বিজয়া দশমীতে ইছামতির বুকচিরে বসবে দু’বাংলার মিলন মেলা


1698 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
বিজয়া দশমীতে ইছামতির বুকচিরে বসবে দু’বাংলার মিলন মেলা
সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৭ দেবহাটা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আর. কে  বাপ্পা , দেবটাহা ::

———————-
দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর শারদীয় দূর্গা পূজার বিজয়া দশমীতে এবছর আবার সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার সীমান্ত নদী ইছামতিতে বসবে দু’বাংলার মিলন মেলা। তবে নিজ নিজ সীমান্তরেখা কেউ অতিক্রম করতে পারবে না। সীমান্ত নদী ইছামতির ঠিক জিরো পয়েন্টে দুই বাংলার প্রশাসন মিলিত হবে বিজয়া দশমীর কোন এক সময়। অর্থাৎ ইছামতি নদীর জিরো পয়েন্টে মূলত: বসবে দুই বাংলার মিলন মেলা।
আগে যেমনটি বিজয়া দশমীতে ইছামতি নদীর এপার-ওপার কোন ধরনের ভেদাভেদ থাকতো না। ইচ্ছা করলেই দুই বাংলার মানুষ এপার-ওপার করতে পারতো। কিন্তু এবার ঠিক তেমনটি হবে না। বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্তরক্ষী তাদের নিজ নিজ এলাকায় কঠোর পাহারায় থাকবে।কোন অবস্থাতেই কেউ সীমান্ত অতিক্রম করতে পারবে না।

এ উপলক্ষ্যে শুক্রবার (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ভারতের টাকি বিএসএফ ক্যাম্পে অনুষ্ঠিত বিজিবি-বিএসএফ’র পতাকা বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে অংশ নেন সাতক্ষীরার নীলডুমুর ১৭ বিজিবি ব্যাটালিয়নের ইন্ট অফিসার মেজর আব্দুল্লাহ আল মামুন, দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাফিজ আল আসাদ, কালিগঞ্জ সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মীর্জা সালাউদ্দিন, দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী কামাল হোসেন, টাউন শ্রীপুর বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার আকতার হোসেনসহ সাত সদস্যের প্রতিনিধি দল।

ভারতের পক্ষে অংশ নেন- সেদেশের ১৬০ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের এসি এসএ মিনার, ২৪ পরগণা জেলা পুলিশের এএসপি অভিজিৎ ব্যানার্জিসহ সাত সদস্যের প্রতিনিধি দল।

সাতক্ষীরার সহকারী পুলিশ সুপার মীর্জা সালাউদ্দিন ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান, আগে যেমনটি বিজয়া দশমীতে ইছামতি নদীর এপার-ওপার কোন ধরনের ভেদাভেদ থাকতো না। ইচ্ছা করলেই দুই বাংলার মানুষ এপার-ওপার করতে পারতো। কিন্তু এবার ঠিক তেমনটি হবে না। বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্তরক্ষী তাদের নিজ নিজ এলাকায় কঠোর পাহারায় থাকবে।কোন অবস্থাতেই কেউ সীমান্ত অতিক্রম করতে পারবে না। তবে জিরো পয়েন্টে দুই বাংলার প্রশাসনসহ দর্শকেরা মিলিত হতে পারবে।

বৈঠক প্রসঙ্গে মেজর আব্দুল্লাহ আল মামুন ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান, বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দেড় ঘণ্টাব্যাপী অত্যন্ত সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে রেওয়াজ অনুযায়ী সীমান্ত নদী ইছামতিতে বিজয় দশমীতে দু’বাংলার মিলন মেলার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তিনি আরও জানান, সন্ধ্যা ৬টার আগেই বিসর্জন, নিজ নিজ সীমানার মধ্যে বিচরণ এবং কোন ক্রমেই কেউ যাতে অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করতে না পারে- সে ব্যাপারে বিজিবি-বিএসএফের টহল জোরদারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ওই বৈঠকে ।

প্রসঙ্গত, শারদীয় দূর্গাপূজার বিজয় দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনকে কেন্দ্র করে সীমান্ত নদী ইছামতিতে শত বছর ধরে বসতো দু’বাংলার মিলন মেলা। এই মেলায় একাকার হয়ে যেত ওপার বাংলা-এপার বাংলার মানুষ। তবে, গত কয়েক বছর ধরে নিরাপত্তার অজুহাতে আর বসতে দেওয়া হতো না এই মিলন মেলা। #