পাইকগাছা সংবাদ ॥ পৌরসভার ইমাম পরিষদের কমিটি গঠন


491 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাইকগাছা সংবাদ ॥ পৌরসভার ইমাম পরিষদের কমিটি গঠন
আগস্ট ৪, ২০১৬ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,এম,আলাউদ্দিন সোহাগ,পাইকগাছা  :
পাইকগাছা পৌরসভা ইমাম পরিষদের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকালে কোর্ট জামে মসজিদে এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় থানা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব ও ইমাম আলহাজ্ব হাফেজ মাওলানা শহিদুল ইসলামকে সভাপতি ও লোনা পানি কেন্দ্র জামে মসজিদের খতিব ও ইমাম মাওলানা রইসুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৪ সদস্য বিশিষ্ট পৌরসভা ইমাম পরিষদের কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির অন্যান্যরা হলেন সহ সভাপতি হাফেজ মাওলানা শামসুদ্দিন আহমেদ ও মাওলানা আবু সাদেক, সহ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল কাদির, কোষাধ্যক্ষ মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক হাফেজ ইব্রাহিম খলিল, সদস্য যথাক্রমে মাওলানা শামসুল আরেফিন, কারী হাবিবুল্লাহ, মোঃ ইউনুছ আলী, হাফেজ আলমগীর হোসেন, হাফেজ নুর হোসেন, হাফেজ আব্দুল হাই সিদ্দিকী, মাওলানা মুজিবুর রহমান, মাওলানা বাহারুল ইসলাম ও হাফেজ আব্দুস সবুর।
###

পাইকগাছায় ৪ বছরেও শেষ হয়নি কপোতাক্ষ নদীর উপর নির্মাণাধীন ব্রিজের

এস,এম, আলাউদ্দিন সোহাগ,পাইকগাছা  :
প্রমত্তা কপোতাক্ষের উপর শুরু হয়েছিল ব্রীজের নির্মাণ কাজ, আর আজ নাব্যতা হাারিয়ে মৃত প্রায় কপোতাক্ষের প্রাণ ফেরাতে চলছে ২৬২ কোটি টাকার খনন কাজ। এরই মধ্যে পার হয়ে গেছে দু’ দফার অতিরিক্ত সময়ও। তবু আজও শেষ হয়নি পাইকগাছার বোয়ালিয়াস্থ কপোতাক্ষ নদের উপর নির্মাণাধীন কপোতাক্ষ ব্রিজের নির্মাণ কাজ। আইনি জটিলতায় শুরু করতে পারেনি দু’ পাড়ের এ্যাপ্রোচ রোড (সংযোগ সড়ক) নির্মাণের কাজও।

এদিকে ব্রিজ নির্মাণের ফলে সেখানকার খেয়াঘাটটিও বন্ধ রয়েছে দীর্ঘ দিন। বাধ্য হয়ে তাই দু’ পারের সাতক্ষীরা, কয়রা ও পাইকগাছা এলাকার ব্যবসায়ী সহ হাজার হাজার মানুষের নদী পারাপারে প্রতিদিন ১০-১২ কিঃমিঃ পথ পাড়ি দিয়ে পার হতে হয় শিববাড়ি ব্রিজ। জনভোগান্তিতে রীতিমত অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন  জনপদের মানুষ। কতৃপক্ষ বলছেন ব্রিজের সংযোগ সড়কের জমি অধিগ্রহণ সম্ভব হয়নি আজও। তবে ঠিক কবে কবে নাগাদ জমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন হবে, আর কবে নাগাদই বা জনগণের জন্য উন্মুক্ত হবে ব্রিজটি ? সে ব্যাপারে নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না সংশি¬ষ্টদের কেউই।

জানা গেছে, চলতি সরকারের প্রথম মেয়াদে ২০১২ সালের ১২ অক্টোবর জেলার পাইকগাছা উপজেলার রাড়–লী ও বোয়ালিয়ার কপোতাক্ষ নদের উপর ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করা হয় কপোতাক্ষ ব্রিজের । ৩১৫ মিটার দৈর্ঘ্যরে ব্রিজটির নির্মাণ কাজের প্রাক্কলীন ব্যয় বরাদ্দ হয় ২১ কোটি ৬১ লাখ টাকা। ব্রিজের দু’পাশে এ্যাপ্রোস সড়কের দৈর্ঘ্য নির্ধারণ করা হয় ২০০ মিটার করে, যার প্রস্থ ৭ মিটার, উচ্চতা ৫.৫ মিটার। প্রতিটি ৩৫ মিটার দূরত্বের ইস্পান থাকবে ৯টি। স্থানীয় সরকার মন্ত্রানালয়ের আওতায় নির্মাণ কাজটি করছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স মঈন বাশি ও ইসলাম ট্রেডার্স জয়েন্ট ভেনসার। ২০১৪ সালের ১০ এপ্রিলের মধ্যে ব্রিজটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার কথা ছিল। তবে নির্মাণ কাজে শম্ভুক গতির সাথে নানাবিধ পরিকল্পনাহীনতায় সংযোগ সড়কের জমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন না হওয়ায় নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ হয়নি। ফলে দ্বিতীয় দফায় গত বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত সময় বর্ধিত করা হয়েছিল। তবে ঐ সময়ের মধ্যেও সমুদয় কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় আবারো বৃদ্ধি করা হয় সময়সীমা। তবে ঐ নির্দিষ্ট সময় ইতঃমধ্যে পার হয়ে গেলেও ব্রিজটির নির্মাণ কাজতো দূরের কথা সম্পন্ন করতে পারেনি নদীর পূর্বপাশের সংযোগ সড়কের জমি অধিগ্রহণের কাজও।

ব্রিজটির নির্মাণ কাজ শেষ হলে উপজেলার দু’পারের হাজার হাজার মানুষের পারাপার, পাশ্চাত্য কয়েকটি উপজেলার পন্য পরিবহন থেকে শুরু করে ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রসারতা বৃদ্ধি সহ জেলা সদর সাতক্ষীরার সাথে সরাসরি পাইকগাছার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা শুরু হবে। এছাড়া বিশ্ব বরেণ্য বিজ্ঞানী স্যার আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায় (পিসি রায়ের) গ্রামের বাড়ি রাড়ুলির সাথে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা তৈরী হবে সারা দেশের। এতে করে বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের সাথে বিজ্ঞানীর বাড়ির নাড়ির সম্পর্ক মজবুত হবে বহুগুণে। ইতঃমধ্যে বাড়িটি সরকারের প্রতœততœ বিভাগ গ্রহণ করলেও পর্যটন কেন্দ্র বাস্তবায়নে যোগাযোগ প্রতিবন্ধকতার উত্তোরণ তথা বঞ্চিত জনপদের লক্ষ লক্ষ মানুষের দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নে এগিয়ে যাবে আরো একধাপ। ঠিক এমন অবস্থায় নির্দিষ্ট করে কেউই বলতে পারছেন না কবে নাগাদ শেষ হবে স্বপ্নের কপোতাক্ষ সেতুর নির্মাণ কাজ। আর লাঘব হবে জনপদের হাজার হাজার মানুষের প্রতিদিনের জনদূর্ভোগ।