পঞ্চম দিনে অচল সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ : আসছে নতুন আন্দোলন কর্মসূচি


447 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পঞ্চম দিনে অচল সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ : আসছে নতুন আন্দোলন কর্মসূচি
নভেম্বর ৪, ২০১৫ ফটো গ্যালারি শিক্ষা
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :

শিক্ষার্থীদের দাবী পঞ্চম দিনেও পূরণ না হওয়ায় সাতক্ষীরা মেডিকেলে শিক্ষা কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পড়েছে। পূর্ণাঙ্গ হাসপাতাল চালুসহ তিন দফা দাবীতে লাগাতাড় ধর্মঘটে বন্ধ রয়েছে সকল বর্ষের শিক্ষা কার্যক্রম। উদ্ভুদ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে শিক্ষার্থীদের সাথে বৃহস্পতিবার প্রশাসনের সভা আহবান করা হয়েছে। সভায় প্রাক্তন স্বাস্থ্য মন্ত্রী, স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা উপস্থিত থাকবেন বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে। তবে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানায়, দাবী পূরণ না হলে আরো বড় ধরণের কর্মসূচি প্রদান করা হবে।
সূত্র জানায়, বুধবার পঞ্চম দিনের মতো সকাল থেকেই মিছিল-স্লোাগানে মুখরিত হয়ে ওঠে কলেজ ক্যাম্পাস। শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে চলে এসে অবস্থান গ্রহণ করে। শিক্ষার্থীরা সকাল সাড়ে ৮টায় ক্যাম্পাস বন্ধ করে দেয়। টানা রৌদ্রে শিক্ষার্থীরা মুহুমুহু স্লোগান দিতে থাকে। তীব্র রৌদ্র উপেক্ষা করে শিক্ষার্থীরা কলেজ প্রশাসনিক ভবন বন্ধ দেয়। সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে বেলা ১২টা পর্যন্ত। অনুষ্ঠিত সমাবেশে রাখেন আন্দোলনের সমন্বায়ক কলেজের ৫ম বর্ষের শিক্ষার্থী আলমগীর হোসেন, মিনাক কুমার বিশ্বাস, শরিফ আহমেদ, ৪র্থ বর্ষের নাফিসা ইতিশ, ৩য় বর্ষের মাজহার আকন্দ, ২য় বর্ষের মংসিং মারমা প্রমূখ।
সমাবেশে শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ প্রতীক্ষার পরেও সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পূর্ণাঙ্গ রূপে চালু হয়নি। ৩০ শয্যা নিয়ে শুধুমাত্র মেডিসিন ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে। যা শিক্ষার্থীদের ক্লিনিক্যাল কার্যক্রমের জন্য যথেষ্ট নয়। কিন্তু চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষার জন্য ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল চালু হওয়া বাধ্যতামূলক। ক্লিনিক্যাল কার্যক্রমে এক্সপার্ট না হলে মানুুষকে সেবা দেওয়া সম্ভব নয়। তারা আরো বলেন, প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী নিজস্ব ক্ষমতাবলে ৫০০ শয্যার হাসপাতালের অবকাঠামো ও জনবল চুড়ান্ত করে। কিন্তু বর্তমান কলেজ প্রশাসন এখনও জনবলের বিষয়ে কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। তারা আরো বলেন, আমরা ভালো ডাক্তার হওয়ার জন্য এখানে ভর্তি হয়েছি। আন্দোলন করার জন্য নয়। টানা রৌদ্রে মাটিতে বসার জন্য আমাদের পরিবার অর্থ খরচ করে পাঠায় নি। তারা আরো বলেন, আমরা মেধার পরিচয় দিয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েছি। রাস্ট্রের দায়িত্ব সঠিক শিক্ষার ব্যবস্থা করা। কিন্তু রাষ্ট্র সঠিক শিক্ষার ব্যবস্থা করতে না পারলে আমরা শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবো না। তখন রাষ্ট্র ও রাষ্ট্রের মানুষই আমাদের হাতুড়ি ডাক্তার বলবে। তারা এর থেকে দ্রুত সমাধান দাবী করেন।
সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ সূত্র জানায়, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে আজ প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী আ. ফ ম রুহুল হকের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল শিক্ষার্থীদের সাথে বৃহস্পতিবার সকালে বৈঠক করবেন। বৈঠকে সদর আসনের সংসদ সদস্য, মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিসহ স্থানীয় প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ উপস্থিত থাকবে। সেখানে শিক্ষার্থীদের কর্মসূচি প্রত্যাহার করার আহবান জানানো হবে। তবে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ক আলমগীর হোসেন জানান, দাবী পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেও আমাদের নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করা হবে। তিনি বলেন, আন্দোলনের পূর্বে ৬ মাসেও কাজ হয়নি। কিন্তু ৬ মাসের কাজ আন্দোলনে এক দিনে হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, বিগত দিনে আমাদের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কোন দাবী পূরণ করা হয়নি। আমরা আশ্বাসে নয়, কাজে বিশ্বাসী। সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. কাজী হাবিবুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করা হবে। সেখানে বিস্তারিত আলোচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।