নারী পাচার চক্রের কবল থেকে শিশু পুত্রসহ স্ত্রীকে ফিরে পেতে সংবাদ সম্মেলন


343 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
নারী পাচার চক্রের কবল থেকে শিশু পুত্রসহ স্ত্রীকে ফিরে পেতে সংবাদ সম্মেলন
সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

॥ সামিউল মনির ॥

মাত্র তিন বছর বয়সী একমাত্র শিশু পুত্রসহ নিজ স্ত্রী’র সন্ধান লাভের আবেদন জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে নন্দন কুমার কুন্ডু নামের এক যুবক। শনিবার দুপুরে শ্যামনগর উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে নারী পাচার চক্রের কবল থেকে স্ত্রী সুস্মিতা রানী রাতুু ও পুত্র অক্ষয় কুমার কুন্ডুকে উদ্ধারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ প্রার্থনা করেন।
নন্দন কুমার কুন্ডু মাদারীপুর জেলার শিবচর থানার পাচ্চর গ্রামের মৃত সন্তোষ কুন্ডুর ছেলে। চার বছর পুর্বে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার মানিকখালী গ্রামের রনজিৎ মন্ডলের মেয়েকে বিয়ের পর থেকে সেখানে বসবাস করে আসছেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে নন্দন জানান ব্যবসায়িক কাজে গ্রামের বাড়ি পাচ্চরে থাকার সুযোগে গত ১৭ আগষ্ট প্রতিবেশী মুনসুর আলীর ছেলে আব্দুল আলিম তার স্ত্রীকে ফুসলিয়ে বাড়ি থেকে নিয়ে যায়। গভীর রাতে পরিবারের অপরাপর সদস্যদের ঘুমের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে স্ত্রীকে নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি তার তিন বছরের শিশু পুত্র অক্ষয়কে সাথে নিয়ে যায় আব্দুল আলিম।
লিখিত বক্তব্যে নন্দন আরও জানান শ্বাশুড়ীর মৃত্যুর পর তার স্ত্রী মানসিকভাবে কিছুটা ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে। এদিকে ব্যবসায়িক কাজে প্রায়ই সময় বাইরে বাইরে থাকার সুযোগে প্রতিবেশী আব্দুল আলিম তার স্ত্রীর উপর কুনজর দিতে শুরু করে। এক পর্যায়ে গত ১৭ আগষ্ট রাতে সন্তানসহ স্ত্রীকে নিয়ে এলাকা ছেড়ে গেছে।
নন্দনের অভিযোগ আব্দুল আলিম ইতিপুর্বে যশোরসহ বিভিন্ন এলাকার একাধিক নারীকে ভাল চাকুরীসহ নানান প্রলোভনে ভারতে পাচার করে। এসব ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় দীর্ঘদিন কারাবরন শেষে সম্প্রতি জেল থেকে জামিনে বের হয়ে এসেই তার স্ত্রীকে ফাঁদে ফেলেছে। স্ত্রীর পাশাপাশি তার শিশু পুত্রের জীবন নিয়ে তিনি মারাত্বক শংকার মধ্যে রয়েছেন বলেও তিনি দাবি করেন।
লিখিত বক্তব্যে নন্দন জানান নারী পাচার চক্রের সদস্য আব্দুল আলিম সন্তানসহ তার স্ত্রীকে ফুসলিয়ে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় গত ২০ আগষ্ট শ্যামনগর থানায় তিনি মামলা করেছেন। তবে অপরাধীসহ ভিকটিমদ্বয়কে অদ্যাবধি উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। শিশু পুত্রসহ স্ত্রীর জীবন নিয়ে পরিবারের সকলে মারাত্বক শংকার মধ্যে রয়েছেন- দাবি করে নন্দন অভিযোগ করেন স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার পর থেকে আব্দুল আলিমের দুই ভাই ফজলু গাজী ও বাক্কার গাজী প্রতিনিয়ত হুমকি ধমকী দিয়ে যাচ্ছেন। এমনকি তার স্ত্রীকে বিয়ে করে ঘর সংসার করতে বাধ্য করার পাশাপাশি তার শিশু পুত্রকে পর্যন্ত ধর্মান্তরিত করার হুমকি দিচ্ছেন।
স্থানীয়রা জানিয়েছে আব্দুল আলিম এলাকায় বেপরোয়া হিসেবে চিহ্নিত। ইতিপুর্বে অন্তত তিনটি বিয়ে করলেও তার স্ত্রীদের সাম্প্রতিক সময়ের অবস্তান সম্পর্কে কেউ অবগত না। তবে দ্বিতীয় স্ত্রীর সংসারের একটি পুত্র সন্তান আব্দুল আলিমের বাড়িতে থাকলেও দীর্ঘদিন যাবত তারও কোন দেখা মেলেনি।
এদিকে ঘটনার নায়ক নারী পাচার ঘটনায় জেল থেকে জামিনে থাকা আব্দুল আলিমের ব্যবহৃত ০১৭৬১৯৬৪৭২০ নম্বরের মুটোফোনে যোগাযোগ করা হলে দীর্ঘক্ষিন ‘অপেক্ষমান’ থাকার পর থেকে তা বন্ধ পাওয়া যায়। পরবর্তিতে আরও একবার চেষ্টা করে তাকে অপেক্ষমান দেখা গেলেও কথা শেস হতেই দ্বিতীয় বারের মত মুটোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত নন্দনের শ^শুর রনজিৎ মন্ডল বলেন কোন পুত্র সন্তান না থাকায় দুই মেয়ে আর নাতীদের নিয়ে দিনগুলি কেটে যাচ্ছিল। তিন বিঘার মত যে জায়গা জমি রয়েছে তা হাতিয়ে নেয়ার পাশাপাশি খারাপ উদ্দেশ্যে ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে কৌশল তার মেয়েকে আব্দুল আলিম ফুসলিয়ে নিয়ে গেছে। তিনি নাতী ও মেয়ের জীবন রক্ষাসহ দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদের উদ্ধারে প্রশাসনের আন্তরিক হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

#