমি পাওয়ার নামা করে নেয় শুকুর আলীূর লোকজন। একপর্যায়ে অজিত ম-ল ভারতে চলে যেতে বাধ্য হয়। তার ছেলে খ্যামোদ্যোতি ম-ল এখন দিনমজুর খেটে জীবিকা নির্বাহ করে । গত ৭ জুলাই শুকুর আলীর বাহিনীর সদস্যরা প্রতিপক্ষের কাছ থেকে এক লাখ টাকা নিয়ে ভেটখালি এ করিম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আমির আলী পাড়ের ধুমঘাট ব্রীজের পাশের দোকান ভাঙচুর ও লুটপাট করে। বাধা দেওয়ায় ওই শিক্ষককে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেওয়া হয়। জীবন নিয়ে বেচে থাকার জন্য ওই শিক্ষক থানায় অভিযোগ দিতে পারেনি।

তবে শুকুর আলী ইতিপূর্বে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন যে, মু-াদের কোন কাগজপত্র নেই। তবে হামলার ঘটনার সঙ্গে তার নিজের ও পরিবারের স্বজনদের কোন সম্পৃক্ততা ছিল না। তিনটি ক্লাবের যারা মু-াপাড়ায় হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলো তাদেরকে তিনি সতর্ক করেছেন। তবে একটি মহল এলাকার বিভিন্ন বিষয়কে নিয়ে তাদেরকে জড়িয়ে মিথ্যাচার করছে।

শ্যামনগর থানার উপ-পরিদর্শক রিপন মল্লিক জানান, ১৯ আগষ্ট মু-াপাড়ায় হামলার ঘটনায় শনিবার পর্যন্ত ছয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। সর্বশেষ গ্রেপ্তার হওয়া ছাকাত আলী রবিবার দুপুরে জ্যেষ্ট বিচারিক হাকিম প্রথম আদালতের বিচারক রাকিবুল ইসলামের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে এসে তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তণ করে। যাহা পুলিশকে ধোকা দেওয়ারই নামান্তর।