পাইকগাছায় ১৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যহত


447 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছায় ১৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যহত
অক্টোবর ১৮, ২০১৬ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,এম, আলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা :
খুলনার পাইকগাছায় ৪৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭টি প্রধান শিক্ষকসহ ৫৫টি শিক্ষকের পদ শূন্য থাকায় ৫ হাজার ৭৫২ জন শিক্ষার্থী সঠিক শিক্ষা কার্যক্রম থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, খুলনা জেলার পাইকগাছায় মোট প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৬৫। যার মধ্যে ৪৯টি বিদ্যালয়ের ৩৭টি প্রধান শিক্ষক, ১২টি বিদ্যালয়ে ১৮ জন সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে। ২০১২ সাল থেকে প্রধান শিক্ষক পদে কোন শিক্ষক নিয়োগ না হওয়ায় অবসরে যাওয়া প্রধান শিক্ষকের পদগুলো শূন্য হয়ে পড়েছে। এছাড়া ব্যক্তিগত সুবিধা ও পছন্দমত জায়গায় বদলী হওয়ার কারণে সহকারী শিক্ষকদের পদ শূন্য হয়ে পড়েছে। এ কারণে অনেক বিদ্যালয়ে শতাধিক শিক্ষার্থী থাকলেও সে সব প্রতিষ্ঠানে মাত্র একজন শিক্ষক দিয়ে কার্যক্রম চলছে। দেখা যায়, এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে যেখানে শিক্ষার্থী কম থাকলে শিক্ষক সংখ্যা অনেক। এমন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে হোগলারচক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুমোদিত পদের সংখ্যা ৩টি, কর্মরত পদ ১টি, শূন্য ১টি, শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫৫। কালুরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুমোদিত পদ ৩, কর্মরত ১, শূন্য ২, শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৪৭। মধুখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনুমোদিত পদ ২, কর্মরত ১, শূন্য ১, শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৬৬। এদিকে মাত্র ৩৯ জন ছাত্র নিয়ে কুমখালী বি.বি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সংখ্যা ৪জন। এখানে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শিশু শ্রেণি থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ৭জন শিক্ষার্থীর উপস্থিত। ১টি কক্ষে ১ম শ্রেণীর ৩ জন, ২য় শ্রেণীর ৩জন, ৫ম শ্রেণীর ১জন শিক্ষার্থী। শিশু, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কক্ষে কোন শিক্ষার্থী পাওয়া যায়নি। এছাড়া প্রধান শিক্ষক শূন্য রয়েছে, সোনাতনকাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাঁড়িয়া খাসমহল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ সোনাতনকাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আমুরকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুমখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাটকেলপোতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খড়িয়া খালপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব কাটিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লতা লধাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গজালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রাধানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হোগলারচক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বি.বি. শ্যামনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দেবদুয়ার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তোকিয়া গোলাবাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ধামরাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বগুলারচক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। নতুন জাতীয়করণ দক্ষিণ হরিখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিষ্ণুপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর কুমখালী গিরিধারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জিরবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাইনবাড়িয়া সন্দ্বিপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শ্রীকন্ঠপুর উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নোয়াই দারুনমল্লিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উড়াবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কানাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুমখালী প্রগতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিবসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ আমিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিগরদানা এসএফ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুমখালী বি.বি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাগুরা দেলুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গদারডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খড়িয়া মিনাজচক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ফেদুরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর কুমখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাঁকা জাগরণী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। সহকারী শিক্ষক পদে শূন্য রয়েছে, খড়িয়া খালপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২, পাটকেলপোতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২, ফতেপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২, দেলুটি জিরবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১, হোগলারচক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২, কালুরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২, গড়ইখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১, মধুখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১, বিজিবি শামুকপোতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১, বাসাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২, শহীদ গফুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১, মানিকতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১টি শূন্য রয়েছে। এ ব্যাপারে শিক্ষা অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, মামলা মোকদ্দমাজনিত কারণে সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ বন্ধ থাকায় এ ব্যাপারে কিছু করা যাচ্ছে।