পাইকগাছা সংবাদ ॥ অবশেষে ডাঃ প্রভাত কুমারের পাইকগাছায় যোগদান


399 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছা সংবাদ ॥ অবশেষে ডাঃ প্রভাত কুমারের পাইকগাছায় যোগদান
নভেম্বর ৮, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি :
পাইকগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আবারো যোগদান করেছেন ডাঃ প্রভাত কুমার দাশ। তিনি রোববার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা হিসাবে যোগদানের পর সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারী থেকে শুরু করে এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ পূর্ব পরিচিত নন্দিত ডাক্তারকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। অনেকেই মিষ্টি বিতরণের মাধ্যমে আনন্দ প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য এর আগে তিনি আবাসিক মেডিকেল অফিসার হিসাবে কর্মরত থাকা অবস্থায় পদোন্নতি পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য প.প কর্মকর্তা হিসাবে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ বদলী হন। বদলীর খবরে যেমন হতাশ হয়ে পড়েন এলাকাবাসী তেমনি দক্ষ এ ডাক্তারের শুন্যতায় গত ৬ মাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মারত্বক ব্যাহত হয় স্বাস্থ্য সেবা। ক্ষোভ প্রকাশ করেন জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে এলাকাবাসী। অবশেষে স্থানীয় সংসদ সদস্য এ্যাডঃ শেখ মোঃ নূরুল হকের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় গত ০৪ নভেম্বর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডাঃ মোঃ ইহতেশামুল হক চৌধুরী ডিজিএইচএস/পার-২/পি-৫/৮৮/১১৯৯৯ নং স্মারকের ডাঃ প্রভাত কুমার দাশের বরিশালের মুলাদির বদলির আদেশ বাতিল করে পাইকগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প কর্মকর্তা হিসেবে যোগদানের আদেশ প্রদান করেন।

সংশ্লিষ্ঠ সুত্রে মতে, জেলার পাইকগাছা উপজেলার কাটিপাড়া গ্রামের প্রয়াত মনোরঞ্জন দাশের মেঝ ছেলে প্রভাত কুমার দাশ ২১/১১/১৯৮৫ তারিখে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, থেকে সহকারী সার্জন (ইনসার্ভিস ট্রেইনিং) হিসেবে চাকুরীতে যোগদান করেন। পরে ফরিদপুর, সাতক্ষীরার তালায়, খুলনার পাইকগাছার কাটিপাড়ায় এবং ১৭/০৮/১৯৯৮ তারিখে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ইওসি (গাইনী ও অবস্) প্রশিক্ষণ শেষে ৯৯ সালে মেডিকেল অফিসার হিসেবে পাইকগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ২০০০ সালে ডুমুরিয়া, পরে পাইকগাছা, কয়রায় এবং ২০/০৫/২০০৩ তারিখ হতে পাইকগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এমনকি তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব ও পালন করেন। নন্দিত এ ডাক্তার আবারো ফিরে আশায় বিভিন্ন ভাবে অভিমত ব্যক্ত করেছেন বিশিষ্টজনরা। পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর জানান, ডাঃ প্রভাত কুমার দাশ সাধারণ মানুষের কাছে যে আস্থা অর্জন করেছেন তাতে আমরা গর্বিত। উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা এড. স.ম. বাবর আলী বলেন, ডাঃ প্রভাত চিকিৎসক হিসেবে একজন নিবেদিত প্রাণ। তিনি হাসপাতালটিকে মন্দিরের ন্যায় স্থান দিয়ে প্রতিনিয়ত সাধারণ মানুষের সেবা করতেন। তাকে পূণরায় ফিরে আনার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য এড. শেখ মোঃ নূরুল হককে ধন্যবাদ জানান জনপ্রিয় এ দু’জনপ্রতিনিধি।
##
পাইকগাছা উপজেলা কৃষকলীগের বিশেষ বর্ধিত সভা
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাইকগাছা উপজেলা কৃষকলীগের এক বিশেষ বর্ধিত সভা শনিবার বিকালে সংগঠনের পৌর সদরস্থ অস্থায়ী কার্যালয়ে উপজেলা  কমিটির আহবায়ক এ্যাডঃ শেখ আব্দুর রশিদের সভাপতিত্বে  অনুষ্ঠিত হয়েছে। যুগ্ম আহবায়ক প্রভাষক ময়নুল ইসলামের পরিচালনায় আগামী ২১ নভেম্বর খুলনা জেলা কৃষকলীগের সম্মেলন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন, সত্যেন্দ্রনাথ রায়, ডাঃ নিরঞ্জন কুমার মন্ডল, সুভাষ বৈরাগী, জয়দ্রথ বাছাড়, ডাঃ রেজাউল  করিম, সোহরাব হোসেন, মোবারক হোসেন, বিষ্ণপদ রায়, মফিজুল ইসলাম পাড় ও মনজুরুল ইসলাম মোল্লা।
##
পাইকগাছায় জায়গা-জমির বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের পাল্ট-পাল্টি মামলা
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাইকগাছায় জায়গা-জমির  বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে হামলা ও পাল্টা-পাল্টি মামলার ঘটনা ঘটেছে। জিন্নাত আলী গংরা একাধিক মামলা দিয়ে শাহামত আলী গংদের হয়রানি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সর্বশেষ নালিশী সম্পত্তি উপর ঘেরা-বেড়া দেয়ার কাজে বাঁধা প্রদান করায় শাহামত গংরা প্রতিপক্ষদের বিরুদ্ধে পাল্টা মামলা করেছে। প্রাপ্ত অভিযোগে জানাগেছে উপজেলার মৌখালী গ্রামের মৃত জুম্মান আলী গাজী জীবিত অবস্থায় ১৬/৭৭-৭৮ নং বন্দোবস্ত দলিল মূলে মৌখালী মৌজায় ১.৩১ একর সম্পত্তি প্রাপ্ত হয়ে ভোগ দখলকার থাকেন। পতিমধ্যে বিগত ৬ বছর পূর্বে জুম্মান আলী মারা গেলে দু’ছেলে শাহামত গাজী ও রশিদ গাজী ভোগ দখল করে আসছেন। যা বর্তমান জরিপে জুম্মান আলীর নামে রেকর্ড ও হয়েছে। এদিকে পিতার মৃত্যুর পর প্রতিবেশি প্রতিপক্ষ মৃত নোবাত গাজীর ছেলে জিন্নাত আলী গাজী ও মৃত গোপাল গাজীর ছেলে লিয়াকত আলী গাজী গংরা নালিশী সম্পত্তি জোর পূর্বক জবর দখলের পায়তারায় লিপ্ত হয়। বার বার জবর দখলে ব্যার্থ হয়ে প্রতিবেশী রহমত গাজী সহ শাহামত গংদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলাদিয়ে হয়রানি করে আসছে। ইতোমধ্যে আদালতে দায়ের করা সিআর ৪০০/২০১৪ ও  দেঃ ১৭০/১৩ নং মামলায় থানা পুলিশ ও আইনজীবীরা তাদের তদন্ত প্রতিবেদনে জিন্নাত ও লিয়াকতের অভিযোগ অধিকাংশই ভিত্তিহিন এবং নালিশী সম্পত্তি শাহামত গংদের ভোগ দখলে রয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন। সর্বশেষ গত ৩ নভেম্বর শাহামত গংরা নালিশী সম্পত্তির সিমানায় ঘেরা-বেড়া দিতে গেলে প্রতিপক্ষরা বাঁধাদিয়ে উল্টো রহমত গাজী সহ ৮ জনকে বিবাদী করে আদালতে মামলা করে। এ ঘটনায় রোববার শাহামত গাজী বাদী হয়ে প্রতিপক্ষ লিয়াকত গাজী সহ ৮ জনকে বিবাদী করে আদালতে পাল্টা মামলা করেছে। এব্যাপারে তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ভুক্তভোগী শাহামত গংদের পরিবার।