মনোনয়ন বাণিজ্য : সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সভাপতি পলাশের বহিষ্কার দাবি


324 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মনোনয়ন বাণিজ্য : সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সভাপতি পলাশের বহিষ্কার দাবি
ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার  :
মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে মনোনয়ন বিক্রির অভিযোগে এবার সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সভাপতি রহমাতুল্লাশ পলাশ, আশাশুনি উপজেলা বিএনপির সভাপতি রফিকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক রুহুল কুদ্দুসকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি উঠেছে। বুধবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও বরখাস্তকৃত ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম ভুট্ট মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ এনে তাদের বহিষ্কারের দাবি জানান।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমিসহ ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি রফিকুজ্জামান ছট্টু ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলাম। আমরা হামলা-মামলার পরও এলাকায় অবস্থান করে দলকে বাঁচিয়ে রেখেছি। বিএনপি করার কারণে আমাকে ইউপি মেম্বরের পদ থেকে ষড়যন্ত্র করে বহিষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু মোটা অংকের টাকা নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে সাতক্ষীরা শহরে অবস্থানকারী জনৈক নুরুল আমিনকে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, দল করার কারণে ইউনিয়ন পরিষদের পদ হারিয়েছি, মামলা খেয়েছি, আর মনোনয়ন পাচ্ছে দলের হাইব্রিড কর্মীরা। সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ব্যাপারে দলের চেয়ারপারসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সভাপতি রহমাতুল্লাশ পলাশ, আশাশুনি উপজেলা বিএনপির সভাপতি রফিকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক রুহুল কুদ্দুসকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি জানান।
এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সভাপতি রহমাতুল্লাশ পলাশ মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, উপজেলা বিএনপির সভাপতি-সম্পাদক নুরুল আমিনকে ফেভার করেছে। এজন্য তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। ##