পাটকেলঘাটা সংবাদ ॥ বাল্য বিবাহ বন্ধ করায় সাংবাদিককে বখাটের হুমকি


420 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাটকেলঘাটা সংবাদ ॥ বাল্য বিবাহ বন্ধ করায় সাংবাদিককে বখাটের হুমকি
মে ২৪, ২০১৬ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কামরুজ্জামান মোড়ল:
পাটকেলঘাটায় বাল্য বিবাহ বন্ধ করায় সাংবাদিককে এক বখাটে হুমকি দেয়ার ঘটনাটি রবিবার রাতে থানার মনোহরপুর গ্রামে ঘটেছে। সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, ঐ গ্রামের হোসেন শেখের ৯ম শ্রেণীতে পড়–য়া মেয়ে রহিমা খাতুন (১৪) কে যশোর জেলার কেশবপুর থানাধীন পরচক্রা গ্রামের জনৈক ব্যক্তির পুত্র বর্তমানে মনোহরপুর শেখ পাড়া জামে মসজিদের ইমাম মোঃ নজরুল ইসলাম (২২) এর বিবাহের কথা ছিল।

এ খবর পেয়ে স্থানীয় সাংবাদিকরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করে থানা পুলিশের সঙ্গে ঐ রাতে বিয়ে বাড়িতে গিয়ে পরিবারের লোকজনের সাথে কথা বলে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ করা হয়। এ সময় থানার এসআই মধুসূদন মোস্তাবী অভিভাবকদের নিকট থেকে লিখিত এক অঙ্গীকারপত্র নেন। এ ঘটনার পরপরই ঐ গ্রামের আব্দুল হান্নান শেখের পুত্র বখাটে আব্দুল্যা রাত ১১.১৮ ঘটিকার সময় তার ব্যবহৃত ০১৯৬২৫৪২৬০৯ নম্বর থেকে পাটকেলঘাটা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক শেখ শওকত হোসেনকে বিয়ে বন্ধ করা হলো কেন বলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। বিষয়টি পরদিন সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ফরিদ হাসান, পাটকেলঘাটা থানার অফিসার ইনচার্জকে অবহিত করা হয়। এ ঘটনায় পাটকেলঘাটা প্রেস ক্লাবের সকল সাংবাদিক তীব্র নিন্দা ও বখাটের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানিয়েছেন।###

কপোতাক্ষের তলদেশ হতে বালু উত্তোলনের সচিত্র রিপোর্ট প্রকাশে সাংবাদিককে বালুদস্যুর হুমকি।
কামরুজ্জামান মোড়ল:
কপোতাক্ষ নদের তলদেশ থেকে অবৈধভাবে খনন যন্ত্র দ্বারা প্রতিনিয়ত হাজার হাজার ঘনফুট বালু উত্তোলনের সচিত্র রিপোর্ট পরিবেশন করায় অভিযুক্ত বালুদস্যু সাংবাদিককে জীবননাশের হুমকি অব্যাহত রেখেছে। এতে করে সাংবাদিক সহ গোট সাংবাদিক সমাজের মধ্যে দারুণ ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। উল্লেখ্য গত বুধবার বিকালে স্থানীয় সাংবাদিকরা সরেজমিন উপজেলার কাটাখালী গ্রাম সংলগ্ন নদের মাঝখানে ছোট খনন যন্ত্র (এক্সকাভেটর) স্থাপন করে প্রতিদিন হাজার হাজার ঘনফুট বালু উত্তোলনের মাধ্যমে ব্যবসায়ীক ভাবে বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা লুপে নিচ্ছে।

এ সংক্রান্তে বৃহস্পতিবার স্থানীয় কয়েকটি পত্রিকায় সচিত্র রিপোর্ট প্রকাশ হওয়ায় ঐ বালুদস্যু পারকুমিরা গ্রামের মৃত নগেন্দ্র নাথ ঘোষের পুত্র পাটকেলঘাটা খাদ্য শস্য চোরাই সিন্ডিকেটের অন্যতম হোতা বহুল আলোচিত সুকুমার ঘোষ ৩টি খনন যন্ত্র স্থাপনের মাধ্যমে প্রতিদিন অন্তত ৩০ হাজার ঘনফুট বালু উত্তোলন করছে। স্থানীয় ঠিকাদারদের নিকট প্রতি ঘনফুট ৭ টাকা হারে বিক্রি করে প্রতিদিন হাজার হাজার টাকা লুপে নিচ্ছে। এ নিয়ে গত ৫ বছরে তিনি অর্ধকোটি টাকার বালু বিক্রি করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছে। তার এ অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় নদের দু’ধারে নির্মিত ভেঁড়িবাধ দেবে বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে তীরবর্তী লাখ লাখ মানুষ আবারো কপোতাক্ষের অভিশাপে শিকার হয়ে গৃহহীন হওয়ার আশঙ্খায় ভুগছেন। নদ অববাহিকার ৫০ লাখ মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে সরকার ২৮৬ কোটি টাকা ব্যয়ে কপোতাক্ষ নদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণ প্রকল্প (১ম পর্যায়ে) বাস্তবায়ন অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বিশাল জনগোষ্ঠীর মানব দুর্ভোগ লাঘবে সরকারের নেয়া যুগান্তকারী উদ্যোগ ঐ বালুদস্যুর ব্যক্তি স্বার্থে ভেস্তে যেতে বসেছে। এভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত থাকলে বর্ষা মৌসুমে ভেঁড়িবাধ দেবে আবারো জলাবদ্ধতার কবলে পড়ে লাখ লাখ মানুষের ভাগ্যে নেমে আসবে অবর্ণনীয় দুঃখ দুর্দশা। নদ অববাহিকায় বসবাসরত ৫০ লাখ ভুক্তভোগী মানুষের দীর্ঘদিনের আন্দোলনকে এক বালুদস্যুর আগ্রাসনে থমকে যেতে বসেছে। ভুক্তভোগীদের দাবী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি দেখবেন কি ? ###