বিচারক সুব্রত মল্লিকের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরীর ১৬ দিন পর এবার থানায় লিখিত অভিযোগ কণ্ঠশিল্পি চৈতালী মুখার্জীর


543 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
বিচারক সুব্রত মল্লিকের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরীর ১৬ দিন পর এবার থানায় লিখিত অভিযোগ কণ্ঠশিল্পি চৈতালী মুখার্জীর
নভেম্বর ৪, ২০১৫ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বিশেষ প্রতিনিধি :
রাজশাহী আদালতের সহকারী জজ সুব্রত কুমার মল্লিকের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরী করার ১৬ দিন পর এবার থানায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দায়ের করলেন তার স্ত্রী পরিচয়দানকারী চৈতালী মুখার্জ্জী। মঙ্গলবার সাতক্ষীরা সদর থানায় দাখিল করা লিখিত অভিযোগপত্রে আশাশুনি উপজেলার বেউলা গ্রামের কার্তিক চন্দ্র মুখার্জীর মেয়ে , কণ্ঠশিল্পি চৈতালী মুখার্জী উল্লেখ করেন, গতবছর ২২ সেপ্টেম্বর হিন্দু ধর্মমতে যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের লক্ষীকান্ত মল্লিকের ছেলে (বর্তমানে রাজশাহীর সহকারী জজ   ) সুব্রত কুমার মল্লিকের সাথে তার বিয়ে হয়। গত ৩ মাস যাবত তার স্বামী তাকে বিভিন্ন অজুহাতে মানসিক চাপ দিয়ে আসছে। তাকে ও তার শিশু কন্যা পুস্পিতা চক্রবর্তী অর্পা (৮) কে বিভিন্ন ভাবে হত্যা করার হুমকি দিচ্ছে । গত ১৯ অক্টোবর এনিয়ে তিনি বাদী হয়ে স্বামী সুব্রত কুমার মল্লিকের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। যার নং ৮২৩। থানায় ডায়েরী করার পর থেকে  প্রতিনিয়ত তার স্বামী সুব্রত কুমার মল্লিক মোবাইলে মেসেজ দিয়ে তাকে হত্যার হুমকি দিচ্ছেন।

লিখিত অভিযোগপত্রে চৈতালী মুখার্জী আরও উল্লেখ করেছেন,  গত ৩০ ও ৩১ অক্টোবর আমার ব্যবহ্নত (চৈতালীর) ০১৭৬১-৮১৬৬৩৭ নম্বরে ০১৭১৬-৬৬৪১৫৯ নম্বর হতে মেসেজ এবং ফোন করে সমাজের চোখে নোংরা, হেয়পতিপন্ন করছে এবং আমার অন্তরঙ্গ মুহুর্তের কিছু ছবি ও ভিডিও নগ্নরুপে প্রকাশ করে অনলাইনে প্রকাশ করত: আমার এবং আমার পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানা এবং জেলায় একাধিক মামলা করার ষড়যন্ত্র ও হুমকি প্রদান করছে।

চৈতালী অভিযোগপত্রে আরও উল্লেখ করেছেন, মোবাইল ফোনে আমাকে বলে “টাকা থাকলে সব হয়। তাই টাকা এবং পদাধিকার ক্ষমতা প্রয়োগ করিয়া তোর অশ্লিল ছবিসহ বিভিন্ন পত্রিকায় তোর বিরুদ্ধে ধারাবাহিক ভাবে প্রতিবেদন প্রকাশ করিয়া শ্লীলতাহানী করিব”। ইতিমধ্যে জানাগেছে যে, আমার পরিচয়ে “চৈতী চৈতী ” নামে একটি ফেইসবুক আই ডি খুলে , আমার সকল ফেইসবুক বন্ধুদের কাছে ফ্রেন্ড রিকুয়েষ্ট ও মেসেজ দিচ্ছে। তার (সুব্রত কুমার মল্লিকের ) এরুপ কর্মকান্ডে আমি আমার এবং আমার পরিবারের লোকজনদের বিপদাশংকা করছি। তাই ভবিষ্যৎ নিরাপত্তার লক্ষ্যে আমার দরখাস্তটি থানায় অভিযোগ হিসেবে রজু করা আবশ্যক।

এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা সদর থানার ওসি এমদাদ শেখ থানায় অভিযোগপত্র দাখিলের বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে বলেন, অভিযোগপত্রটি থানায় রিসিভ করে নেওয়া হয়েছে। বিষয়টি তদন্তের জন্য এসআই অর্পণা বিশ্বাসের উপর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এস আই অর্পণা বিশ্বাস ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে জানান, বুধবার সকালে চৈতালী মুখার্জীর অভিযোগপত্রটি হাতে পেয়েছি। তদন্তকাজ ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। মোবাইলে হুমকি দেওয়ার বিষটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। শিঘ্রই তদন্ত রিপোর্ট দেওয়া হবে।

এদিকে, কণ্ঠশিল্পি চৈতালী মুখার্জীর মা গীতা রানী মুখার্জী গত ২ নভেম্বর বিচারক সুব্রত কুমার মল্লিকের এসব কর্মকান্ডের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব বরাবর একটি আবেদন পাঠিয়ে প্রতিকার চেয়েছেন। ওই আবেদনপত্রে বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে “আমার মেয়ে চৈতালী মুখার্জীকে স্ত্রীর মর্যাদা দিতে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন সহ ক্রমাগত খুন জখমের হুমকি প্রদর্শন করায় রাজশাহী জজশীপে কর্মরত সহকারী জজ জনাব সুব্রত কুমার মল্লিককে উপরোক্ত কর্মকান্ড হইতে নিভৃত করার আকুল আবেদন ”।
দুই পৃষ্টার ওই আবেদনপত্র সদয় অবগতির জন্য আইন সচিব, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের রেজিষ্ট্রার, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার, খুলনার ডিআইজি, রাজশাহী জেলা জজ, সাতক্ষীরা জেলা জজ, বাগেরহাটের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (তদন্তকারী কর্মকর্তা ) জিয়া হায়দার, রাজশাহী প্রেসক্লাব, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব ও সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।

C t