নলতা হাইস্কুলে শিক্ষকসহ ৫ সদস্যের পদত্যাগ


456 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
নলতা হাইস্কুলে শিক্ষকসহ ৫ সদস্যের পদত্যাগ
এপ্রিল ২৭, ২০১৬ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

নলতা প্রতিনিধি :
দেশের দক্ষিণ বঙ্গের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কালিগঞ্জের নলতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়। পীরকেবলা হযরত খানবাহাদুর আহছানউল্লা (রহঃ) এর আদর্শ এবং তদানিন্তত সময়ের শিক্ষক দরবেশ আলীর দেশব্যাপি শিক্ষার আলো ছডানো এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিসে ঢুকে শিক্ষকদের লাঞ্চিত করায় ও হুমকি দেওয়ায় ফুঁসে উঠেছে শিক্ষকমহল সহ এলাকাবাসী। কিন্তু রহস্যজনকভাবে বহিরাগতদের এমন নেককারজনক কর্মকান্ডের প্রতিবাদ না করায় স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষকসহ পাঁচ সদস্য পদত্যাগ করেছে।
স্কুল সূত্রে জানা যায়, স্কুলের ৮ম শ্রেণির ছাত্র আশিকুর রহমানকে চিঠি দেয় একই ক্লাসের এক ছাত্রী। আশিকুর চিঠিটি সহকারি প্রধান শিক্ষককের নিকট দেয় এবং তাঁকে বিরক্ত না করতে অনুরোধ করে। সহকারি প্রধান শিক্ষক ঐ ছাত্রীকে বকা দিয়ে ভালভাবে চলতে বলেন। কিন্তু ছাত্রী বিষয়টি আবার তাঁর মামাদের জানায়। মামা উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম। ভাগ্নীর কথা শুনে ছোট মামা আলিমুল (২৪) ও সারোয়ার (২২) নামের ২জন স্কুলে এসে শিক্ষকদের ডাকে। তাঁরা অফিসে ঢুকে সহকারি প্রধান শিক্ষক মহিদুল হক ও সহকারি শিক্ষক সাঈদকে বিভিন্ন ভাষায় অপমানিত করে। ভাগ্নীর নামে কোন কথা তারা বরদাস্ত করে না। যে কোন মূহুর্তে শিক্ষককে তারা স্কুল থেকে বিতাডিত করার ক্ষমতা রাখে বলে জানায়। শিক্ষকরা তাদের কথায় বাধা দিতে গেলে তারা উল্টো শিক্ষকদের নামে মামলা দেওয়ার হুমকি দেয়। বলে কলেজের অধ্যক্ষ মুসাকে চাকরি থেকে আমরা বিতাডিত করেছি। শিক্ষক সাঈদকে বলে তুই স্কুল থেকে এখন বেরিয়ে যা। না হলে তোর ব্যবস্থা করব। আমাদের ক্ষমতা সম্পর্কে জানা আছে তোর? এদিকে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ফিরে আসলে ঐ শিক্ষকরা প্রধান শিক্ষককে বিষয়টি জানায়। প্রধান শিক্ষক আব্দুল মোনায়েম যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলামকে ফোনে তাাঁর ছোট ভাইয়ের এসব নেককারজনক বিষয়টি জানান। কিন্তু যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম উল্টো প্রধান শিক্ষককেও ফোনে অপমানিত করে ও হুমকি দেয়। এতে করে ক্ষোভে ফেটে পডে শিক্ষকরা। বিষয়টি নিয়ে সভাপতির অনুমতিক্রমে পরদিন ২৫ এপ্রিল স্কুলের শিক্ষকসহ ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও কয়েকজন আ.লীগ নেতাদের উপস্থিতিতে জরুরী মিটিং হয়। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয় যুবলীগ নেতা সাইফুলসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় জিডি করা, অভিযুক্ত ছাত্রীকে স্কুল থেকে বহিষ্কার করা ও ছাত্রছাত্রী-শিক্ষকসহ সকলের অংশগ্রহনে তাদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করা হবে। যাতে করে পরবর্তিতেও আর এমন ঘটনার উৎপত্তি না হয়। এবং কেউ শিক্ষকদেরকে যাতে এমনভাবে লাঞ্চিত করতে না পারে। কিন্তু সে গুডে বালি। স্কুলের শিক্ষকরা জানান, সভাপতি মহোদয়ের নিষেধে আর অজানা কিছু কারণে পন্ডু হয়ে গেল সব সিন্ধান্ত। এতে করে শিক্ষকসহ ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের মধ্যে ব্যাপকভাবে অসন্তোষ দেখা দেয়। এবং শেষ পর্যন্ত ক্ষুব্ধ হয়ে ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষক প্রতিনিধি ৩জনসহ কমিটির ৫সদস্য গতকাল পদত্যাগ করেছে এবং যেটির কপি সভাপতি বরাবর পাঠানো হয়েছে বলে স্কুল সূত্র জানায়। পদত্যাগকারী সদস্যরা হলেন প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক মো. ইউনুস, আরশাদ আলী, শিক্ষক আহছান কবির টুটুল, মো. হাবিবুল্লাহ ও রেনুকা বিশ্বাস। এদিকে তুচ্ছ ঘটনায় শিক্ষকদের লাঞ্চিত ও হুমকির বিষয়টি নিয়ে এলাকায় সর্বধারণের মধ্যে বেশ ক্ষোভ ও গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা যায়।