পাইকগাছায় কপোতাক্ষ নদের তীরে সামাজিক বনায়নে বাঁধা : বিপাকে উপকারভোগীরা


141 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছায় কপোতাক্ষ নদের তীরে সামাজিক বনায়নে বাঁধা : বিপাকে উপকারভোগীরা
আগস্ট ১১, ২০২০ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে

এস,এম, আলাউদ্দিন সোহাগ ::

পাইকগাছায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে প্রতিপক্ষরা হুমকি-ধামকি ও গাছ পরিচর্যার বাঁধা প্রদান করায় উপকারভোগীরা পড়েছে বিপাকে। ঘটনাটি উপজেলার পাইকগাছায় কপোতাক্ষ নদের তীরে সামাজিক বনায়নে।
প্রকাশ, উপজেলার রাড়–লীস্থ কাটিপাড়ার মৌজার কপোতাক্ষ নদের তীরে ওয়াপদার রাস্তায় ২০১৫ সালে বন বিভাগের অনুক্রমে নিম, বাবলা সহ বিভিন্ন প্রজাতির বনজ বৃক্ষ রোপন করা হয়। উক্ত জায়গাটি নদী খননের পূর্বে ভূমিহীনদের মাঝে বন্দোবস্ত দেয়া হয়। ২০১৪ সালে নদী খননের ফলে নদীর পাশ দিয়ে খননকৃত মাটি ফেলায় ওয়াপদার রাস্তা গড়ে ওঠে। যেখানে উপজেলা বন বিভাগের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক রেজুলেশনের মাধ্যমে সামাজিক বনায়ন করার জন্য ৪৫জন উপকারভোগীর মাঝে অনুমোদন দেয়া হয়। যার সভাপতি এম.এম. হাসানুজ্জামান। গাছ বড় হওয়ায় ২০১৯ সালে প্রতিপক্ষ তালা উপজেলার হরিহরনগর মীর সুন্দর আলীরা উক্ত গাছ কেটে ক্ষতিসাধন করলে থানায় সুন্দর আলীসহ ৪জনের নামে মামলা হলে তারা জেলহাজত খাটে। এ ঘটনার পর থেকে তারা উক্ত জায়গা জবর-দখল ও গাছপালা কাটার পায়তারা করলে হাসানুজ্জামান উপজেলা নির্বাহী আদালতে এম.আর ২৩৮/১৯ নং মামলা করলে বিজ্ঞ আদালত দ্বিতীয়পক্ষের বিরুদ্ধে অন্তর্বর্র্তীকালীন অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারী করেন। এরপরও উপকারভোগীদের বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষ সুন্দর আলীরা বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ ও নতুনভাবে বনায়ন ও পরিচর্যার কাজে বাঁধাগ্রস্ত করছে। যা চরম বিপাকে পড়েছে উপকারভোগীরা। এব্যাপারে সুন্দর আলী বলেন, তাদের বন্দোবস্তকৃত জমিতে বনায়ন করা হয়েছে। যা অবৈধ। এব্যাপারে বন কর্মকর্তা প্রেমানন্দ রায় জানান, বন বিভাগের বীজ ও চারা নিয়ে উপকারভোগীরা আমাদের অনুমতি নিয়ে ওয়াপদার পাশে লাগিয়েছে।

#