পাইকগাছার গড়ইখালী আবাসন ও আশ্রয়ন কেন্দ্রের দেড়শ পরিবার জোয়ারের পানিতে দুর্বিসহ জীবন


135 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছার গড়ইখালী আবাসন ও আশ্রয়ন কেন্দ্রের দেড়শ পরিবার জোয়ারের পানিতে দুর্বিসহ জীবন
আগস্ট ২২, ২০২০ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

জোয়ার হলে বেড়ি বাঁধে এবং ভাটায় ঘরে অবস্থান করে মানুষ

এস,এম, আলাউদ্দিন সোহাগ ::

পাইকগাছায় শিবসা নদীর তীরে গড়ইখালী বাজার ও আবাসন কেন্দ্রের অসমাপ্ত নতুন বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে আবাসন ও আশ্রয়ন কেন্দ্রের দেড়শ পরিবার মানবেতর জীবন-যাপন করছে। জোয়ার হলে বেড়ি বাঁধে এবং ভাটায় ঘরে অবস্থান করে মানুষ। এমনিভাবে চলছে তাদের জীবন। ছোট ছেলে-মেয়েদের নিয়ে আতংকে বসবাস করছে তারা।
সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার গড়ইখালী বাজারের শিবসা নদীর তীরে আবাসন ও আশ্রয়ন কেন্দ্র গড়ে উঠে। যেখানে দেড়শ পরিবারের ৭শতাধিক লোক ২০০২ সাল থেকে বসবাস করে আসছে। গড়ইখালী বাজার ও আবাসন রক্ষার জন্য শিবসা নদীর ধার দিয়ে বিকল্প রাস্তা তৈরী করা হয়। সম্প্রতি ঐ রাস্তা কেটে উঁচু জায়গা দিয়ে প্রায় ১ কিলোমিটার নতুন রাস্তা নির্মাণ করায় বেশ কিছু বাথরুম ও ঘের ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। রাস্তাটি সম্পন্ন না হওয়ায় জোয়ারের পানি ভিতরে ঢুকে আবাসন, আশ্রয়ন কেন্দ্র ও বাজার প্লাবিত হচ্ছে। আশ্রয়ন কেন্দ্রের সভাপতি মহিদুল মোড়ল বলেন, নতুন আশ্রয়ন কেন্দ্র রক্ষা বাঁধ স্থানীয় ইউপি সদস্য শেষ না করার কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। ২নং প্লটের ৮নং ঘরের বসবাসরত রাশিদা বেগম জানান, স্থানীয় ইউপি সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম কেরু পরিকল্পিতভাবে পানি নামার পথটি বন্ধ করে দিয়েছে। এ ব্যাপারে প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম কেরু বলেন, এমপি মহোদয়ের নির্দেশে আমি বাঁধটি নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করেছি। আমি কোন ঘর বা বাথরুম ভেঙ্গে বাঁধ দেয়নি এবং স্থানীয় জনৈক বাবু গাইন ড্রেনের পাইপটি বন্ধ করায় তার লোক দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে। স্থানীয় আওয়ামীলীগনেতা গাজী মিজানুর রহমান জানান, বাজার ও আবাসন ও আশ্রয়ন কেন্দ্রের পাশের রাস্তা পূর্ব থেকে সংকীর্ণভাবে তৈরী করায় ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে এবং বিশেষ বরাদ্দে কাজ সম্পন্ন না করার কারণে পানি ঢুকে প্লাবিত হচ্ছে। ইউপি চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বিশ্বাস বলেন, পুরাতন রাস্তা কেটে নতুন রাস্তা যেনতেনভাবে করায় জোয়ারের পানি আবাসন ও আশ্রয়ন কেন্দ্রে ঢুকে প্লাবিত হচ্ছে।

#