পাইকগাছায় প্রধান সড়কের বেহাল দশা


376 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছায় প্রধান সড়কের বেহাল দশা
মার্চ ২০, ২০১৭ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,এম, আলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা ::
খুলনার পাইকগাছা হতে কপিলমুনি ও পৌরসভারস্থ শিববাটী ব্রীজ সংযোগ সড়ক হতে গজালিয়া পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটার রাস্তার বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে জনদূর্ভোগ মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। পিচের রাস্তায় ইটের সলিং করেও শেষ রক্ষা হচ্ছে না। ভোগান্তিই জনগণের নিত্য সঙ্গীয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

 
প্রকাশ, জেলার এ জনগুরুত্বপূর্ণ প্রধান সড়কের করুণ অবস্থা প্রায় ১০/১২ বছর ধরে মারাত্মক আকারে দেখা দিলে প্রতি বছর দ্বায়-সারা সংস্কার করা হয়। যা কয়েক মাস যেতে না যেতেই একই অবস্থায় পৌছে। লেগেই থাকে দূর্ঘটনা। ক্ষতি হয় যানমালের। ৩ শতাধিক যাত্রীবাহী পরিবহন, কোস্টার ও ট্রাকসহ অসংখ্য যাত্রীবাহন চলাচল করে এ সড়কে। গত বর্ষা মৌসুমে রাস্তার অবস্থা খুবই মারাত্মক হওয়ায় ২/৩ মাস ধরে এ সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। এলাকার লোকজন ইঞ্জিনচালিত ভ্যান, নছিমন, করিমনে তালা থেকে উঠে দূর-দূরন্তে চলাচল করত। অবস্থা বিপর্যয় দেখে সড়ক ও জনপদ বিভাগ পিচের রাস্তার উপর কয়েক লাখ টাকা খরচ করে ইটের সলিং-এর ব্যবস্থা করে। অথচ, সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা কালে-ভদ্রে পাইকগাছা-কয়রায় আসলে তাদের নির্দিষ্ট অনুষ্ঠানে রাস্তার এ করুণ অবস্থা উল্লেখও করে থাকেন। আশ্বাস দিয়ে যান দ্রুত রাস্তাটি সংস্কার করা হবে। এ ভাবে বছরের পর বছর চলছে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশ্বাস। কাজের কাজ কিছুই হয়নি। প্রায় ৩০ কিলোমিটার রাস্তার এ অবস্থা দূর্ভোগ-দূর্গতি ও দূর্ঘটনার মধ্য দিয়ে চলছে। এ অবস্থার কারণে এ সড়কে হাসপাতালে নেয়ার পথে কোন সময় সন্তান প্রসবের মত ঘটনাও ঘটেছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রায়ই বলে থাকেন, দ্রুত রাস্তাটি সংস্কার করা হবে, টাকাও বরাদ্দ হয়েছে। কিন্তু স্থানীয় সংসদ সদস্যের কথাটি কথার মধ্যে থেকে গেছে। যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সভাপতি মুজিবুর রহমান পাইকগাছার শিববাটী ব্রীজ উদ্বোধনকালে বলেছিলেন, দ্রুত এ সড়কটিকে ৪ লেন সড়কে উন্নীত করা হবে। কিন্তু সরকারের প্রায় ২ মেয়াদ শেষ হলেও ৪ লেন তো দুরের কথা সঠিকভাবে সংস্কারের কাজও পর্যন্ত হয়নি। এ ব্যাপারে পাইকগাছা থানার নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) সভাপতি আব্দুল মাবুদ সানা, গাজী মুজিবর রহমান (মাস্টার) ও হারুন-অর-রশিদ ইমন বলেন, আমাদের বয়সে এ রাস্তার যে অবস্থা তা বাংলাদেশের আর কোথাও দেখিনি। দ্রুত রাস্তাটি সংস্কার করা না হলে বর্ষাকালে আবারও অনির্দিষ্টকালের জন্য যান চলাচল বন্ধ থাকার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।