প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার


1209 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার
মে ২৮, ২০১৮ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

২৪/০৫/২০১৮ তারিখ ও তৎপরবর্তী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বাবু ঘোষ সনৎ কুমারের ইন্ধনে তালা উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ বিগত ২৬/০৫/২০১৮ তারিখে সাতক্ষীরা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন ও এ সম্পর্কে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা প্রশাসন তালার দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন,উদ্দেশ্য প্রণোদিত,বানোয়াট ও নিজেদের অপকর্ম ঢাকার জন্য এ ধরণের ন্যাক্কারজনক ঘটনার অবতারণা করেছেন।
মূল ঘটনা : (১) তালার বেশীরভাগ মোবাইল কোর্ট মাদকদ্রব্যে রোধে করা হয়েছে । নিম্মস্বাক্ষরকারী যোগদানের পর দু‘বছরে ২৭৭ টির অধিক মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছেন। এর ফলে অনেক মাদকসেবী , বিক্রয়কারী ,মাদকসেনকারী ও বিক্রয়কারীদের প্রশ্রয়দাতা নিম্মস্বাক্ষরকারীর প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছেন ।
(২) প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী প্রকল্প গ্রহণে এখনও পর্যন্ত উপজেলা পরিষদ ব্যর্থ হয়েছে। এ বছরে কার্যক্রম শেষ করার জন্য ৭/৮ দিনের বেশী সময় পাওয়া যাবে না ।
(৩) কর্মসূচীর প্রথম পর্যায়ের কাজে সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব সরদার জাকির হোসেনসহ চেয়ারম্যানগণ
৩৬ দিনের কাজ করে ৪০ দিনের বিল দাবী করেন ।
(৪) এ ছাড়া টি,আর, কাবিখার ১ম পর্যায়ের কাজ শেষ না হলেও ২য় পর্যায়ের প্রকল্প অনুমোদন না হলেও তারা বা
সংবাদ সম্মেলনকারীগণ কাজ শেষ করেছেন দাবী করে অর্থ দাবী করেন ।
(৫) ধানদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তিনটি নাশকতা মামলার আসামী তবু তিনি পরিষদের সভায় নিয়মিত
হাজির হন । সাতক্ষীরা তান্ডবের অন্যতম আসামী, ২০১৩ সালে পাটেকেলঘাটা থানার অফিসার ইনচার্জকে বিনেরপোতা ত্রিশ মাইল নামক স্থানে আক্রমন করেন । অফিসার ইনচার্জ, পাটকেলঘাটা থানা আহত হন । তাৎক্ষনিক অফিসার ইনচার্জ, পাটকেলঘাটা থানাকে হেলিকপ্টারে যোগে ঢাকায় নিয়ে টিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেন অথচ চেয়ারম্যান,উপজেলা পরিষদ বাবু ঘোষ সনৎ কুমার, চেয়ারম্যান, ধানদিয়া ইউনিয়ন পরিষদকে ফোন করে প্রায়ই ডেকে আনেন । ঘটনার দিন মিটিং শেষে বাইরে বের হবার সময় আমার ঠিক পিছন থেকে টিআর , কাবিটা নিয়ে জেলা কমিটি নিয়ে আপত্তি জনক কথা বলেন । তিনি আগে থেকেই সরকার বিরোধী কথা বলেন ।

গত ২০১৬-১৭ এবং ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের জন্য বাথরুম নির্মাণের জন্য একাধিকবার রেজুলেশন করলেও তা বাস্তবায়ন করা হয়নি এবং করেননি । পাশে আরেকটি বাথরুম আছে সেটিও সংস্কার করা হয়নি । পরিত্যাক্ত আছে যা আপনারা সরেজমিনে আসলে দেখতে পাবেন । সমাজসেবা অফিসারের সাথে কোন বিতর্কই হয়নি , যদি বাথরুমের প্রয়োজন হয় তা অনুমোদন করবেন উপজেলা পরিষদ , নির্বাহী অফিসার রেজুলেশনভুক্ত করবেন ও তদারকি করবেন, উপজেলা প্রকৌশলী তা বাস্তবায়ন করবেন । উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিল যাচাই করে পরিশোধ করবেন ।

তারা দীর্ঘদিন তালা বাজার দখর করে কেনা-বেচা করতেন । সম্প্রতি গরুর বাজার, অবৈধ ক্লাবঘর সরকারের দখলে আনায় অবৈধ দখলদার, চিটিং মামলার আসামী ও জেলা পরিষদ সদস্য মীর জাকির ও তার ভাই তালা হাসপাতালের ৩য় শ্রেণির কর্মচারী মীর মোহসীনের প্ররোচনায় ও স্বার্থের কারণে অপপ্রচার চালাচ্ছেন।
সারা বছর কাজ না করে জুন মাসে এসে সকল প্রকল্প একসাথে গ্রহণ করে কোটি কোটি টাকা আত্নসাথে বাঁধা দিলে তারা নিম্মস্বাক্ষরকারীর বিরুদ্ধে উল্লিখিত সংবাদ সম্মেলন করেছেন। আমি প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি ।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি