বাদাম অকাল মৃত্যুর ঝুকি কমায়


552 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
বাদাম অকাল মৃত্যুর ঝুকি কমায়
জুন ২৮, ২০১৫ স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

 

 

স্বাস্হ্য ডস্কে :

দনিে মাত্র আধমুঠো বাদাম খলেে অকাল মৃত্যুর ঝুঁকি অনকেখানি কমে যতেে পার।েনতুন এক গবষেণায় এ তথ্য বরেয়িে এসছে।ে

এর আগে বশে কয়কেটি গবষেণায় বাদাম খাওয়ার সঙ্গে হৃদযন্ত্ররে সুস্বাস্থ্যরে সর্ম্পক খুঁজে পাওয়া গছে।ে কন্তিু এই প্রথম রোগবালাই ও বাদামরে সঙ্গে সুনর্দিষ্টি সর্ম্পক দখেছেনে গবষেকরা।

ববিসিি জানায়, নদোরল্যান্ডরে ম্যাস্ট্রক্টি বশ্বিবদ্যিালয়রে গবষেকরা ১০ বছর ধরে গবষেণা করে দখেছেনে, যারা দনিে অন্তত ১০ গ্রাম বাদাম বা চনিাবাদাম খান তাদরে অকাল মৃত্যুর ঝুঁকি ২৩ শতাংশ কমে যায়।

তবে পনিাট বাটার খলেে কোন লাভ হবে না। কারণ পনিাট বাটারে উচ্চমাত্রায় লবন ও ট্রান্স ফ্যাট থাক।েহঁঃং

১৯৮৬ সালে নদোরল্যান্ডরে ৫৫ থকেে ৬৯ বছর বয়সী এক লাখ ২০ হাজাররে বশেি নারী-পুরুষ তাদরে খাদ্যাভাস ও জীবনযাত্রার তথ্য গবষেকদরেকে দনে।১০ বছর পর তাদরে মৃত্যুহার লক্ষ্য করা হয়।

এতে দখো যায়, যারা রোজ বাদাম খান তাদরে ক্ষত্রেে ক্যান্সার, ডায়াবটেসি, শ্বাসকষ্ট ও মস্তষ্কিরে বভিন্নি রোগে আক্রান্ত হয়ে অকালে মারা যাওয়ার ঝুঁকি কমে গছে।েংধ

গড়ে এই ঝুঁকি কমে যাওয়ার হার ২৩ শতাংশ। আর আলাদাভাবে মস্তষ্কিরে রোগ হওয়ার ঝুঁকি ৪৫ শতাংশ, শ্বাসকষ্টরে ঝুঁকি ৩৯ শতাংশ এবং ডায়াবটেসি হওয়ার ঝুঁকি ৩০ শতাংশ কম।ে

প্রধান গবষেক অধ্যাপক পটি ভন ড্যান ব্রান্ট বলনে, “দনৈকি ১৫ গ্রাম বাদাম বা চনিাবাদাম খলেে অকাল মৃত্যুর ঝুঁকি যে যথষ্টেই কমে যায় তা এরই মধ্যে প্রমাণ হয়ছে।েযা সত্যইি অসাধারণ।”

গবষেকরা গবষেণায় আরো দখেছেনে, যারা বাদাম খায় তারা বশেি ফল ও সবজি খায়। এছাড়া, নারীদরে মধ্যে যারা নয়িমতি বাদাম খায় তাদরে শরীরে মদে কম থাক।ে