পাইকগাছা সংবাদ ॥ দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর নির্মিত হচ্ছে আ’লীগের কার্যালয় । উজ্জীবিত নেতাকর্মীরা


400 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছা সংবাদ ॥ দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর নির্মিত হচ্ছে আ’লীগের কার্যালয় । উজ্জীবিত নেতাকর্মীরা
আগস্ট ১৮, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এসএম আলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা :
খুলনার পাইকগাছায় দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয় পাচ্ছে নেতাকর্মীরা। স্থানীয় সংসদ সদস্য এ্যাড. শেখ মোঃ নূরুল হকের ব্যক্তিগত উদ্যোগে পৌর সদরের প্রাণকেন্দ্রে নির্মাণ করা হচ্ছে কার্যালয়টি। এমপি নিজেই গত ছয়দিন উপস্থিত থেকে নির্মাণ কাজের তদারকি করছেন। নির্মাণ কাজ শেষ হতে না হতেই এরই মধ্যে কার্যালয় নির্মাণের খবর শুনে দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। উল্লেখ্য স্বাধীনতা পূর্ব ও স্বাধীনতা পরবর্তী দেশের ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক সংগঠনের মধ্যে আওয়ামীলীগকে শীর্ষপর্যায়ের ঐতিহ্যবাহী একটি রাজনৈতিক সংগঠন হিসাবে বিবেচনা করা হয়। অথচ ঐতিহ্যবাহী সংগঠনটির আত্মপ্রকাশের পর প্রায় ৭০ বছরে পদার্পন করতে চললেও জেলার গুরুত্বপূর্ণ এ উপজেলায় আওয়ামীলীগ শীর্ষ পর্যায়ে অবস্থান করলেও অদ্যাবধি নিজস্ব কোন কার্যালয়ের ঠিকানা খুজে পায়নি সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। ইতোপূর্বে কোন কোন সময় ভাড়া ঘরে  চলতো দলীয় কার্যক্রম। ফলে দলীয় কর্মসূচী পালন মারাত্মকভাবে ব্যহত হতো। বিশেষ করে বর্তমান সরকারের ২০০৮ সাল পরবর্তী ৫ বছরে জাতীয় শোক দিবসের মত কর্মসূচীও প্রাণহীন দেখাগেছে। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে দলীয় কার্যক্রমকে গতিশীল করতে স্থায়ী কার্যালয় নির্মানের উদ্যোগ নেন বর্তমান সংসদ সদস্য এ্যাড. শেখ মোঃ নূরুল হক। তিনি চলতি মেয়াদের ক্ষমতাগ্রহনের এক বছরের মধ্যেই পৌর সদরের প্রাণকেন্দ্রে সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগ এবং নিজস্ব অর্থায়নে আধুনিক পর্যায়ের অফিস কার্যালয়ের নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। যার ভিত্তি প্রস্থর কাজের শুভ উদ্ভোধন করেন গত ১৩ আগষ্ট। উদ্ভোধনের পর হতে গত ছয়দিন যাবৎ তিনি নিজে উপস্থিত থেকে নির্মাণ কাজের তদারকি করছেন। নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হতে সপ্তাহখানেক বাকি থাকলেও এরই মধ্যে দলীয় কার্যালয় হচ্ছে এমন খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়ায় অভিভাবক সংগঠন আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনের তৃনমুল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। উল্লেখ্য ১৯৯৬ সালে এমপি নূরুল হক তৎকালীন সংসদ সদস্য থাকাকালীন সময়ে রবীন্দ্রনাথ নামের জনৈক ব্যক্তির ঘর ভাড়া নিয়ে একতলা ভবনের একটি দলীয় কার্যালয় করেছিলেন কিন্তু রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের ফলে পরবর্তীতে অফিস ঘরটি বেদখল হয়ে যায়। এদিকে দীর্ঘদিন পর এমন একটি উদ্যোগ গ্রহন করায় সংসদ সদস্যের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে অভিনন্দন জানিয়েছেন নেতাকর্মীরা। এ ব্যাপারে উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক মলঙ্গী জানান দীর্ঘদিন পর দলীয় কার্যালয় নির্মাণ কাজ শুরু করায় শুধু আ’লীগ বা সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী নয়, মুক্তিযোদ্ধা চেতনার মানুষের মধ্যেও জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিটি নেতাকর্মীদের মধ্যে ফিরে এসেছে প্রাণ চাঞ্চল্য। দলের জন্য এমন একটি মহৎ উদ্যোগ গ্রহন করায় বর্তমান সংসদ সদস্য এ্যাড. শেখ মোঃ নূরুল হক সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের হৃদয়ের গভীরে স্থান করে নিয়েছেন বলে জানান সংগঠনের সাবেক সহ-সভাপতি রতন কুমার ভদ্র। সংসদ সদস্য এ্যাড. শেখ মোঃ নূরুল হক জানান স্থায়ী কোন কার্যালয় না থাকায় বিগত দিনগুলোতে দলীয় কর্মসূচী পালন মারাত্মকভাবে ব্যহত হয়। দলীয় কার্যক্রমে গতিশীলতা আনয়নের লক্ষ্যে এবং নেতাকর্মীদের দীর্ঘদিনের দাবী পূরনের লক্ষ্যে পৌর সদরের প্রাণকেন্দ্রে একটি আধুনিক মানের অফিস কার্যালয় নির্মাণের কাজ শুরু করি। যা আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সম্পন্ন হলে দলীয় নেতাকর্মীরা একটি স্থায়ী ঠিকানা হবে বলে তিনি জানান। অভিভাবক সংগঠনের কার্যালয়টি নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর সহযোগী সংগঠনগুলোর কার্যালয় নির্মাণের প্রক্রিয়া শুরু করা হবে বলে দলীয় এ সংসদ সদস্য জানান।
###
বেগম ফেরদৌসি আলীর সুস্থতা কামনায় বিএমএসএফ এর দোয়ানুষ্ঠান
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
দি ডেইলি ট্রিবিউন পত্রিকার সম্পাদক ও দৈনিক পূর্বাঞ্চল পত্রিকার ব্যবস্থাপনা সম্পাদক বিশিস্ট নারী নেত্রী বেগম ফেরদৌসি আলীর সুস্থতা কামনায় পাইকগাছায় এক দোয়ানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) খুলনার পাইকগাছা উপজেলা শাখার উদ্যোগে মঙ্গলবার সকাালে সংগঠনের পাইকগাছা কলেজ মার্কেস্থ অস্থায়ী কার্যালয়ে ফোরামের সভাপতি আব্দুল আজিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দোয়ানুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ফোরামের সহ-সভাপতি এস,এম, আলাউদ্দি সোহাগ, বিভাসেন্দু সরকার, মোসলেহ উদ্দীন বাদশা, সম্পাদক আলাউদ্দীন রাজা সাংগঠনিক সম্পাদক এন. ইসলাম সাগর, কোষাধ্যক্ষ ইমদাদুল হক, দপ্তর সম্পাদক এম.আর মন্টু, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বজলু, নির্বাহী সদস্য শেখ দীন মাহমুদ, নজরুল ইসলাম, কৃষ্ণ রায়, আবুল হাশেম, এমএম আহসানউদ্দীন ও প্রবীর জয়।