পাইকগাছা সংবাদ ॥ জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা


586 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছা সংবাদ ॥ জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা
জুন ৭, ২০১৮ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাইকগাছায় শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ঈদ বাজার। পবিত্র ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে উপজেলা সদরের বিপনী বিতানগুলোতে উপচে পড়া ভীড় পরিলক্ষিত হচ্ছে। নারী, পুরুষ সহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ তাদের নতুন জামা কাপড় সহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে ভীড় জমাচ্ছেন বিপনী বিতানগুলোতে।
উল্লেখ্য, আর ১০-১১ দিন পর সারা দেশে উদ্যাপিত হতে যাচ্ছে মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদ-উল-ফিতর। আর প্রধান এ ধর্মীয় উৎসব, উৎসব মুখর করে তুলতে যেন সাধারণ মানুষের মধ্যে কোন কমতি নেই। রমজানের শুরুতেই ঈদের কেনা কাটায় তেমন কোন প্রভাব না পড়লেও শেষ দিকে এসে জমে উঠেছে ঈদের কেনা কাটা। আগে ভাগেই কেনা কাটার কাজ সেরে নিতে সবাই এখন বিভিন্ন বিপনী বিতান গুলোতে কেউ কিনছেন প্রসাধনী, কেউ কিনছেন জামা-কাপড়, কেউ আবার তৈরি করছেন প্রয়োজনীয় নতুন পোশাক। তবে সব চেয়ে বেশী কেনা কাটা জমে উঠেছে সিট কাপড়ের দোকান গুলোতে। বিগত ঈদে লেহাংগা ও ফ্লোর টার্চ পোশাকের কদর দেখা গেলেও এবারের ঈদে তরুনীদের পছন্দের পোশাক দো’পাট্টা ও গাউন, মহিলারা কিনছেন সুতি ওড়না, লেলিন কাপড়, গজ কাপড় ও কাতান কাপড় সহ বিভিন্ন সিট কাপড়। ফজলু ক্লথ স্টোরের স্বত্ত্বাধিকারী মোঃ ফজলু জানান, রমজানের শুরুর দিকে বেচা কেনা একটু কম ছিল তবে ঈদের সময় যত ঈদ এগিয়ে আসছে ততই ক্রেতাদের উপস্থিতি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি জানান, সাধারণ থ্রিপিচ ৪শ টাকা থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। দো-পাট্টা ১ হাজার থেকে ২ হাজার ৫শ এবং গাউন ৮শ থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। ফসিয়ার রহমান মহিলা মহা বিদ্যালয়ের কলেজ ছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস জানান, এ বারের ঈদে তিনি ২ হাজার টাকা মূল্যের গাউন কিনেছেন। একই প্রতিষ্ঠানের আরেক শিক্ষার্থী ফারিহা জানান, এবারের ঈদে তার পছন্দের পোশাক দো-পাট্টা। বাবা মায়ের সাথে ঈদের কেনা কাটা করতে এসে সে নিজের জন্য ১ হাজার ৮শ টাকার মূল্যের দো-পাট্টা কিনেছে। বর্তমানে কেনা বেচার যে ধারা এ ধারা অব্যাহত থাকলে বিগত ঈদের চেয়েও এবারের ঈদে ব্যবসা ভালোই হবে বলে জানিয়েছেন অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা।
###

পাইকগাছায় ইয়াবা ও গাঁজা সহ আটক-৩
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাইকগাছা থানা পুলিশ ইয়াবা ও গাঁজা সহ ৩ মাদকসেবীকে আটক করেছে। বুধবার থানা পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের আমির আলী গাজীর ছেলে ফারুক গাজী (৪০) কে ১০ গ্রাম গাঁজা সহ হাতেনাতে আটক করেন। এ ঘটনায় থানায় মামলা নং- ১৩। প্রতাপকাটী গ্রামের বারেক সরদারের ছেলে বিল্লাল সরদার (৩৫) কে ৪ পিচ ইয়াবা সহ আটক করেন, যার মামলা নং- ১৪ ও আরাজি ভবানীপুর গ্রামের মৃত কিনু গাজীর ছেলে লাল্টু রহমান গাজী (৩৮) কে ১০ গ্রাম গাঁজা সহ আটক করা হয়। যার মামলা নং- ১৫। আটককৃত ৩ জনকে পৃথক ৩টি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে ওসি আমিনুল ইসলাম বিপ্লব জানিয়েছেন।

###

পাইকগাছা পৌর যুবলীগনেতা জাহিদুলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপপ্রচার; বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য দলীয় নেতৃবৃন্দের আহ্বান
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাইকগাছায় চিংড়ি ঘের ও ঘেরের হারির টাকা সংক্রান্ত মামলায় স্বাক্ষী হওয়ায় পৌর যুবলীগের ক্রীড়া সম্পাদক জাহিদুল আলমের বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষ স্বার্থনেষী একটি মহল বিভ্রান্তিকর বিভিন্ন অপপ্রচার ছড়াচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ধরণের অপপ্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অপপ্রচার বন্ধ সহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছে জনপ্রতিনিধি, দলীয় নেতৃবৃন্দ ও সচেতন এলাকাবাসী।
প্রাপ্ত অভিযোগে জানাগেছে, উপজেলার মঠবাটী গ্রামের তারায় সরদারের ছেলে তোবারক হোসেনের সাথে চিংড়ি ঘের ও ঘেরের হারির টাকা নিয়ে গদাইপুর গ্রামের মৃত নরেন্দ্রনাথ ঘোষের ছেলে যুবলীগনেতা অনুপ কুমার ঘোষের মধ্যে গত ২/৩ বছর যাবৎ বিরোধ চলে আসছে। তোবারক হোসেন সর্বশেষ গত ৩১/৫/২০১৮ তারিখ বাদী হয়ে অনুপকে বিবাদী করে পাইকগাছা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২.৭০ একর এফসিডিআই প্রকল্পের জমির হারির মূল্য হিসাবে পাওনা ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা হারির মামলা করেন। এ মামলায় ১নং স্বাক্ষী করা হয় পৌরসভার বাতিখালী গ্রামের আব্দুল করিম গাজীর ছেলে ও পৌর যুবলীগের ক্রীড়া সম্পাদক জাহিদুল আলমকে। মামলার স্বাক্ষী হওয়ায় এবং ঘের ও ঘেরের হারির টাকা সংক্রান্ত বিষয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট থাকায় যুবলীগনেতা জাহিদুলের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে যুবলীগনেতা অনুপ তার ভাই সাংবাদিক প্রকাশ ঘোষ বিধানকে দিয়ে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে জাহিদুলের বিরুদ্ধে বিভ্রান্তিকর অপপ্রচার ছড়াচ্ছে। গত ৬ জুন যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক প্রজন্মের ভাবনা পত্রিকায় এ ধরণের একটি বিভ্রান্তিকর খরব প্রকাশিত হয়। যেখানে যুবলীগনেতা জাহিদ একজন শিবির কর্মী ছিলেন, এমনকি মাদক বিক্রেতা সহ নানা কুরুচিপূর্ণ মিথ্যা তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। এ ধরণের অপপ্রচারে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জনপ্রতিনিধি, দলীয় নেতৃবৃন্দ ও এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জগদীশ চন্দ্র রায় জানান, যুবলীগনেতা জাহিদুল ২০০৪ সাল থেকে পৌর যুবলীগের ক্রীড়া সম্পাদকের দায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করে আসছে। তার আগে সে আমার সাথে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সংশ্লিষ্ট ছিল। সে সৎ এবং পরিশ্রমী একজন নেতা। তার বিরুদ্ধে খারাপ কোন অভিযোগ নেই। তার জনপ্রিয়তায় ঈর্শ্বার্নীত হয়ে প্রতিপক্ষ লোকজন মিথ্যা অপপ্রচার করছে। পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামাল আহম্মেদ সেলিম নেওয়াজ জানান, জাহিদুল জন্ম সূত্রে আমার ওয়ার্ডের বাসিন্দা। সে উদিয়মান একজন তরুণ সমাজসেবক ও রাজনৈতিক কর্মী। এলাকার এমন কোন সামাজিক কর্মকান্ড নাই যেখানে জাহিদের অংশগ্রহণ নাই। তাকে জড়িয়ে যে অপপ্রচার ছড়ানো হচ্ছে তা সঠিক নয়। শুনেছি প্রতারণা মূলক একটি মামলার স্বাক্ষী ও চিংড়ি ঘের সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষ লোকজন তাকে জড়িয়ে বিভ্রান্তিকর অপপ্রচার ছড়াচ্ছে। আমরা এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে এ ধরণের অপপ্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। এ ধরণের অপপ্রচারে কেউ যেন বিভ্রান্ত না হন এ আহ্বান জানিয়ে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করেছেন যুবলীগনেতা জাহিদ, তার পরিবার ও দলীয় নেতৃবৃন্দ।
###

পাইকগাছা উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন গাছে মাটির পাত্র স্থাপন
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাখির অভয়ারণ্যের লক্ষ্যে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন গাছে মাটির পাত্র স্থাপন করা হয়েছে। পরিবেশ বাদী সংগঠন বন বিবির উদ্যোগে বুধবার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে বিভিন্ন গাছে পাখির বাসার জন্য মাটির পাত্র স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফকরুল হাসান।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বন বিবির সভাপতি সাংবাদিক প্রকাশ ঘোষ বিধান, উপজেলা স্যানেটারী ইন্সপেক্টর উদয় মন্ডল, সমাজসেবক শাহিনুর রহমান, আলোকযাত্রা দলের সদস্য মিমি আক্তার, লামিয়া সুলতানা ও কওছার আলী।
##

পাইকগাছায় সাবেক স্পিকার শেখ রাজ্জাক আলী ৩য় মৃত্যু বার্ষিকী পালিত
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের সাবেক স্পিকার এ্যাডঃ শেখ রাজ্জাক আলীর ৩য় মৃত্যু বার্ষিকী তার জন্মস্থান পাইকগাছায় যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়েছে। মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে হিতামপুরস্থ এনতাজ আলী স্মৃতি পাঠাগারের উদ্যোগে কুরআন তেলওয়াত, মরহুমের কবর জিয়ারত ও শহীদ জিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের গরীব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদেরকে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান ও কুইজ প্রতিযোগিতা সহ নানান কর্মসূচি আয়োজন করা হয়। মৃত্যু বার্ষিকীর পৃথক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক স্পিকারের মেয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজের সহকারী প্রফেসর ডাঃ সাহানা রাজ্জাক, জার্মানীর চিকিৎসক ডাঃ এ্যানা রাজ্জাক, সিএ ড. লীনা রাজ্জাক, শেখ সোহরাব উদ্দীন, শেখ আব্দুল আজিজ, মেহেদী হাসান আহসান অনিক, পাঠাগারের গ্রন্থাগারিক কল্লোল মল্লিক, শেখ আশিকুর রহমান, শিক্ষার্থী তুর্ণা সরকার, রাজিয়া সুলতানা, নুসরাত জান্নাতী, কুলসুম খাতুন, তিথি দেবনাথ, নাজিয়া ফেরদৌসী, তনুজা খানম, নিগার সুলতানা, শান্তা খাতুন ও লামিয়া আক্তার।