পাইকগাছায় ২ শতাধিক স্থানে শ্যামাকালী পূজা অনুষ্ঠিত


818 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছায় ২ শতাধিক স্থানে শ্যামাকালী পূজা অনুষ্ঠিত
অক্টোবর ২৯, ২০১৬ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাইকগাছায় ব্যাপক ধর্মীয়ভাব গাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে সনাতন ধর্মালম্বীদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব শ্যামা কালী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষে পৌর সদর সহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রায় ২ শতাধিক স্থানে পূজার আয়োজন করা হয়। পূজাকে ঘীরে প্রতিটি মন্ডপ সাজানো হয় নান্দনিক আলোক সজ্জ্বায়। প্রবেশদ্বারে করা হয় বিশাল আকারের তোরণ বা গেট। মূল পূজাস্থলে সাজানো হয় প্যান্ডেল দিয়ে। প্রধান সড়ক থেকে পূজাস্থলে যাওয়ার পথ সাজানো হয় বিভিন্ন রঙ্গের বাতি দিয়ে। সন্ধ্যারপর মন্ডপ গুলোতে তৈরী হয় জাকজমকপূর্ণ মনোরম পরিবেশ। এ বছর পৌর এলাকায় সরল দাশ পাড়া, সরল উত্তর পাড়া, সরল পরমানিক পাড়া, সরল মাঝের পাড়া, সরল কালিবাড়ী পূজা মন্দির, সরল নবপল্লী, বাসস্টান্ড, বাজার মন্দির ও শিববাটীতে জাকজমকপূর্ণ পরিবেশে শ্যামা কালী পূজা অনুষ্ঠিত হয়। পৌর এলাকার ন্যায় উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অনুরূপ দুই শতাধিকেরও অধিক স্থানে শ্যামা কালী পূজা অনুষ্ঠিত হয় বলে খবর পাওয়া যায়। শনিবার মধ্যরাত থেকে মূল পূজা শুরু হয়। এ উপলক্ষে মন্ডপে মন্ডপে চলে প্রসাদ বিতরণ, ধর্মীয় পূজা আর্চনা ও অঞ্জলী প্রদান।
###

পাইকগাছায় মালয়েশিয়া ছাত্র ভর্তি ও লেখাপড়া বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাইকগাছায় মালয়েশিয়া ছাত্র ভর্তি ও লেখাপড়া বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজা কর্পোরেশনের উদ্যোগে শনিবার সকালে উপজেলা পরিষদ মিলানয়তনে প্রাক্তন অধ্যক্ষ আলহাজ্ব লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রাজা কর্পোরেশনের সিও গোলাম রব্বানী রাজা। প্রভাষক মাসুদুর রহমান মন্টুর পরিচালনায় সেমিনারে বক্তব্য রাখেন, পাইকগাছা সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ মিহির বরণ মন্ডল, সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আলহাজ্ব আহম্মদ আলী মোড়ল, পাইকগাছা প্রেসক্লাবের সভাপতি জিএম মিজানুর রহমান, সাংবাদিক প্রকাশ ঘোষ বিধান, এসএম আলাউদ্দীন সোহাগ, আব্দুল  আজিজ, প্রভাষক ময়নুল ইসলাম, গাজী শহীদুল ইসলাম খোকন, গোলাম সরোয়ার ও আফরা নাজলীন। সেমিনারে রাজা কর্পোরেশনের সিও গোলাম রব্বানী রাজা বলেন মালয়েশিয়াই বর্তমানে ৫শ বিশ্ববিদ্যালয় ও ৫ হাজার বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ রয়েছে। মালয়েশিয়া সরকার শিক্ষাকে বাণিজ্যিক ঘোষনা করায় সেখানে বাংলাদেশীদের জন্য লেখাপড়ার প্রচুর সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। ১৬ থেকে ৩৬ বছর বয়সী নুন্যতম এসএসসি পাশ যে কোন ব্যক্তি খেলাপড়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন। কোন প্রকার ব্যাংক স্পন্সর ছাড়াই স্বল্প খরচে ফাউন্ডেশন, ডিপ্লোমা, ব্যাচেলর অনার্স, মাস্টার্স, পিএইচডি, ব্যবসা, প্রকৌশলী, কম্পিউটার সাইন্স, আইন ও মেডিকেল সহ বিভিন্ন কোর্সে ভর্তি হওয়ার পর আড়াই মাসের মধ্যে লেখাপড়ার পাশাপাশি বিকল্প কাজের মাধ্যমে আয়ের সুযোগ কাজে লাগাতে তিনি মালয়েশিয়া শিক্ষা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান।