নলতায় কালভার্ট সংস্কারের অভাবে পানিবন্দি মানুষ !


404 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
নলতায় কালভার্ট সংস্কারের অভাবে পানিবন্দি মানুষ !
জুলাই ১১, ২০১৫ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

সোহরাব হোসেন সবুজ, নলতা:
কালিগঞ্জের নলতায় কালভার্ট সংস্কারের অভাবে প্রবল বর্ষায় বেশ কিছু অঞ্চল প্লাবিত হয়ে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে বহু মানুষ। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে অনেক গরীব পরিবার। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোর অভিযোগ, এ ব্যাপারে ইতিপূর্বে বহু বার মেম্বর চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করলেও তারা নষ্ট হওয়া কালভার্টগুলো সংস্কার করার কোন উদ্যোগ নেননি। এখন বর্ষার মৌসুমে প্রবল বর্ষা দেখা দিলেই তলিয়ে যায় নিচু এলাকার বাড়ীঘরগুলো।
সরেজমিনে দেখা যায়, গত ২/১ দিনের প্রবল বর্ষায় নলতা হাটখোলার উত্তর পাশে প্রধান সড়কে মিলের সামনে অবস্থিত কালভার্টটি প্রায় ৩-৪ বছর যাবৎ নষ্ট হয়ে আছে। অকার্যকর এ কালভার্টটির জন্য সড়কের পশ্চিম পাশে বসবাসরত পরিবারগুলো বৃষ্টি হলেই পানিবন্দি হয়ে পড়ে। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মধ্যে, জাহাঙ্গীর হোসেন, দিন আলী, শরিফুল, গিয়াসউদ্দীন, অসীমসহ কুমোর পাড়ার স্থানীয়রা বলেন, ওই কালভার্টটির সংস্কারের অভাবে যেনতেন বৃষ্টি হলেও উঠানে ঘরে পানি উঠে একাকার হয়ে যায়। সেসময় ঘরে বসবাস করা একেবারে অনুপযোগি হয়ে পড়ে। ঘর ডোবা পানিগুলো ময়লা আবর্জনায় ভরা এবং বিষক্ত বলে এসব মানুষগুলোকে বিভিন্ন রোগেও আক্রান্ত হতে হয়।
এদিকে নলতা কলেজের সামনে গুরুত্বপূর্ণ কালভার্টটি দিয়ে পাক রওজা শরীফের আশে পাশের সকল এলাকার পানি নিষ্কাশন হওয়ার কথা। কিন্তু কলেজের পাশের ক্যানেলটি ঠিকমত সংস্কার বা খনন না করায় বৃষ্টি হলেই দুর্ভোগ পেহাতে হয় এ অঞ্চলের মানুষের। ক্যানেলটি দিয়ে ঠিকমত পানি না সরার কারনে দুগন্ধে রোগাক্রান্ত হতে হয় সড়কের পাশের দোকানদার, পথচারিসহ কলেজের শিক্ষক-ছাত্রদেরও। পাক রওজা শরীফের আশে পাশের এলাকাগুলোতে রুচিশীল ও সচেতন মানুষের বসবাস। এখানকার স্থানীয় অনেকে জানান, কলেজের সামনের ক্যানেলটি যদি ঠিকমত সংস্কার বা খনন করা হত, তাহলে আবাসিক এলাকার ড্রেনগুলোতে পানি জমে থাকত না। এবং দুর্গন্ধ ছড়াত না। ফলে এলাকা স্বাস্থ্য সম্মত থাকত। তাছাড়া বৃষ্টি হলেই নলতার অন্যতম বিদ্যাপিঠ আহছানিয়া মিশন কলেজটি পানিবন্দির করুন দশায় পরিনত হয়। বাধাগ্রস্থ হয় শিক্ষাদান কার্যক্রম। তাই গুরুত্বপূর্ণ কলেজটি এ করুন দশা থেকে মুক্তি পেতে এবং পানিবন্দি হয়ে ক্ষতিগ্রস্থের হাত রেহাই পেতে নষ্ট হওয়া কালভার্টগুলো দ্রুত সংস্কার করার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ উর্দ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছে ক্ষতিগ্রস্থরা।