প্রথমবার বিদেশ ভ্রমণের টিপস


102 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
প্রথমবার বিদেশ ভ্রমণের টিপস
আগস্ট ২, ২০২২ জাতীয় প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

দীর্ঘ দুই বছর পর আবার এসেছে বাধাহীন ভ্রমণের সুযোগ। অনেকের জন্য এই বছরই সম্ভব হচ্ছে প্রথমবারের মতো বিদেশ ভ্রমণ। ভ্রমণের গণ্ডির সম্প্রসারণ অনেক উত্তেজনাপূর্ণ হলেও, দেশের মাঝে ভ্রমণের তুলনায় বিদেশ ঘুরার প্রক্রিয়াটা বেশ জটিল। প্রয়োজন পড়ে নানারকম নিয়মকানুন মেনে চলার। প্রথমবার বিদেশ ভ্রমণের জন্য যেসব দিকে খেয়াল রাখা প্রয়োজন, তা নিয়েই আমাদের আজকের আলোচনা। চলুন জেনে নেই প্রথমবার বিদেশ ভ্রমণের আবশ্যিক বিষয়গুলো।

প্রথমেই সাথে রাখতে হবে ই-পাসপোর্ট। বেশিরভাগ দেশেই ভিসার ক্ষেত্রে পাসপোর্টের মেয়াদ ৬ মাস পর্যন্ত থাকা লাগে। তাই ভিসা করার সময় নিশ্চিত করতে হবে পাসপোর্টের মেয়াদ যেন ঠিক থাকে। পাসপোর্ট এবং ভিসা হওয়ার পরই আসে কীভাবে যাবেন সেটা ঠিক করার পালা। সড়কপথেই চলে যাওয়া যায় কাছাকাছি দেশগুলোতে- যেমন ভারত কিংবা নেপাল। সিলেট পার হলেই পৌঁছে যেতে পারবেন মেঘালয়ে, যেখানে আছে চেরাপুঞ্জি এবং শিলং। আবার খুলনার বেনাপোল বর্ডার দিয়ে যাওয়া সম্ভব আনন্দের নগরী কলকাতায়। রংপুরের দিক থেকে সীমানা পার করলেই পৌঁছে যেতে পারবেন সিকিম কিংবা গ্যাংটকে।
এমনকি হিমালয়ের রাজ্য নেপালেও সড়কপথে যাওয়া সম্ভব। তবে এক্ষেত্রে আর্থিক লাভ পাওয়া গেলেও, সময় চলে যায় অনেক বেশি। সম্পূর্ণ অথবা অর্ধেক পথ ফ্লাইটে গেলেই সময়ের সদ্ব্যবহার করা সম্ভব। তাছাড়া একটু দূরের দেশে যেতে চাইলে ফ্লাইটের বিকল্প নেই। তবে চড়া দামের কথা চিন্তা করে স্বপ্ন থামিয়ে রাখার কোনো প্রয়োজন নেই। গোযায়ান এ পেয়ে যেতে পারেন বাজেট সম্পর্কিত যাবতীয় সব সমস্যার সমাধান। তাদের প্লাটফর্মে দেশ-বিদেশের সব ধরনের ফ্লাইটের সাথে আছে ০% ই এম আই সুবিধা। এই সুবিধাটি ব্যবহার করে ফ্লাইটের প্রয়োজনীয় টাকা পরিশোধ করতে পারবেন সুবিধামতো সময় নিয়ে। ফলে এককালীন খরচের চাপটা অনেকটাই কমে যাবে।

বিদেশে থাকার ক্ষেত্রে আগে থেকে হোটেল বুক করে যাওয়াটাই শ্রেয়। দেশের মাঝে পরিচিত শহরে পৌঁছানোর পর হোটেলের খোঁজ শুরু করা মাঝেমধ্যে সম্ভব হলেও, বিদেশে যেয়ে এইভাবে হোটেলে ওঠাটা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। আগে থেকে অনলাইনে হোটেলের দাম, ছবি, সুযোগ-সুবিধা ইত্যাদি দেখে যাওয়াটাই এখন বেশি সহজসাধ্য। তবে বিদেশি ওয়েবসাইট থেকে হোটেল বুকিংয়ের ক্ষেত্রে প্রথমত বিশেষ ক্রেডিট কার্ডের প্রয়োজন হয়, যা অনেকের কাছেই থাকে না। তাছাড়া গন্তব্যে পৌঁছে অর্থ দেওয়ার ক্ষেত্রেও আলাদাভাবে ডলার বা অন্য বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ে যেতে হয়। বর্তমানে বিদেশি মুদ্রায় রূপান্তরটাও একটি বড়সড় ক্ষতির সমতুল্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। দ্রুত মুদ্রাস্ফীতির কারণে আলাদাভাবে বিদেশি মুদ্রা নেওয়ার থেকে বাংলাদেশি টাকাতে যদি পরিশোধ করা যায় হোটেলের মূল্য, তবে সবচাইতে ভালো হয়। এই প্রক্রিয়ায় হোটেল বুকিং করতে গোযায়ান এখন নিয়ে এসেছে বিদেশি হোটেলের সবচেয়ে বড় সংগ্রহ। তাদের প্লাটফর্মেই এখন সর্বনিম্ন মূল্যে বিদেশি হোটেল পাওয়া যাচ্ছে, এটা তাদের প্রতিজ্ঞা।

বাংলাদেশে বসেই এখন বুকিং করে ফেলতে পারবেন বিদেশের যেকোনো কোণার হোটেল, এবং পেমেন্ট করতে পারবেন দেশে প্রচলিত যেকোনো পেমেন্ট ব্যবস্থার মাধ্যমে। তাছাড়া এখানে ০% ই এম আই সুবিধাও ব্যবহার করতে পারবেন কিছুটা খরচের চাপ কমাতে। ব্যাপারটা শুধু সুবিধাজনকই না, বাংলাদেশের জন্য বেশ গর্বেরও।

শুধু যাওয়া এবং থাকায় সীমাবদ্ধ হলেই চলবে না, বিদেশ ভ্রমণে প্রয়োজন পরে অ্যাডভেঞ্চার, ঘোরাঘুরি কিংবা প্রকৃতিকে উপভোগ করার সুযোগ। তাই বিদেশ ঘুরতে যাওয়ার আগে সেই দেশের সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্য নিয়ে কিছু ধারণা রাখা চাই। তাছাড়াও জেনে নিতে হবে সেখানে দর্শনীয় স্থান এবং স্থানীয় খাবার কোনগুলো জনপ্রিয়। প্যাকেজ ট্যুরের মাঝে ভ্রমণ করার থেকে, নিজে বাছাই করে নিজের ভ্রমণটা সাজিয়ে নেওয়ার আনন্দই আলাদা।

সেইজন্যই গোযায়ান এ আছে সম্পূর্ণভাবে নিজের ট্যুরটি নিজের মতো সাজিয়ে নেওয়ার সুবিধা। তাদের ওয়েবসাইটের ট্যুরগুলো ছাড়াও অপশন আছে নিজের ইচ্ছার কথা অনলাইনেই তাদের জানিয়ে দেওয়া। সম্পূর্ণ নিজের পছন্দমতো একটি ট্যুর তারা অল্প সময়ের মাঝেই বানিয়ে পাঠাবে শুধু আপনার জন্য। ফলে ভ্রমণের ক্ষেত্রে কোনো বাধা মানার প্রয়োজন নেই, প্রয়োজন আছে শুধু স্বপ্ন দেখার।

কাছে বা দূরে যেখানেই ঘুরতে যাওয়ার ইচ্ছু হোক- ভ্রমণের সময় এখনই। স্বপ্নের ভ্রমণটা বাস্তবায়ন করতে এখন আর দেরি নয়। পাহাড় হোক বা সমুদ্র, গহীন জঙ্গলে অ্যাডভেঞ্চার অথবা কোলাহলময় শহরের শোরগোল- এখনই পরিকল্পনা করে ফেলুন আপনার পরবর্তী সফরের।