বাংলাদেশের ১০ রিক্রুটিং এজেন্সিকে শ্রমিক পাঠানোর সমস্ত কর্মকান্ড স্থগিতের আদেশ মালয়েশিয়া সরকারের


335 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
বাংলাদেশের ১০ রিক্রুটিং এজেন্সিকে শ্রমিক পাঠানোর সমস্ত কর্মকান্ড স্থগিতের আদেশ মালয়েশিয়া সরকারের
আগস্ট ২৬, ২০১৮ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

 

শেখ সেকেন্দার আলী, মালয়েশিয়া

বাংলাদেশের শ্রমিক প্রত্যাশীদের কাছ থেকে ব্যাপক অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে বাংলাদেশের ১০ রিক্রুটিং এজেন্সিকে আগামী পহেলা সেপ্টেম্বর থেকে সমস্ত কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার নোটিশ জারি করেছে মালয়েশিয়া সরকার। মালয়েশিয়া মাহথির সরকারের ক্ষমতায় আসার পরপরই ব্যাপক আলোচনায় থাকা বাংলাদেশের শ্রমবাজার সিন্ডিকেটের ব্যাপারে সোচ্চার হয় মালয়েশিয়া সরকার, অভিবাসন মন্ত্রণালয় সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ । যার ধারাবাহিকতায় প্রথমেই বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেয়া বন্ধ করে দেয়,এরপর সম্প্রতি বাংলাদেশের সব এজেন্সিগুলোকে শ্রমিক দেওয়ার জন্য মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার উন্মুক্ত করে দেয়া হয় । এবার ঐ ১০ সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে বিগত সরকার কর্তৃক দেওয়া সমস্ত কর্মকাণ্ড আগামী পহেলা সেপ্টেম্বর থেকে শ্রমিক সংক্রান্ত যে কোন কাজ থেকে বিরত থাকতে নোটিশ জারি করেছে মালয়েশিয়া সরকার । গত ২১ আগষ্ট স্বাক্ষরিত ওই পত্রে জানানো হয় বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়ার ব্যাপারে বিগত সরকারের স্বাক্ষরিত সমস্ত কর্মকান্ড থেকে বাংলাদেশের ১০ এজেন্সিকে সেপ্টেম্বর থেকে সাসপেন্ড করা হলো।
মাত্র ৪০ হাজার টাকার জায়গায়, চার লক্ষ টাকা নেয়ার অভিযোগে ১০ রিক্রুটিং এজেন্সিকে শ্রমিক পাঠানোর সমস্ত কর্মকান্ড স্থগিতের আদেশ

আদেশ মালয়েশিয়া সরকারের। মালেশিয়ার সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও একজন বাংলাদেশের নাগরিক ব্যাপক দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে কোটি কোটি টাকার অর্থ বাণিজ্যের মাধ্যমে বাংলাদেশের ১০জন এজেন্টকে মালয়েশিয়ায় শ্রমিক নিয়োগের দায়িত্ব দেয়া হয়। বাংলাদেশে থেকে আসা শ্রমিকরা মালয়েশিয়ায় অধিকাংশ মালিকের কাছে স্বীকার করেন যে, বাংলাদেশী এজেন্টের হাতে জিম্মি হয়ে চার লক্ষ টাকার বিনিময়ে তারা এদেশে এসেছে। এত টাকার বাণিজ্য,আস্তে আস্তে এটা মালয়েশিয়ায় ওপেন হতে থাকে এবং সর্বশেষ মালয়েশিয়ার মন্ত্রী পর্যায়ে চলে যায়। পুরো ঘটনার তদন্তে মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র সচিবকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করে দেয়া হয়। তদন্ত শেষে মালেশিয়ার মানব সম্পদ মন্ত্রী এম কুলাসেগারা এর কাছে প্রতিবেদনে বলা হয় ব্যাপক দুর্নীতির মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। আর পুরো দুর্নীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মালয়েশিয়ার সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং মালয়েশিয়ান নাগরিক (বাংলাদেশি) আমিন। মালয়েশিয়া সরকারের দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই আমিন মালয়েশিয়া ছেড়ে পালিয়েছে যায়। মালয়শিয়ার মানব সম্পদ মন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, পুরো বিষয়টি তদন্ত করে আমরা আবার আগের সিস্টেমের ফিরে যাব, এতক্ষণে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়া বন্ধ থাকবে। তিনি আরো বলেন, বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন স্তরে আলোচনা চলছে এবং আমি বিশ্বাস করি যে আমরা শীঘ্রই সমাধান খুঁজতে সক্ষম হবো। পুরনো ব্যবস্থায় ফিরে যেতে হবে, এবং স্বচ্ছতার মধ্য দিয়ে শ্রমিক নিয়োগ দেওয়া হবে।