পাইকগাছায় নার্সারী ব্যবসায় আক্তারুলের সাফল্য


1506 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছায় নার্সারী ব্যবসায় আক্তারুলের সাফল্য
আগস্ট ২৪, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এসএমআলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা :
পাইকগাছায় নার্সারী ব্যবসায় সফলতা পেয়েছেন গদাইপুর গ্রামের আক্তারুল ইসলাম। গত ৮ বছর ব্যবসা করে পূর্বের দারিদ্র অবস্থান থেকে ঘুরে দাড়িয়েছেন শিল্পী নার্সারীর মালিক আক্তারুল। বর্তমানে তার নার্সারীতে ২৫ লাখ টাকা মূল্যের ফলজ বৃক্ষের চারা মজুদ রয়েছে। আক্তারুল উপজেলার গদাইপুর গ্রামের ছুরমান আলী গাজীর ছেলে। একসময় চরম দারিদ্রতার কারনে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করতে হতো তার। এক পর্যায়ে ২০০৬ সালে ১০ কাটা জমি নিয়ে ফলজ বৃক্ষের নার্সারীর ব্যবসা শুরু করেন তিনি। ধীরে ধীরে দেশের বিভিন্নস্থানে পরিচিত হয়ে উঠে আক্তারুল। বর্তমানে তার গদাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সামনেসহ বিভিন্নস্থানে ৪/৫ বিঘার নার্সারী বাগান রয়েছে। গত বছর তিনি ৬ লাখ টাকার চারা বিক্রি করেছেন, যেখানে নীট লাভ হয় আড়াইলাখ টাকা।

এভাবেই তিনি গত ৮ বছর নার্সারী ব্যবসা করে দারিদ্র অবস্থান থেকে ঘুরে দাড়িয়ে স্বাবলম্বী হয়েছেন। বর্তমানে তার নার্সারীতে মালাটা, খাসিয়ান, নাগপুরি কমলা, কামরাঙ্গা, বেদানা, অটোমেটিক আম, অটোমেটিক আমড়া, থাই ছবেদা, উন্নতজাতের আপেলসহ ৩০ প্রজাতির প্রায় ২৫ লাখ টাকা মূল্যের গাছের চারা রয়েছে। উৎপাদিত চারা তিনি চট্টগ্রাম, সিলেট, বান্দরবন, ফেনি, বরিশাল, নোয়াখালীসহ দেশের বিভিন্নস্থানে সরবরাহ করে থাকেন। চলতি বছর ভারী বর্ষনের কারনে ইতোপূর্বে বিক্রয় কম হলেও বর্তমানে চাহিদা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে বলে তিনি জানান। বর্তমানে তিনি পিতা, মাতা, স্ত্রী ও ৩ কন্যা সন্তান নিয়ে সুখী জীবন যাপন করছেন। তার নার্সারী অনুসরন করে এলাকায় অনেকেই নার্সারী ব্যবসায় এগিয়ে আসছে বলে উপজেলা কৃষি অফিসার এএইচএম জাহাঙ্গীর আলম জানান।
##

পাইকগাছায় অপহৃত স্কুল ছাত্রী উদ্ধার। আটক ১
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি॥
পাইকগাছায় অপহরনের দু’সপ্তাহ পর অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার ও অপহরনকারী যুবককে আটক করা হয়েছে। থানাপুলিশ রোববার রাতে ডুমুরিয়ার খর্নিয়া নামক স্থান থেকে উদ্ধার ও আটক করে। সোমবার সকালে উদ্ধারকৃত ছাত্রীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য খুমেকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জানাগেছে, গত ৭ আগষ্ট প্রেমজ সম্পর্কের সুত্র ধরে উপজেলার রাড়–লী গ্রামের আব্দুস সামাদ গোলদারের কলেজ পড়–য়া মেয়ে সুমাইয়া (১৬) অপহৃত হয়। এ ঘটনায় পরেরদিন অপহৃতের পিতা আব্দুস সামাদ বাদী হয়ে কাটিপাড়া গ্রামের কালু গাজীর ছেলে সামিউল(২২) কে আসামী করে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করে। এদিকে অপহরনের দু’সপ্তাহ পর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই কাজী মাসুম অভিযান চালিয়ে রোববার রাতে ডুমুরিয়ার খর্নিয়া থেকে অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার ও সামিউলকে আটক করে। উদ্ধারকৃত স্কুল ছাত্রীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য খুমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে ওসি আশরাফ হোসেন জানান।