পদ্মপুকুরে কোয়ারেন্টাইন নির্দেশনা উপক্ষো করে বাড়িতে চলে যাচ্ছে বহিরাগত শ্রমিকরা !


316 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পদ্মপুকুরে কোয়ারেন্টাইন নির্দেশনা উপক্ষো করে বাড়িতে চলে যাচ্ছে বহিরাগত শ্রমিকরা !
এপ্রিল ১৩, ২০২০ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা ॥
সদ্য লোকালয়ে ফিরে আসা পদ্মপুকুরের ২৪ ইট ভাটা শ্রমিক মাত্র এক দিনের মাথায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন ছেড়ে নিজ নিজ বাড়িতে চলে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সরকার দলীয় অঙ্গ সংগঠনের স্থানীয় এক নেতার পরামর্শে তারা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন ছেড়ে বাড়িতে যায় বলে অভিযোগ।

এদিকে নুতনভাবে এলাকায় ফিরে আসা শ্রমিকরাও পুর্বসুরীদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন নির্দেশনা না মেনে সরাসরি বাড়িতে চলে যাচ্ছে। ফলে দেশের বিভিন্ন জেলায় কর্মরত ইট ভাটা শ্রমিকদের দলে দলে এলাকায় ফিরে আসার ঘটনায় পদ্মপুকুরসহ আশপাশের জনগনের মধ্যে আতংক ভর করছে।

জানা গেছে গত শনিবার ঢাকা জেলা থেকে প্রায় ৩০ জন ইট ভাটা শ্রমিক লুকিয়ে পণ্যবাহী ট্রাকযোগে এলাকায় ফেরে। বাইরে থেকে আসা এসব শ্রমিকদের এখনই পরিবারের সাথে না মিশে নিজ নিজ এলাকায় জনপ্রতিনিধিদের তত্ত্বাবধানে অস্তায়ীভাবে গড়ে তোলা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়। শনিবার ফিরে আসা শ্রমিকদের মধ্যে ছয় জনকে পদ্মপুকুরের পশ্চিম পাতাখালী এবতেদায়ী মাদ্রাসা কোয়ারেন্টিন সেন্টারে গ্রাম পুলিশের তত্ত্বাবধানে রাখা হয়।

অভিযোগ উঠেছে শনিবার বেলা পাঁচটার দিকে বাইরে থেকে আসা ছয় শ্রমিককে রেখে আসা কেন্দ্রে যায় স্থানীয় যুবলীগ নেতা রাসেল হোসেন ও তার সহযোগী মাহমুদুল হাসান। এসময় তারা সেখানে অবস্থানরত ছয়জনকে নিজ নিজ বাড়িতে যেয়ে সতর্কভাবে থাকার পরামর্শ দিয়ে কোয়ারেন্টিন সেন্টার থেকে বের করে দিয়ে মাদ্রাসায় তালা লাগিয়ে দেয়। পরবর্তীতে রোববার দেশের পাঁচ জেলা থেকে ফিরে আসা আরও আঠার শ্রমিক কোয়ারেন্টিন সেন্টার বন্ধ পেয়ে নিজ নিজ বাড়িতে চলে যায়। এর আগের রাতে লোকালয়ে ফিরে আরও বেশ কয়েক শ্রমিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে অস্বীকৃতি জানিয়ে শনিবার বাড়িতে চলে যাওয়া শ্রমিকদের আগে কোয়ারেন্টিন সেন্টারে ফিরিয়ে আনার শর্ত রাখে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য (৯ নং ওয়ার্ড) আমান উল্লাহ বলেন পুর্বোক্তরা রাসেলের প্রতিবেশী হওয়ায় এক দিনের মাথায় তার ইন্ধনে কোয়ারেন্টিনে থাকা শ্রমিকরা বাড়িতে চলে যায়। তাদের দেখাদেখি পরের দুই দিনে দেশের বিভন্ন স্থান থেকে এলাকায় ফেরা শ্রমিকরা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন নির্দেশনা উপেক্ষা করে বাড়িতে চলে যাচ্ছে।

তিনি জানান বহিরাগতদের বাড়িতে যেয়ে অবাধে চলাচলের কারনে স্থানীয়দের মধ্যে আতংক বেড়ে যাচ্ছে।

এবিষয়ে রাসেল হোসেন জানায় মাদ্রাসাকে ঘিরে গড়ে তোলা কোয়ারেন্টিন সেন্টারে ১৫ জনের মত পল্লী বিদ্যুৎ এর শ্রমিক অবস্থান করছে। সেখানে স্থানীয়রা নামায আদায় করে। একটি মাত্র পুকুর। তাতে ঝুঁিক থাকার কারনে চেয়ারম্যানের সাথে পরামর্শ করে সবাইকে নিজ নিজ বাড়িতে কোয়ারেন্টিন করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, পরবর্তী যে বিশ জনের মত শ্রমিক এসেছে তাদেরকেও হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে পরার্মশ দেয়া হয়েছে। #