ভদ্রা নদীর ভাঙ্গনে ফের হুমকির মুখে দেলুটির কালীনগর বেড়িবাঁধ


458 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ভদ্রা নদীর ভাঙ্গনে ফের হুমকির মুখে দেলুটির কালীনগর বেড়িবাঁধ
জুন ১, ২০১৭ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,এম, আলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা (খুলনা) ::
পাইকগাছায় ভদ্রা নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গনে ফের হুমকির মুখে পড়েছে দেলুটি ইউনিয়নের কালীনগর ওয়াপদার বেড়ি বাঁধ। গত বছর থেকে ভাঙ্গন শুরু হলেও ঘুর্ণি ঝড় মোরার প্রভাবে কয়েক দিনের প্রবল ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থ ওয়াপদার বাঁধ পরিদর্শন করেছেন পাউবো ও উপজেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ। এর আগে ইউনিয়ন পরিষদের সহযোগিতায় এলাকাবাসী স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে ক্ষতিগ্রস্থ বাঁধ মেরামতের চেষ্টা করে আসছেন। বৃহস্পতিবার সকালে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বাঁধ পরিদর্শন করে বিকল্প বেড়িবাঁধ নির্মাণের আশ্বাস দিয়েছেন এলাকবাসীকে। অনুরূপভাবে তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয় প্রশাসন ৩ মেট্রিক টন খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, উপজেলার দেলুটি ইউনিয়নের ২২নং পোল্ডারের কালীনগর ভদ্রা নদীর ওয়াপদার বাঁধে কয়েক দিন ধরে আবারো ভয়াবহ ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। প্রায় আধা কিলোমিটার জুড়ে ভাঙ্গন দেখা দেয়ায় ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় ব্যাপক সম্পদ-সম্পত্তির ক্ষতির আশংকায় জনগণ আতংকিত হয়ে পড়েছে। ভাঙ্গনরোধে স্থানীয় জনগণ স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছে। যা ভাঙ্গনরোধের জন্য যথেষ্ঠ নয়। বিষয়টি জানার পর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডঃ স.ম. বাবর আলী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফকরুল হাসান, পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী পিযুষ কুমার কুন্ডু ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করছেন। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রিপন কুমার মন্ডল জানিয়েছেন, গত কয়েকদিনের প্রবল ভাঙ্গনে ইউনিয়নের কালীনগর ওয়াপদার বাঁধ হুমকির মুখে পড়েছে। যেকোন মুহুর্তে সম্পূর্ণ বাঁধটি নদী গর্ভে বিলিন হয়ে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতির আশংকা করা হচ্ছে। ভাঙ্গনরোধে ইতোমধ্যে ইউনিয়ন পরিষদের সহযোগিতায় এলাকাবাসী স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে বাঁধ মেরামতের চেষ্টা করছে। তবে স্থানীয় এ উদ্যোগ ভাঙ্গনরোধের জন্য যথেষ্ট নয়। বৃহস্পতিবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বাঁধ পরিদর্শন করে আগামী ২/১দিনের মধ্যে ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় বিকল্প বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য আশ্বস্ত করেছেন। এ ক্ষেত্রে এলাকাবাসীর দাবী শুধু আশ্বস্ত নয় এলাকার বিপুল জনগোষ্ঠি ও সম্পদ রক্ষার জন্য বিকল্প বেড়িবাঁধ নির্মাণ সহ ভাঙ্গনরোধে দ্রুত টেকসই উদ্যোগ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে হবে।