পাইকগাছার সোলাদানা ইউপি চেয়ারম্যানে বিরুদ্ধে চাঁদাবাজী মামলা


402 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছার সোলাদানা ইউপি চেয়ারম্যানে বিরুদ্ধে চাঁদাবাজী মামলা
মে ২৭, ২০১৬ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পাইকগাছা প্রতিনিধি :
পাইকগাছায় সোলাদানা ইউপি চেয়ারম্যান এসএম এনামুল হকের বিরুদ্ধে আবারো থানায় চাঁদাবাজী মামলা করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার ইউনিয়নের পারবয়ার ঝাপা গ্রামের জালাল উদ্দীনের ছেলে হাফিজুর রহমান বাদী হয়ে মারপিট ও চাঁদাবাজীর অভিযোগ এনে চেয়ারম্যান এনামুল সহ ৩১ জনকে আসামী করে থানায় মামলা করেন। যার নং- ১৭। এদিকে নির্বাচন পরবর্তী চেয়ারম্যান এনামুল সহ সংখ্যালঘুদের আসামী করে একাধিক মামলা হওয়ায় ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী।

গত ২২ মার্চ সদ্য সমাপ্ত ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যান এনামুল ও তার কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত কমপক্ষে ৮টি মামলা হয়েছে। যার মধ্যে কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে নির্বাচনের আগে ২টি ও পরে ৩টি এবং নির্বাচন পরবর্তী এ পর্যন্ত চেয়ারম্যান এনামুলের বিরুদ্ধে ৩টি মামলা করা হয়েছে। সকল মামলায় অধিকাংশ আসামী করা হয়েছে হিন্দু সমর্থীত কর্মী ও সমর্থকদেরকে। এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, গত মঙ্গলবার সোলাদানা বাজারে বাজার করাকে কেন্দ্র করে পারবয়ার ঝাপা ও উত্তর কাইনমুখী গ্রামের দু’জনের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। বিরোধের এক পর্যায়ে উভয়ের মধ্যে কমবেশি মারপিটের ঘটনা ঘটে। যদিও মামলায় মাঝেরাবাদ শিশুতলার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় হাফিজুর রহমান বাদী হয়ে চেয়ারম্যান এনামুল সহ ৩১ জনকে আসামী করে থানায় মারপিট ও এক লাখ টাকার চাঁদাবাজী মামলা করে। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান এসএম এনামুল হক জানান, গত মঙ্গলবার যে ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমাকে জড়িয়ে মামলা করা হয়েছে এ ঘটনার সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে আমার কোন স¤পৃক্ততা নেই। কারণ ঐ দিন আমি মামলার সাক্ষী দিতে খুলনার আদালতে ছিলাম। পরবর্তীতে এলাকায় আসার পরে জানতে পারি সোলাদানা বাজারে বাজার করাকে কেন্দ্র করে পারবয়ার ঝাপা ও উত্তর কাইনমুখি গ্রামের ৩/৪ জনের মধ্যে বিরোধ বাধে এবং বিরোধকে কেন্দ্র করে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি হয়। পরবর্তীতে তুচ্ছ এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আমাকে অহেতুক আসামী করা হয়েছে। নির্বাচনে পরাজিত প্রতিপক্ষরা নির্বাচন পরবর্তী আমার বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ৩টি অহেতুক মিথ্যা ও হয়রানী মূলক মামলা করেছে। এদিকে চেয়ারম্যান এনামুল ও হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের বিরুদ্ধে নির্বাচন পরবর্তী একের পর এক মামলা হওয়ায় ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করে তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।##