বাইনতলা খালের অবৈধ দখলদার কে অবশেষে উচ্ছেদ করা হলো।


347 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
বাইনতলা খালের অবৈধ দখলদার কে অবশেষে উচ্ছেদ করা হলো।
এপ্রিল ২৯, ২০১৬ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

 এস কে সিরাজ,শ্যামনগর শ্যামনগর ও কালিগঞ্জ উপজেলার যথাক্রমে নূরনগর ইউনিয়ন এবং রতনপুর ইউনিয়নের সংযোগস্থলে বাইনতলা খালের উপর অবৈধ দখলদারিত্ব সৃষ্টি করে জনৈক আব্দুল মাজেদ দীর্ঘদিন যাবৎ ভিটাবাড়ি করে বসবাস করছে।  তার দখলকৃত জায়গাটি বলা যেতে পারে ‘নো ম্যানস ল্যান্ড-’। দখলকৃত জমিটির কিছু অংশ কালিগঞ্জে এবং কিছু অংশ শ্যামনগরে। কয়েকদিন পূর্বে সহকারী কমিশনার (ভূমি), শ্যামনগর কর্তৃক বাইনতলা খাল পরিদর্শনে গেলে আব্দুল মজিদের অবৈধ দখলদারিত্ব দৃষ্টিগোচর হয়। আব্দুল মাজেদ দাবী করে তার দখলকৃত অংশটি কালিগঞ্জ উপজেলার মধ্যে অবস্থিত। সুতরাং তাকে উচ্ছেদ করার কোন এখতিয়ার সহকারী কমিশনার (ভূমি), শ্যামনগরের নাই। অপরদিকে কালিগঞ্জের সহকারী কমিশনার (ভূমি) যখন তাকে উচ্ছেদের বিষয়ে প্রস্তুতি নেয় তখন সে চতুরতার সাথে জানায়যে জায়গাটি শ্যামনগর উপজেলার মধ্যে অবস্থিত। সুতরাং তাকে উচ্ছেদ করার কোন এখতিয়ার কালিগঞ্জের সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর নাই। এভাবে সে দীর্ঘদিন বাইনতলা খালের মধ্যে ভিটাবাড়ি করে অবৈধ দখল করে আছে। সমস্যাটি জটিল হওয়ায় কালিগঞ্জের সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর সঙ্গে যোগাযোগ করি। সে মোতাবেক কালিগঞ্জের রতনপুর ইউনিয়নের ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা ও শ্যামনগরের নূরনগর ইউনিয়নের ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে একত্রে স্পটে পাঠানো হয়। তখন সে স্বীকার করে যে তার দখলকৃত জমিটি দুই উপজেলার মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত।

অবশেষে দুই উপজেলা হতে ২৫ জনের শ্রমিকের মাধ্যমে যৌথভাবে উচ্ছেদ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। উচ্ছেদ অভিযানটি গত ২৭ এপ্রিল থেকে আজ পর্যন্ত চলমান আছে।

উল্লেখ্য আব্দুল মাজেদ একজন স্বচ্ছল ব্যক্তি। অবৈধ দখলকৃত জায়গার পাশেই তার রেকর্ডীয় জায়গা আছে। সহকারী কমিশনার (ভূমি), শ্যামনগরের পরামর্শ অনুযায়ী উচ্ছেদ হওয়ার পরে তার রেকর্ডীয় জায়গায় সে ঘর তৈরী করছে।এস কে সিরাজ