বুধহাটায় ভ্রাম্যমান আদালতে ৩ ক্লিনিকে জরিমানা


456 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
বুধহাটায় ভ্রাম্যমান আদালতে ৩ ক্লিনিকে জরিমানা
এপ্রিল ৬, ২০১৬ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :
ক্লিনিক আছে, সেখানে ডাক্তার নেই। বেড আছে, বালিশ নেই। রোগী আছে, নার্স নেই। এভাবে একের পর এক গড়ে উঠছে ক্লিনিকগুলো। অদক্ষ ডাক্তার, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ ও স্যাতসেতে জায়গায় অপারেশন, অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ছাড়াই অপারেশনের অভিযোগ রয়েছে। গতকাল বুধহাটার তিনটি ক্লিনিকে ভ্র্যাম্যমান আদালতের অভিযানে এসব চিত্র ফুটে উঠে।
আশাশুনির বুধহাটায় বুধবার দুপুর ১টায় নির্বাহী  ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ৩টি ক্লিনিকে ১২ হাজার জরিমানা আদায় করেছে। এ সময় দুইটি ক্লিনিকে সতর্ক করা হয়েছে। সাথে সাথে প্রত্যেক ক্লিনিক মালিকে তাদের সন্মতিতে ২সপ্তাহ, ১মাস ও ২মাস সময় বেধে দেওয়া হয়েছে। বেধে দেওয়া সময়ের মধ্যে তাদেরকে সকল সমস্যার সমাধান করে ফেলতে হবে অন্যথায় ক্লিনিক সিলগালা করে দেওয়া হবে মর্মে লিখিত অজ্ঞিকার নামা নেওয়া জয়েছে। বুধহাটা নার্সিং হোমের মালিক কবির হোসেনকে ডাক্তার, নার্স, ক্লিনিকের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ এবং নবায়ন না খাকায় ৫হাজার টাকা জরিমানা, লাইসেন্স নবায়নের জন্য ১মাসের সময় বেধে দেওয়া হয়েছে। সখিনা মেমোরিয়াল ক্লিানকের মালিক রাজু আহম্মেদকে সদ্য সিলগালা মুক্ত হওয়ার সত্ত্বেও ক্লিনিকের বেহাল দশাসহ বদ্ধ রুমে রুগি রাখার কারণে, নির্ধারিত মুল্যের থেকে বেশি টাকা চুক্তিতে অপারেশন করার প্রমান পাওয়ায়, ডাক্তার, নার্স, ক্লিনিকের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ এবং নবায়ন না খাকায় ৫হাজার টাকা জরিমানা, লাইসেন্স নবায়নসহ সমস্যা সমাধানের জন্য ২মাসের সময় বেধে দেওয়া হয়েছে। মা সার্জিকালের মালিক তরুন কুমার মন্ডলকে ডাক্তার, নার্স, ক্লিনিকের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ এবং নবায়ন না খাকায় ২হাজার টাকা জরিমানা, লাইসেন্স নবায়নসহ সমস্যা সমাধানের জন্য ১মাসের সময় বেধে দেওয়া হয়েছে। সোনার বাংলা ক্লিনিকে কোন রুগি না থাকায় ক্লিনিকের মালিক লিখিত দিয়েছে যে, তারা এখন সেটি বন্ধ রেখেছেন। নিবেদিতা নার্সিং হোমের মালিক ডাঃ সুলেখা ব্যার্নাজীকে জিএ মেশিন কেনার জন্য ২ সপ্তাহ সময় দেওয়া হয়েছে। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা টিমে ছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মইনুল ইসলাম, বিবি খাদিজা, সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ আরিফুজ্জামান।