ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমে সংবাদ প্রকাশের ফল। তালায় দূর্নীতির অভিযোগে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের শাস্তিমূলক বদলি


440 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমে সংবাদ প্রকাশের ফল। তালায় দূর্নীতির অভিযোগে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের শাস্তিমূলক বদলি
সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৫ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

মোঃ কামরুজ্জামান মোড়ল :
ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমে তালায় প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে বরাদ্দের সোয়া কোটি টাকার সিংহভাগ লোপাট শীরোনামে প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা অধীদপ্তরের মহা-পরিচালক এক আদেশে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা প্রণব কুমার মল্লিককে  কুষ্টিয়া খোকসা উপজেলায় শাস্তিমূলক বদলি করা হয়েছে বলে জানাগেছে। তার বদলীর খবরে ভুক্তভোগী শিক্ষক ও অভিভবক মহলের মধ্যে স্বস্তির নি:শ্বাস ফিরেছে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: আশরাফ হোসেন প্রনব কুমার মল্লিকের বদলীর বিষয়টি নিশ্চিত করে ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে জানান, বৃহস্পতিবার তার বদলীর আদেশ হয়েছে।

তথ্যানুসন্ধানে জানাগেছে, দুর্নীতিপরায়ন শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে উপজেলা ২০৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত ১৫১ জন প্রধান শিক্ষক ও ৬১৬ জন সহকারী শিক্ষকদের নিয়োগ-বদলির সুপারিশ, বকেয়া বেতন-ভাতা, পেনশন গ্রাচুয়ীটি, মাতৃত্বকালীন ছুটি মঞ্জুর, কল্যাণ তহবিলে জমাকৃত টাকা উত্তোলনে ঘুষ বাণিজ্য সহ শিক্ষকদের উপর নানাভাবে হয়রানি করে আসছেন। এতেকরে গোটা উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষার ক্রমাগত মানোন্নয়ন দারুনভাবে ব্যাহত হয়েছে। দুর্নীতির পরায়ন এ কর্মকর্তার যোগদানের পর থেকে অনিয়ম যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে। ঘুষছাড়া কোন ফাইলে স্বাক্ষর হয়না। তার চাহিদা অনুযায়ী ঘুষ নাদিলে শিক্ষকদের নানাভাবে নাজাহাল হতে হয়েছে। প্রতিকার চাওয়ার কোন সুযোগ শিক্ষকদের নেই।

প্রসঙ্গত, তালা উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে গত ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে সবখাত মিলিয়ে ১ কোটি ২০ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা সরকারী ভাবে বরাদ্ধ হয়। বরাদ্দকৃত টাকায় বিদ্যালয়গুলো অবকাঠামোগত উন্নয়ন শিক্ষা ও শিকন উপকরণ ক্রয়, টয়লেট মেরামত, ভবন মেরামত ও সংস্কার কাজে গত অর্থ বছরের ৩০ জুনের মধ্যে সম্পন্ন করার কথা। কিন্তু দুর্নীতিবাজ শিক্ষা কর্মকর্তা বিদ্যালয়গুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়নের কথা না ভেবে নিজের পকেট ভারি করার জন্য মেতে উঠেন।

এনিয়ে গত তিন দিন আগে অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমে’ একটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এর পর বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে এবং অভিযুক্ত উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে শাস্তিমূলক বদলী করা হয়।